বগুড়ায় ঘরের বারান্দায় মাটি খুঁড়ে অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে হত্যাচেষ্টা

বগুড়ায় ঘরের বারান্দায় মাটি খুঁড়ে অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে হত্যাচেষ্টা

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ০৩:১৩ ১৩ আগস্ট ২০২০   আপডেট: ০৩:১৩ ১৩ আগস্ট ২০২০

আদমদীঘি থানা, বগুড়া

আদমদীঘি থানা, বগুড়া

বগুড়ার আদমদীঘিতে ৯ মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে হাত-পা ও মুখ বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের পর ঘরের বারান্দায় মাটি খুঁড়ে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে স্বামীর বিরুদ্ধে। প্রতিবেশিরা ভুক্তভোগীকে উদ্ধার ও তার স্বামীকে আটক করে পুলিশে সোর্পদ করেছে।

বুধবার বিকেলে ওই উপজেলার নামাপাইকপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী ফাল্গুনী গ্রামের মো. নাইমের স্ত্রী ও নওগাঁর এনায়েতপুরের শহিদুল ইসলামের মেয়ে।

ফাল্গুনী জানান, তাকে পছন্দ করেন না স্বামী নাইম ও শাশুড়ি রেহানা। বিয়ের পর থেকেই তার ওপর চলতো শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন। এরইমধ্যে পৃথিবীতে আসে ফাল্গুনীর প্রথম সন্তান। এরপরও নির্যাতন থেমে নেই। বর্তমানে তিনি ৯ মাসের অন্তঃসত্ত্বা।

তিনি আরো জানান, বুধবার বিকেলে চাচি শাশুড়ির বাড়িতে যাওয়া নিয়ে স্বামী-শাশুড়ির সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হয় ফাল্গুনীর। এক পর্যায়ে নাইম তাকে ঘরে আটকে রেখে হাত-পা ও মুখ বেঁধে মারধর করেন। এরপর বারান্দায় মাটি খুঁড়ে হত্যাচেষ্টা করেন। ওই সময় ফাল্গুনী কৌশলে হাত ও মুখের বাঁধন খুলে চিৎকার দেন। তার চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে ঘরের জানালা ভেঙে তাকে উদ্ধার ও স্বামী নাইমকে আটক করে।

ফাল্গুনীর বাবা শহিদুল ইসলাম জানান, বিয়ের পর থেকেই স্বামীর হাতে নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন তার মেয়ে। এসব বিষয়ে একাধিকবার সালিসও হয়েছে। কিন্তু নাইম নিজেকে শোধরাননি।

আদমদীঘি থানার ওসি জালাল উদ্দীন জানান, বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর