প্রেসক্লাবে গিয়ে পুত্রবধূর খুনিদের নাম বলে দিলেন শ্বশুর!

প্রেসক্লাবে গিয়ে পুত্রবধূর খুনিদের নাম বলে দিলেন শ্বশুর!

নড়াইল প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৯:৫৬ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

ছবি: প্রতীকী

ছবি: প্রতীকী

পুত্রবধূকে শ্বাসরোধে হত্যার কথা স্বীকার করলেন শ্বশুর। সহযোগিতায় ছিলেন সন্তান। রোববার নড়াইল প্রেসক্লাবে এসে এ কথা জানালেন নিহত গৃহবধূর শ্বশুর। এ ঘটনায় নিহত গৃহবধূ আশা খাতুনের স্বামী রফিকুল ইসলামকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

নড়াইল পৌরসভার দূর্গাপুর এলাকায় এ হত্যার ঘটনা ঘটে। 

জানা গেছে, এক বছর আগে নড়াইল পৌরসভার দূর্গাপুর এলাকার আব্দুল গাফফারের ছেলে রফিকুলের সঙ্গে বিয়ে হয় সদরের মাইজপাড়া ইউনিয়নের হোসেনপুর গ্রামের নুর ইসলামের মেয়ে আশা খাতুনের। বিয়ের পর থেকেই মাদকাসক্ত রফিকুল স্ত্রী আশাকে শারীরিকভাবে ও মানসিকভাবে নির্যাতন করতো এবং বিভিন্ন সময় রফিকুল ও তার মা টাকার জন্য ছেলের শ্বশুর বাড়িতে চাপ দিত। টাকা না দিলে চলতো নির্যাতন।

এরই জেরে শুক্রবার ভোরে রফিকুল ও তার মা হনুফা আশাকে শারীরিকভাবে অত্যাচারের পর স্বাধরোধে হত্যা করে। পরে বিষয়টি ভিন্ন দিকে প্রবাহিত করার জন্য ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা বলে চালানোর চেষ্টা চলছে। এ ঘটনায় নিহতের বাবা নুর ইসলাম বাদী হয়ে শনিবার সদর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

নিহতের শ্বশুর গাফফার মোল্যা রোববার দুপুরে নড়াইল প্রেসক্লাবে এসে সাংবাদিকদের বলেন, আমার নেশাগ্রস্ত ছেলে রফিকুল ও তার মা হনুফা পুত্রবধূ আশাকে তার বাবার বাড়ি থেকে টাকা আনতে বলতো। না আনলে প্রায় শারীরিকভাবে নির্যাতন করতো। আমি প্রতিবাদ করলে আমাকেও মারতো। ঘটনার দিন ছেলে রফিকুল বৌমাকে মারধর করে। এতে বৌমা (পুত্রবধূ) নিস্তেজ হয়ে গেলে তার গলায় ওড়না পেঁচিয়ে তাকে মেরে ফেলে। তিনি ছেলে ও স্ত্রীর বিচার দাবি করেন।

নড়াইল সদর থানার ওসি ইলিয়াস হোসেন জানান, এ ঘটনায় সদর থানায় রফিকুল ও তার মায়ের বিরুদ্ধে আত্মহত্যার প্ররোচনা মামলা হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এলে এটা হত্যা না আত্মহত্যা তা বোঝা যাবে। রফিকুলকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপর আসামিকে ধরার চেষ্টা করা হচ্ছে।  

ডেইলি বাংলাদেশ/এমএইচ