Alexa বরাদ্দের পুরোটাই আত্মসাৎ!

বরাদ্দের পুরোটাই আত্মসাৎ!

আবু তাহের, রামগঞ্জ ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:২৭ ১৪ অক্টোবর ২০১৯  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে রাব্বানীয় কামিল মাদরাসা ও সাউধেরখিল উচ্চ বিদ্যালয়ের ভবন সংস্কারের বরাদ্দ ১৯ লাখ ৪৩ হাজার ৮৩০ টাকা।

এ বছরের ১২ মার্চ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের ওই বরাদ্দের পুরো টাকাই আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. মোশারফ হোসেন ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে।

ভুয়া দরপত্র দেখিয়ে প্রকল্পের টাকা আত্মসাতের বিষয়টি জানাজানি হলে রাব্বানীয়া কামিল মাদরাসার ম্যানেজিং কমিটির সহ-সভাপতি আকবর আলী দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় এবং দুদকে লিখিত অভিযোগ করেন। ১৯ সেপ্টেম্বর রামগঞ্জের ইউএনও মুনতাসির জাহানকে এ বিষয়ে প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেন মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম।

জানা গেছে, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের আওতায় ২০১৮-১৯ অর্থবছরে রামগঞ্জ রাব্বানীয়া কামিল মাদরাসার আশ্রয় কেন্দ্র সংস্কারে ৯ লাখ ৬৩ হাজার ৬০৬ টাকা, সাউদেরখিল উচ্চ বিদ্যালয়ের আশ্রয় কেন্দ্র সংস্কারে ৯ লাখ ৮০ হাজার ২২৪ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়।  কিন্তু উপজেলার ভারপ্রাপ্ত প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার মোশাররফ হোসেন লক্ষ্মীপুরের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সুমাইয়া এন্টারপ্রাইজের নামে জুন মাসের মধ্যে কাজ শেষ দেখিয়ে ভুয়া দরপত্র ও বিল তৈরি করে বরাদ্দের পুরো টাকা আত্মসাৎ করেন।

রাব্বানীয়া কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ এএসএম মোস্তাক আহমেদ বলেন, পিআইও মোশাররফ হোসেন প্রথমে বরাদ্দ আত্মসাতের বিষয়টি স্বীকার না করলেও পরে স্বীকার করে তিন লাখ টাকা দিয়েছেন। বাকি টাকা কয়েক দফায় দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

অভিযুক্ত পিআইও মোশাররফ হোসেন বলেন, কাজ করতে তিন লাখ টাকা দিয়েছি। কাজ শেষে বাকি টাকা পরিশোধ করা হবে।

রামগঞ্জের ইউএনও মুনতাসির জাহান জানান, সময় কম থাকায় দুটি আশ্রয়ণ প্রকল্পের সংস্কারের টাকা ফেরত যাওয়ার কারণে টাকা তুলে রাখা হয়েছে। প্রতিষ্ঠান প্রধানদের মাধ্যমে কাজ শেষ করে টাকা দেয়া হবে। এখন আর বরাদ্দ আত্মসাতের সুযোগ নেই।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর