বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা দিচ্ছে ‌‌‘সংশপ্তক’

বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা দিচ্ছে ‌‌‘সংশপ্তক’

কুমিল্লা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:৩০ ৬ জুলাই ২০২০   আপডেট: ১৬:৪৭ ৬ জুলাই ২০২০

‌‘সংশপ্তক’ এর উদ্যোগে বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা

‌‘সংশপ্তক’ এর উদ্যোগে বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা

কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার শিক্ষার্থীদের স্বেচ্ছাসেবী টিম ‌‘সংশপ্তক’ এর উদ্যোগে বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

করোনা মহামারির এই সময়ে করোনা আক্রান্ত রোগীর পাশাপাশি শ্বাসকষ্টসহ অন্যান্য রোগীরও অক্সিজেনের প্রয়োজন হচ্ছে। তবে অক্সিজেন মজুত করা ও এর মূল্য বেশি হওয়ায় অনেক রোগী তাৎক্ষণিকভাবে অক্সিজেন পাচ্ছেন না। এই অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য এ উদ্যোগ নিয়েছে টিম সংশপ্তক।

সোমবার থেকে এই সেবা চালু করা হয়েছে। নাঙ্গলকোট উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদের প্রতিনিধিকে কিংবা ০১৩০৩-৪১৮৭০৩ এই নম্বরে ফোন করে জানালেই অক্সিজেন সিলিন্ডার পৌঁছে দেবেন ওই টিমের স্বেচ্ছাসেবীরা।

জানা গেছে, টিম সংশপ্তককে বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবার উদ্যোগটিতে সার্বিক সহযোগিতা করছেন নাঙ্গলকোট পাটোয়ারী জেনারেল হাসপাতালের সত্ত্বাধিকারী সাইফুল ইসলাম।

এমন উদ্যোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, যেহেতু অনেকের জন্য তাৎক্ষণিকভাবে অক্সিজেন সিলিন্ডার ব্যবস্থা করা সম্ভব হয় না, তাই প্রাথমিক সাপোর্টের জন্য এই উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। অক্সিজেন প্রদান করার পর তাদের কাছে সুস্থ হওয়া পর্যন্ত এ সিলিন্ডারটি থাকবে। রোগীর প্রয়োজন না হলে তা আবার ফেরত নেয়া হবে।

সংশপ্তক টিমের সমন্বয়ক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী জহিরুল ইসলাম বলেন, করোনার শুরু থেকেই নাঙ্গলকোটের অসহায় মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। বর্তমানে নাঙ্গলকোটে করোনা রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় অসহায় ও জরুরি রোগীদের বিনামূল্যে অক্সিজেন সিলিন্ডার বিতরণের উদ্যোগ গ্রহণ করি। রোগীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে অক্সিজেন সিলিন্ডারটি পৌঁছে দেয়া হবে।

জহিরুল ইসলাম আরো বলেন, এর আগে দরিদ্র ১ হাজার ৭০০ পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছি। পাশাপাশি হটলাইনের ‘হ্যালো সংশপ্তক’ এর মাধ্যমে ফোন পাওয়ার পর ৬৮ মধ্যবিত্ত পরিবার ও ২৭ জন শিক্ষার্থীকে খাবার পৌঁছে দিয়েছি।

নাঙ্গলকোট পৌরসভা এলাকায় পাঁচ মেয়ে নিয়ে অসহায় জীবনযাপন করা এক অসহায় নারীর ঘর নির্মাণ করে দিয়েছি। করোনায় আক্রান্ত পরিবারগুলোর পাশে থাকার চেষ্টা করছি। অক্সিজেন, ফল, খাদ্য সামগ্রীসহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র তাদের বাড়িতে পৌঁছে দিচ্ছি। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে/এসআই