বিএসএমএমইউ-এ নিয়োগে দুর্নীতির প্রমাণ তুলে ধরলেন রাব্বানী

বিএসএমএমইউ-এ নিয়োগে দুর্নীতির প্রমাণ তুলে ধরলেন রাব্বানী

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:০০ ১১ জুন ২০১৯   আপডেট: ১৬:০৭ ১১ জুন ২০১৯

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) মেডিকেল অফিসার পদে নিয়োগ পরীক্ষার অনিয়ম-দুর্নীতির চিত্র প্রমাণসহ তুলে ধরছেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী।

সোমবার নিজ ফেসবুক পেজে এক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে এ সব চিত্র তুলে ধরেন।

গোলাম রাব্বানী লেখেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে প্রতিষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ে অতীতের সব ইতিহাস ভেঙে শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলনরত চিকিৎসকদের উপর ভিসি স্যারের প্রত্যক্ষ মদদে পুলিশ ও আনসার বাহিনীর বর্বরোচিত হামলা অত্যন্ত দুঃখজনক।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে এই হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক লেখেন, আজকের এই হামলায় প্রায় ১৫ জন নবীণ চিকিৎসক আহত হয়েছেন। নবীণ চিকিৎসকদের আন্দোলন ও হামলার খবর শুনে আমি ঘটনাস্থলে যাই। তাদের আন্দোলনের যৌক্তিকতার কারণগুলো শুনে আমারো মনে হচ্ছে, তাদের দাবি সঠিক। 

এই লেখায় বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০০ জন মেডিকেল অফিসার নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির বিষয়টি প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত বলে দাবি করেছেন।

একইসঙ্গে এই পরীক্ষার রেজাল্ট বাতিল করে পুনরায় পরীক্ষা গ্রহণ করা উচিত বলে পরামর্শও দিয়েছেন। এ সময় তিনি তার দাবির পক্ষে ৫টি যুক্তি তুলে ধরেন। 

১. ভিসি স্যারের ছেলে পরীক্ষার্থী কিন্তু তিনি এই নিয়োগ কমিটির সভাপতি, যা বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম পরিপন্থী।

২. কন্ট্রোলার স্যারের মেয়ের জামাই পরীক্ষার্থী হওয়া সত্ত্বেও তিনি পরীক্ষার নিয়ন্ত্রক। এছাড়াও নিয়োগ কমিটির অনেক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের আত্মীয় স্বজন লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন যা স্বজনপ্রীতির মোড়কে দুর্নীতির নজিরবিহীন বহিঃপ্রকাশ।

৩. ডেন্টালের পরীক্ষার্থীর এমবিবিএস এর প্রশ্নে পরীক্ষা প্রদান।

৪. বয়সসীমা ৩২ বছর হওয়া সত্ত্বেও ৩২ বছরের ঊর্ধ্বে অনেকেই পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন এবং ৩৮ বছর বয়সী একজন লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন।

৫. রোল নং-৭১৩০৩ তে পরীক্ষা দিয়েছেন একজন ছেলে কিন্তু একই রোলে একজন মেয়েকে মেধা তালিকায় উত্তীর্ণ করা হয়েছে।

স্ট্যাটাস প্রসঙ্গে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক গোলাম রব্বানীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে ডেইলি বাংলাদেশকে তিনি বলেন, একটা অন্যায় হয়েছে সে অন্যায়ের প্রতিবাদ করেছি। ছাত্রলীগের মত একটি সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক হয়ে অন্যায়ের প্রতিবাদ করা আমার দায়িত্ব। আমি আশা করব কর্তৃপক্ষ এই প্রতিবাদ গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করে এ সমস্যার দ্রুত সমাধান করবেন।

এদিকে আজ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) মেডিকেল অফিসার পদে নিয়োগ স্থগিত করার ঘোষণা দিয়েছেন উপাচার্য কনক কান্তি বড়ুয়া।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিএসআই/আরএইচ