বিচার নিয়ে উদ্বিগ্ন মিন্নি

বিচার নিয়ে উদ্বিগ্ন মিন্নি

বরগুনা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:৩৬ ৭ মার্চ ২০২০  

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

বরগুনার আলোচিত শাহনেওয়াজ রিফাত হত্যায় সাক্ষী থেকে আসামি হওয়া স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি তার ন্যায়বিচার পাওয়া নিয়ে উদ্বিগ্ন।

সম্প্রতি রিফাত হত্যা মামলা বরগুনার দায়রা আদালত থেকে ঢাকার দায়রা আদালতে পরিবর্তনের জন্য আবেদন করেন মিন্নি। উচ্চ আদালত তার আবেদন খারিজ করেন। 

এর আগে রিফাত হত্যা মামলায় পুলিশের দেয়া চার্জশিট থেকে তার নাম প্রত্যাহারের জন্য উচ্চ আদালতে আবেদন করেন মিন্নি। তাও খারিজ করে দেন আদালত। 

জামিনে থাকা অবস্থায় মামলার সাক্ষীদের হুমকি দেয়ার অভিযোগ এনে মিন্নির জামিন বাতিলের আবেদন করেন রাষ্ট্রপক্ষ। যার শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে ১০ মার্চ।

আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকার কারণে সাংবাদিকদের সঙ্গে মিন্নি কথা বলেননি।

মিন্নির বিষয় তার বাবার কাছে জানতে চাইলে মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোর বলেন, মিন্নি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত। মিন্নিকে ফাঁসানোর জন্য সবাই উঠে পড়ে লেগেছে।

এ মামলা বরগুনার দায়রা আদালত থেকে ঢাকার দায়রা আদালতে নেয়ার জন্য উচ্চ আদালতে আবেদন করা হয়। মামলার তারিখ পড়লেই উচ্চ আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা শুনানির জন্য বারবার সময় চেয়ে কালক্ষেপণ করে। এতে মিন্নির পক্ষের আইনজীবী জেডআই খান পান্না ধৈর্য্যহারা হয়ে এবং শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকার কারণে বিরক্ত হয়ে ইচ্ছে করেই খারিজ করান। বিভিন্নভাবে মিন্নিকে হয়রানির জন্য মিন্নি মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। দিশেহারা হয়ে মিন্নি নামাজ পড়ে আল্লাহর কাছে তার সুষ্ঠু বিচার প্রার্থনা করছে। এ মামলা পরিচালনা করতে গিয়ে অর্থনৈতিকভাবে বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছেন মিন্নির বাবা।

বরগুনার চাঞ্চল্যকর রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় আদালত পরিবর্তন চেয়ে রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির করা আবেদন উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করে দেন আদালত। গত বৃহস্পতিবার বিচারপতি একেএম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি এসএম মুজিবুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত উচ্চ আদালতের বেঞ্চ এ আদেশ দেন। গত ৯ ফেব্রুয়ারি মিন্নির মামলাটি বরগুনার দায়রা আদালত থেকে ঢাকার দায়রা আদালতে পরিবর্তনের জন্য উচ্চ আদালতে আবেদন করা হয়।

গত ২১ জানুয়ারি রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় অভিযোগ গঠনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ ও মামলা থেকে তার নাম বাতিল চেয়ে করা রিফাতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির আবেদন উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করেছিলেন উচ্চ আদালত। 

গত ৮ জানুয়ারি বরগুনার দায়রা জজ আদালতের কাছে সাক্ষীদের বাড়িতে গিয়ে হুমকি দেয়ার অভিযোগ এনে মিন্নির জামিন বাতিলের আবেদন করেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী। এতে মিন্নির বিরুদ্ধে মামলার ৬ নম্বর সাক্ষী জুয়েল বাবু ও ৭ নম্বর সাক্ষী হারুন মুসল্লির বাড়িতে মোটরসাইকেলে লোকজন নিয়ে গিয়ে হুমকি দেয়ার অভিযোগ আনে রাষ্ট্রপক্ষ। যার শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে ১০ মার্চ।

চলতি বছরের ১ জানুয়ারি রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় মিন্নিসহ ১০ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ (চার্জ) গঠন করেন বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালত।

গত বছরের ২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাত শরীফকে তার স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির সামনে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে সন্ত্রাসীরা। এরপর বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনার পর ওই দিন বিকেলে মারা যান রিফাত শরীফ।

ঘটনার পরদিন ২৭ জুন নিহত রিফাতের বাবা আবদুল হালিম শরীফ বাদী হয়ে বরগুনা থানায় ১২ জনের নাম উল্লেখ করে এবং ৪ থেকে ৫ অজ্ঞাত রেখে একটি হত্যা মামলা করেন। 

গত ১ সেপ্টেম্বর আলোচিত এ মামলার তদন্ত কার্যক্রম শেষ করে এক নম্বর সাক্ষী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিসহ ২৪ জনকে আসামি করে আদালতে চার্জশিট (অভিযোগপত্র) জমা দেয় পুলিশ। চার্জশিটে মিন্নিকে হত্যার ষড়যন্ত্রে জড়িত থাকার অভিযোগ আনে পুলিশ। এ মামলায় আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে গ্রেফতার করা হলেও বর্তমানে তিনি জামিনে আছেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ