Alexa ফুলটার বিনিময়ে দেশের জন্য ছক্কা মাইরেন: সাকিবকে পথশিশু

সেই পথশিশুটিই সাকিবের অনুপ্রেরণা

ফুলটার বিনিময়ে দেশের জন্য ছক্কা মাইরেন: সাকিবকে পথশিশু

ফিচার ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:০২ ১১ জুন ২০১৯   আপডেট: ১৫:২৭ ১১ জুন ২০১৯

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার তিনি৷ তবে এবারের বিশ্বকাপে ব্যাটসম্যান হিসেবেও নিজেকে অন্য উচ্চতায় সাকিব আল হাসান৷ তিন ম্যাচ শেষে কোহলি, স্মিথ, বাটলার, উইলিয়ামসনদের পেছনে ফেলে তিনিই সবার ওপরে৷ তবুও তাকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কম ‌‘গাল-মন্দ’ হয় না। অনেকেই বলেন, ‘সাকিব তো নিজের জন্য খেলেন’। এটা ভুল, সাকিব খেলেন দেশের জন্য। বাংলাদেশ ঠিক এই মুহূর্তে টের পাচ্ছে, আমাদের আরো ক’জন সাকিব আল হাসান দরকার। তিনি যে অনন্য।

সাকিব শুধুই যে খেলায় অনন্য তা কিন্তু নয়। তিনি মাঠের বাইরেও অনেক ক্ষেত্রে নানা অবদান রেখেছেন। তার অনুপ্রেরণার উৎস কী জানেন? কয়েক বছর আগে এক টিভি উপস্থাপক সাকিবকে প্রশ্ন করেন, ‘সব খেলোয়াড়েরই ভালো খেলার নেপথ্যে একটা মোটিভেশন থাকে। আপনার অনুপ্রেরণার উৎস কী?’ জবাবে সাকিব একটা গল্প শোনান-

সাকিব’স এ পথশিশুরা

‘আমি একবার ঢাকার জ্যামে বসে ঘামছি। এমন সময় এক পথশিশু আমার গাড়ির কাছে এসে বললো- স্যার, একটা ফুল নিবেন? আমি তার সঙ্গে থাকা সবগুলো ফুল নিয়ে নিলাম। তারপর দাম দিতে যাবো, ঠিক ওই সময় ছেলেটি আমাকে দেখে চিনে ফেললো! খানিকটা চুপ থেকে বললো- আপনে ছক্কা সাকিব না? আমি হাসতে হাসতে বললাম- হ্যাঁ! তখন ছেলেটা দাম নিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে বললো- দাম লাগবো না, স্যার! আপনে প্রত্যেক ম্যাচে কমসে কম একটা করে ছক্কা মাইরেন, তাইলেই হইবো!’

সাকিব বলেন, এই ঘটনাটা যখনই মনে করি তখনই আমার চোখে পানি চলে আসে। মাঠে খেলার শুরুতে আমি এই ঘটনাটা মনে করার চেষ্টা করি। আমাকে একটা ফুলের দাম শোধ করতে হবে, আমাকে একটা হলেও ছক্কা মারতে হবে!

অথচ এই সাকিবের বিয়ের দাওয়াতের ভুল ছবি ভাইরাল হয়েছিল। কিন্তু একই টেবিলে কাজের মেয়ের সঙ্গে এই টপ অলরাউন্ডারের দাওয়াত খাওয়ার ছবি কেউ চোখেও দেখেনি! এমন আরো অনেক অনুপ্রেরণার গল্পটি আড়ালে রয়ে গেছে। বরং কোনো ‘ভুল ছবি’ অনলাইন মাতাবে আবারো।সাকিবের রেস্টুরেন্টে পথশিশুরা

সাকিব রেস্টুরেন্ট ব্যবসা করেন, তা নিয়েও অনেকের ‘মাথাব্যথা’! কিন্তু অনেকেই জানেন না, সে রেষ্টুরেন্টে মাঝেমধ্যেই পথশিশুদের খাওয়ানো হয় ‘উচ্চবিত্তদের’ খাবার। সাকিবের আমন্ত্রণে পথশিশুরা তার পাঠানো গাড়িতে করে আসেন। যে শিশুরা প্রাইভেট গাড়ির ভেতর উঁকি দিয়ে ভিক্ষা করে, তাদেরকেই সাকিব সুযোগ করে দেন ভেতরে বসার। রেষ্টুরেন্টে গিয়ে যে যার মতো খাচ্ছে প্রিয় খাবার। এটাও কি বাহবা পাওয়ার মতো ঘটনা না? যদিও আমরা জানিই না এই খবর!

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে