Alexa বিশ্বকাপের ‘এইট ফ্যাক্ট’

বিশ্বকাপের ‘এইট ফ্যাক্ট’

স্পোর্টস ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৯:২০ ২৩ মে ২০১৯   আপডেট: ১৯:৩২ ২৩ মে ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

কড়া নাড়ছে বিশ্বকাপের দ্বাদশ আসর। আগামী ৩০ মে থেকে আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হবে এবারের ক্রিকেট বিশ্বকাপের। এ নিয়ে চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা। ক্রিকেট বিশ্লেষক থেকে শুরু করে ক্রিকেট পাড়া পর্যন্ত বইছে বিশ্বকাপের ঝড়। 

আজ আপনাদের জানাবো বিগত বিশ্বকাপের ১১ আসরের আটটা ঘটনা নিয়ে ‘‘এইট ফ্যাক্ট’’।

১.সবচেয়ে বেশিবার বিশ্বকাপ জয়ঃ 


বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ জেতে অস্ট্রেলিয়া। এ পর্যন্ত ১১ বিশ্বকাপে তারা ৫ বার শিরোপা জেতার গৌরব অর্জন করেছে। ১৯৯৯ থেকে ২০০৭ সালের মধ্যে তারা ৩ টি বিশ্বকাপ জেতে। এছাড়াও তারা বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ জয়ের রেকর্ডও নিজেদের করে রাখে। এ পর্যন্ত বিশ্বকাপে তারা ৬২ ম্যাচে জয় লাভ করে। যা প্রায় ৭৫ শতাংশ জয়ের রেকর্ড। 

২.সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ঃ 


বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ডটি নিজেদের করে রেখেছে আয়ারল্যান্ড। ২০১১ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৩২৮ রান তাড়া করে জেতে আইরিশরা। সে ম্যাচে বিশ্বকাপের ইতিহাসে দ্রুততম শতকের রেকর্ড গড়ে আইরিশ ব্যাটার কেভিন ও’ব্রায়েন। মূলত তার ৬৩ বলে ১১৩ রানে ভর করেই ৫ বল হাতে রেখে জয় পায় আয়ারল্যান্ড।

৩. সর্বোচ্চ দলীয় রানঃ 


বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ দলীয় রানের রেকর্ড ৫ বার বিশ্বকাপ জেতা অস্ট্রেলিয়ার। ২০১৫ বিশ্বকাপে জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে ৬ উকেটে ৪১৭ রানের রেকর্ড গড়া ইনিংস খেলে তারা। অসি অলরাউন্ডার ম্যাক্সওয়েলের ৪৫ বলে ৮৮ রানের ইনিংসে ভর করে এই সংগ্রহ আসে। জবাবে মাত্র ১৪২ রানে গুটিয়ে যায় জিম্বাবুয়ে। যা বিশ্বকাপের ইতিহাসে এখন পর্যন্ত বড় ব্যাবধানে জয়ের রেকর্ড। 

৪.বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকঃ 


এখন পর্যন্ত অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহের রেকর্ড ভারতের লিটল মাষ্টার খ্যাত শচিন টেন্ডুলকারের। অবসরে যাওয়ার আগ পর্যন্ত বিশ্বকাপে ২,২৭৮ রান সংগ্রহ করেন তিনি। যা তার নিকটতম প্রতিপক্ষের চেয়ে এখনো ৫০০ রান বেশি। ওয়ার্ল্ডকাপে তার ব্যাটিং গড় প্রায় ৫৭ এর কাছাকাছি। ২০০৩ সালে নমিবিয়ার বিপক্ষে ১৫২ রানের ঝড়ো ইনিংস বিশ্বকাপে তার ক্যারিয়ার সেরা। 

৫.দ্রুত ডাবল সেঞ্চুরিঃ 


বিশ্বকাপে দ্রুততম ডাবল সেঞ্চুরির মালিক ৯৯৯ ইউনিভার্স বস ক্রিস গেইল। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২০১৫ বিশ্বকাপে ১৪৭ বলে ২১৫ রানের ইনিংস খেলেন তিনি। ইনিংস জুড়ে ১৬ টি ছক্কা হাঁকান তিনি, যা বিশ্বকাপে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ ছয়ের রেকর্ড। সে ম্যাচে সতীর্থ মারলন স্যামুয়েলস এর সঙ্গে গড়া ৩৭২ রানের রেকর্ড ওয়ানডে ক্রিকেট ইতিহাসে সর্বোচ্চ পার্টনারশিপ এর রেকর্ড। 

০৬.এক আসরে সর্বোচ্চ ছক্কার রেকর্ডঃ


বিশ্বকাপের এক আসরে সর্বোচ্চ ছক্কা হাঁকানোর রেকর্ড যৌথভাবে ক্রিস গেইল আর মি. ৩৬০ ডিগ্রী খ্যাত এবিডি ভিলিয়ার্সের। উভয়ে সমান ৩৭ টি করে ছক্কা হাঁকিয়েছেন। ডি ভিলিয়ার্স ক্রিকেটকে বিদায় জানানোয় এবার গেইলের সামনে রেকর্ডটি নিজের করে নেওয়ার সুযোগ রয়েছে।

০৭.সর্বোচ্চ উইকেটঃ

বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ উইকেটের রেকর্ডটি অস্ট্রেলিয়ান বোলিং কিংবদন্তী গ্লেন ম্যাগ্রার। বিশ্বকাপের ইতিহাসে তিনি ৩৯ ম্যাচে ৭১ টি উইকেট শিকার করেন। ২০০৭ সালের বিশ্বকাপে ২৬ উইকেট অর্জন যা এক আসরে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারের রেকর্ড।

০৮.টানা উইকেট শিকারঃ

২০০৭ সালে শ্রীলংকা বনাম সাউথ আফ্রিকার ম্যাচে লাসিথ মালিঙ্গা পরপর ৪ বলে ৪ উইকেট শিকারের গৌরব অর্জন করেন। সাউথ আফ্রিকার স্কোরবোর্ডে তখন ৫ উইকেটের বিনিময়ে ২০৬ রান। জেতার জন্য তাদের প্রয়োজন ছিল ৪ রান। তখন বোলিং এ মালিঙ্গা, তুলে নেন পরপর ৪ বলে ৪ উইকেট। যদিও আফ্রিকা সে ম্যাচে ১ উইকেটের জয় তুলে নেয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/সালি 
 

Best Electronics
Best Electronics