Alexa বিস্ময়কর মানব, সত্যিকারের আস্ত বিমান, টিভি চিবিয়ে খেতেন তিনি

বিস্ময়কর মানব, সত্যিকারের আস্ত বিমান, টিভি চিবিয়ে খেতেন তিনি

মজার খবর ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:৪৮ ২২ আগস্ট ২০১৯   আপডেট: ১৭:০০ ২২ আগস্ট ২০১৯

ছবি- সংগৃহীত

ছবি- সংগৃহীত

একটি সত্যিকারের আস্ত বিমান চিবিয়ে খেয়ে ফেলেছিলেন মিশেল লতিতো। এখানেই শেষ নয়, তার প্রিয় খাবারের তালিকায় আরও ছিল কম্পিউটার, টিভি, বাইসাইকেল, শোয়ার খাট এমনকি কফিনও। বিস্ময়কর এই লোকটি ১৯৫০ সালে ফ্রান্সের গ্রিনোবলে জন্মগ্রহণ করেন।

ছোটবেলায় অন্য সাধারণ বাচ্চাদের মতোই বেড়ে উঠেছিলেন তিনি। কিন্তু ১৬ বছর বয়সে লতিতো প্রথম আবিষ্কার করেন তিনি যা খুশি তাই খেতে পারেন এবং তার পেটও তা সায় দেয়। আর তখন থেকেই যা মন চাইল তাই খাওয়া শুরু করলো সে।

খাদ্য ও অখাদ্য সব খেতে পারলেও লতিতোর সবচেয়ে পছন্দের খাবার ছিল ধাতু, কাঁচ এবং রাবার জাতীয় বস্তু। এগুলো খাওয়ার সময় তিনি তা ছোট ছোট টুকরো করে ভেঙে নিতেন। এরপর আয়েশ করে দাঁত দিয়ে তা চিবিয়ে চিবিয়ে খেতেন।

এসব খাবার সময় তিনি একটু করে মিনারেল অয়েলও খেতেন এতে খাবারটা তার গলা দিয়ে সুড়সুড় করে নেমে যেত। লতিতোর খাবারের জন্য প্রতিদিন প্রায় ১ কেজি ধাতু প্রয়োজন হতো।

তখনকার বাঘা বাঘা ডাক্তাররা তার পাকস্থলী নিয়ে পরীক্ষা করে বুঝতে পারেন লতিতোর পাকস্থলীর গায়ে শক্ত ও পুরু আবরণ রয়েছে। যে কারণে তিনি এসব ধারালো বস্তু নিমিষেই পেটে চালান করে দিতে পারতেন।

এই আবরণটি খেয়ে ফেলা ধারালো বস্তুর আঘাত থেকে পাকস্থলীকে সুরক্ষা দিত। এছাড়া তার পাকস্থলীতে ছিল অত্যাধিক পরিমাণের হজম রস। যে রসে তিনি সব কিছুই হজম করে ফেলতেন।

ডাক্তাররা এও জানান যে, এটি আসলে পিকা নামের একটি রোগ। যার কারণে মানুষের খাদ্য তালিকায় অখাদ্য ঠাঁই পায়। এমন লোক পৃথিবীতে আরো অনেকে আছে। তবে মি. লতিতো একটু বেশিই অন্যরকম ছিলেন তার অবাক করা খাবারের ফিরিস্তির জন্য। ৩৮ বছর বয়সে তিনি মোট ৯ টন ধাতু খেয়েছিলেন।

তার উল্লেখযোগ্য খাবারের তালিকা শুনলে অবাক হবেন। আস্ত ১টি ২ সিটের বিমান, ১৮টি বাইসাইকেল, ১৫টি শপিং কার্ড, ৭টি টেলিভিশন, ৬টি ঝারবাতি, ২টি শোয়ার খাট, ১ জোরা স্কি, ১টি কম্পিউটার, ১টি ওয়াটার বেড এমনকি ১টি কফিনও চিবিয়ে খেয়ে সাবার করেছেন লতিতো।

এমন সব অখাদ্য-কুখাদ্য খাওয়ার পরও কোনো শারীরিক সমস্যায় পড়তে হয়নি তাকে। এই অবিশ্বাস্য খাদ্য তালিকা ও পেটের হজম শক্তির গুনে স্থান পেয়েছেন গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে। করেছেন বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী পেটের তকমা। 

তবে মজার বিষয় হচ্ছে গিনিস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড থেকে পিতল দিয়ে বানিয়ে দেওয়া ক্রেস্টটিও খেয়ে ফেলেছেন তিনি। ২০০৭ সালের ২৫ জুন লতিতো স্বাভাবিকভাবে মৃত্যুবরণ করেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমএস