ফরিদপুরে মা ও ছেলেসহ আরো ৫ জন আক্রান্ত  

ফরিদপুরে মা ও ছেলেসহ আরো ৫ জন আক্রান্ত  

ফরিদপুর প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২০:৩৭ ২৩ মে ২০২০   আপডেট: ২০:৩৯ ২৩ মে ২০২০

ফরিদপুর মা ও ছেলেসহ আরো ৫ জন আক্রান্ত  

ফরিদপুর মা ও ছেলেসহ আরো ৫ জন আক্রান্ত  

ফরিদপুরে গত ২৪ ঘন্টায় মা ও ছেলেসহ আরো ৫ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় করোনা রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ১২৩ জন।

শনিবার দুপুরে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজের করোনা ল্যাব থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

ফরিদপুরে নতুন করে যে ৫ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে তাদের মধ্যে ৪ জন পুরুষ এবং ১ নারী। এদের মধ্যে ভাঙ্গায় ৪ জন ও ফরিদপুর সদরে ১ জন।

ভাঙ্গা পৌরসভার বাসিন্দা এক মাছ ব্যবসায়ীর স্ত্রী ও ছেলে আক্রান্ত হয়েছেন। তারা যে মহল্লায় থাকেন সেখানে এর আগে এক দম্পতি আক্রান্ত হয়েছিলেন। ওই মহল্লায় মোট ৪০ জন সদস্য বসবাস করেন। গতকাল ভাঙ্গায় যে চারজনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে তারা সবাই ওখানকার বাসিন্দা।  

মহল্লার বাসিন্দা জগদীশ মালো বলেন, ২০ মে মহল্লায় এক দম্পতির করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। ওই দিন উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে ওই মহল্লার ৪০ জনের নমুনা সংগ্রহের কথা বলা হয়। কিন্তু মাত্র ১৫ জনের নমানা সংগ্রহ করা হয়। তিনি বলেন, সবার নমুনা সংগ্রহ করা হলে শনাক্তের বিষয়ে একটি পরিস্কার ধারনা পাওয়া যেতো।

এ অভিযোগ সম্পর্কে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোহসীন উদ্দীন ফকির বলেন,  সরঞ্জামের ঘাটতি থাকায় ৪০ জনের নমানা সংগ্রহ করা সম্ভব হয়নি। পরে সবার নমুনা সংগ্রহ করা হবে।

শনিবার ফরিদপুর সদরে যে ব্যাক্তির করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে তিনি ফরিদপুর শহরের বাসিন্দা, তিনি একজন ব্যবসায়ী।

ফরিদপুরের করোনা শনাক্তকরণ ল্যাব সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার ফরিদপুর ও গোপালগঞ্জের মোট ৯০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ফরিদপুরের ৪৬ এবং গোপালগঞ্জের ৪৪টি। মোট পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে ১১ জন।  

ফরিদপুরে মোট শনাক্ত ১২৩ জনের মধ্যে বোয়ালমারীতে ৩১ জন, ফরিদপুর সদরে ২৮ জন, নগরকান্দায় ২১ জন, আলফাডাঙ্গায় ১৭, ভাঙ্গায় ১৩, চরভদ্রাসনে ৫, সদরপুরে ৪, মধুখালীতে ৩ এবং সালথায় ১ জন।

ফরিদপুরের এসপি মো. আলিমুজ্জামান বলেন, ফরিদপুর শহর ও ভাঙ্গা উপজেলায় গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে যে ৫ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে তাদের প্রত্যেকের বাড়ি বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। আক্রান্তদের শারীরিক অবস্থা যাচাই করা হচ্ছে। শানাক্তদের বাড়িতে রেখে কিংবা শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে ফরিদপুরের করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে স্থনান্তর করে দেখভাল করা হবে।   

ডেইলি বাংলাদেশ/এমএইচ