বন্যা দুর্গতদের পাশেও নেই কুড়িগ্রাম বিএনপি

বন্যা দুর্গতদের পাশেও নেই কুড়িগ্রাম বিএনপি

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১২:৪৮ ৪ আগস্ট ২০২০   আপডেট: ১৩:৫৮ ৪ আগস্ট ২০২০

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

করোনার মাঝেই কুড়িগ্রামে চেপে বসেছে বন্যা। উজানের ঢল আর প্রবল বৃষ্টির কারণে ডুবে গেছে হাজারো বসতবাড়ি। বিপাকে পড়েছেন বয়স্ক নারী-পুরুষ। বাদ যায়নি কোমলমতি শিশুরাও। ঠিক এই মুহূর্তে স্থানীয় প্রশাসনসহ আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা সাধ্যানুযায়ী এসব দুর্গত মানুষদের পাশে দাঁড়ালেও খোঁজ নেই জেলা বিএনপির।

জানা গেছে, জেলার রাজিবপুর উপজেলার বন্যা পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতি হয়েছে। তবে ধীর গতিতে পানি কমায় উপজেলার তিনটি ইউপির ১০০ গ্রামের ৭০ হাজার মানুষ এখনো পানিবন্দি। বন্যায় সব বীজতলা, শাকসবজির বাগান, মাছের পুকুর ও কাঁচা সড়ক বিধ্বস্ত হয়েছে। 

বালিয়ামারী আদর্শ গ্রামের কয়েকজন বাসিন্দা জানান, ২শ’ ৫০ প্যাকেট শুকনা খাবার বরাদ্দ পাওয়া গেছে, যা প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন বন্যার্তদের মাঝে বিতরণ করেছেন। এছাড়াও আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা শুকনো খাবারসহ চাল-ডাল দিয়ে গেছেন। এর পাশাপাশি যদি বিএনপির নেতা-কর্মীরা আমাদের পাশে দাঁড়াতো তাহলে দুর্ভোগ কিছুটা হলেও লাঘব হতো। কিন্তু বিএনপি সেই অবস্থানে নেই। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রাজিবপুর বিএনপির একাধিক কর্মী জানান, শুধুই যে কুড়িগ্রামের সাধারণ মানুষ ভোগান্তিতে পড়েছে তা নয়, এর মাঝে আছেন বিএনপির সমর্থক আর কর্মীরাও। কিন্তু দলীয়ভাবে এসব কর্মীদেরও পাশে দাঁড়ায়নি বিএনপি। আমরা যেমন দুঃসময়ে আন্দোলন-সংগ্রাম, মিটিং-মিছিলে দলের পাশে দাঁড়াই, ঠিক তেমনই দলেরও উচিৎ আমাদের পাশে দাঁড়ানো। 

এ ব্যাপারে কুড়িগ্রাম জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সোহেল হোসনাইন কায়কোবাদ ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে সবকিছুই থমকে আছে। এখন বন্যা পরিস্থিতি সামলাতে হচ্ছে। সাধ্যমতো এসব মানুষের পাশে দাঁড়াতে চেষ্টা করছি। তবে খুব একটা সম্ভব হচ্ছে না।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডআর/এইচএন