Alexa কাঁদছেন সাদিয়া, কাঁদছে কোলের শিশুও

কাঁদছেন সাদিয়া, কাঁদছে কোলের শিশুও

ডেস্ক নিউজ ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:৩৩ ১৭ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ২০:১৫ ১৭ নভেম্বর ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

চট্টগ্রামের পাথরঘাটায় বিস্ফোরণে দেয়াল চাপা পড়ে মারা গেছেন সাদিয়ার স্বামী নুরুল ইসলাম। মাত্র তিন বছর আগে বিয়ে হয় তাদের। জান্নাত তাদের একমাত্র সন্তান।

লাশঘরের একটু দূরে সাদিয়ার বিলাপ করে বলছিলেন, অবুঝ মেয়েকে নিয়ে এখন কোথাও যাবো। এসময় দুই বছরের অবুঝ শিশু জান্নাতও মায়ের সঙ্গে কান্নায় ভেঙে পড়ে।

রোববার সকালে চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতাল গিয়ে দেখা যায়, জরুরি বিভাগের কাছেই লাশ ঘরে সারিবদ্ধভাবে রাখা হয়েছে সাতটি মরদেহ।

প্রিয়জনের নিথর মরদেহ দেখে লাশঘরের সামনে কান্নায় ভেঙে পড়ছেন অনেকে।

বিলাপ করতে করতে সাদিয়া বলেন, শাহ আমানত সেতুর কাছে একটি ভাড়া বাসায় থাকেন তারা। স্বামী রং মিস্ত্রির কাজ করেন। সকালে ঘর থেকে কাজে যাবার কথা বলে বের হয়েছিলেন। পরে শুনি দেয়াল চাপা পড়ে মারা গেছেন তিনি।

স্বজনদের খবর নিতে নগরীর বিভিন্ন এলাকা থেকে দলে দলে মানুষ ছুটে যাচ্ছে হাসপাতালে। তাদের আহাজারি দেখে চোখের পানি ধরে রাখতে পারছিলেন না সেখানে দায়িত্ব পালনরত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, সংবাদকর্মীসহ অনেকে।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার বিজয় বসাক বলেন,  পাথরঘাটা ব্রিক ফিল্ড রোডের কুঞ্জমনি ভবনের নিচতলার একটি বাসায় সকাল নয়টার দিকে অর্পিতা নামে এক নারী আগুন জ্বালানোর জন্য দিয়াশলাইয়ের কাঠি জ্বালানোর সঙ্গে সঙ্গে বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে। এ সময় ভবনটির দু’টি দেয়াল ধসে পড়ে। হতাহতদের বেশির ভাগই দেয়াল চাপা কিংবা ইটের আঘাতের শিকার।

তিনি বলেন, বিস্ফোরণের কারণ সম্পর্কে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন অনুসন্ধান করছেন। তবে, সম্ভবত ওই বাসায় গ্যাস লাইন থেকে গ্যাস বের হয়ে পড়েছিল কিংবা গ্যাসের চুলা খোলা থাকার কারণে পুরো বাসায় গ্যাস জমে গিয়েছিল- এমনটি হতে পারে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে