Alexa ফোকফেস্টে আজকের আকর্ষণ

ফোকফেস্টে আজকের আকর্ষণ

বিনোদন প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১২:২০ ১৬ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১২:২৩ ১৬ নভেম্বর ২০১৯

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

হেমন্তের বাতাসে সুরের কাঁপন তুলে বাংলাদেশ আর্মি স্টেডিয়ামে জমে উঠেছে ‘ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ফোকফেস্ট ২০১৯’। গত দু’দিন সেখানে লোকসংগীতের মধুর মায়ায় মেতেছিল হাজারো দর্শক। পঞ্চমবারের মতো সান ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বড় এ লোকসংগীতের উৎসবের তৃতীয় দিন শনিবার। আজও সুরের অমীয় সুধায় বুঁদ হবেন আগত শ্রোতারা।

এদিন শোনা যাবে দেশের শিল্পী মালেক কাওয়াল, চন্দনা মজুমদার, জুনুন (পাকিস্তান) ও সাত্তুমা (রাশিয়া) এর গান। শিল্পীদেরে সংক্ষিপ্ত পরিচয় তুলে ধরা হলো-

মালেক কাওয়াল

মালেক কাওয়াল বাংলা লোকসংগীতের এক অনন্য নাম। চার দশকের বেশি সময় ধরে কাওয়ালী গান গেয়ে আসছেন তিনি। মালেক কাওয়ালের গানে হাতেখড়ি গুরু মহীন কাওয়ালের কাছে। পরবর্তীতে তিনি ওস্তাদ মরহুম টুনু কাওয়ালের কাছে তালিম নিয়েছেন। এছাড়া তিনি মাইজভান্ডারি গানেও পারদর্শী।

চন্দনা মজুমদার

চন্দনা মজুমদার মূলত লালন সংগীতশিল্পী। কুষ্টিয়ার গড়াই নদীর পাড়ে জন্ম এই গুণী শিল্পীর। বাবা নির্মলচন্দ্র মজুমদার লালনগীতির শিল্পী হলেও তিনি চেয়েছিলেন নজরুলগীতি করুক চন্দনা। কিন্তু কুষ্টিয়া এলাকা এবং পারিবারিক পরিবেশ তাকে নিয়ে আসে লালনের সুরে। লালনের বাইরে রাধারমণ, হাসন রাজা, শাহ্ আবদুল করিমসহ বিভিন্ন গীতিকবির গান করেন তিনি। ২০০৯ সালে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন চন্দনা মজুমদার।

জুনুন (পাকিস্তান)

উপমহাদেশের সংগীতপ্রেমীদের কাছে ‘জুনুন’ এক উন্মাদনার নাম। পাকিস্তানি এই ব্যান্ডটি সুফি ঘরানার গান দিয়ে দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে শ্রোতাদের মোহাবিষ্ট করে রেখেছে। ১৯৯৭ সালে নিজেদের চতুর্থ অ্যালবাম ‘আজাদি’ দিয়ে সারা উপমহাদেশে ঝড় তোলে জুনুন। অ্যালবামের প্রথম গান ‘সাইওনি’ পাকিস্তান, ভারত এবং বাংলাদেশ- তিন দেশের শ্রোতাদের কাছেই তুমূল জনপ্রিয়তা পায়। সারা বিশ্বে ‘জুনুন’র ত্রিশ মিলিয়নেরও বেশি অ্যালবাম বিক্রি হয়েছে।

সাত্তুমা (রাশিয়া)

সাত্তুমা রাশিয়ান কারেলিয়া অঞ্চলের সবচেয়ে জনপ্রিয় ব্যান্ডগুলোর মধ্যে একটি। পারিবারিক এই ব্যান্ডটির যাত্রা শুরু ২০০৩ সালে। নিও ফোক ঘরানার গান নিয়ে সাত্তুমা ট্যুর করেছে ইউরোপের নানা প্রান্তে। মঞ্চে নানা ধরনের ইন্সট্রুমেন্ট বাজিয়ে এক অদ্ভুত মূর্ছনায় দর্শককে আবিষ্ট করে রাখেন সাত্তুমার সদস্যরা। রাশিয়া, আমেরিকা, ফিনল্যান্ড, স্ক্যান্ডিনেভিয়া, এস্তোনিয়া এবং জার্মানির বিভিন্ন অঞ্চলে নিজেদের গান দিয়ে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন তারা।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে/টিআরএইচ