প্রসূতির সিজারের ছবি তুলে ফেসবুকে দিলেন হাসপাতালের মালিক 

প্রসূতির সিজারের ছবি তুলে ফেসবুকে দিলেন হাসপাতালের মালিক 

রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৯:৩৫ ২৭ মে ২০২০   আপডেট: ১৯:৪৩ ২৭ মে ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে মাতৃছায়া হাসপাতালের মালিক এক প্রসূতির সিজারের আপত্তিকর ছবি তুলে ফেসবুক পোস্ট দেয়ায় অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। 

হাসপাতালের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক তার ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডিতে ওই ছবিটি পোস্ট করেন। এরপর থেকে গত দুই দিন ধরে ফেসবুকে এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠে। 

অপরেশন থিয়েটারে প্রবেশ করে ডাক্তার ও নার্সের সামনে হাসপাতালের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুর রহমান তুহিন ওই ছবি তোলেন বলে জানা যায়। অথচ তিনি চিকিৎসক নন। ফেসবুকে বিভিন্ন ব্যক্তি এ ঘটনায় দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন। 

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জাকির হোসেন বলেন, ঘটনাটি অত্যন্ত দুঃখজনক। আইনগতভাবে এটি অপরাধ। কর্তৃপক্ষ তো দূরের কথা, অপারেশন থিয়েটারে ডাক্তার ও নার্স ছাড়া স্বজনরাও থাকতে পারে না। তাছাড়া কোনো প্রসূতির অনুমতি ছাড়া ছবি তোলারও নিয়ম নেই। সেটি ফেসবুকে দেয়া চরম অন্যায়। 

গত ২৪ মে রায়পুর মাতৃছায়া হাসপাতালে এক প্রসূতি প্রসব বেদনা নিয়ে ভর্তি হয়। রাতে ডাক্তার ও নার্স ওই প্রসূতির সিজার অপারেশন শুরু করেন। এ সময় হাসপাতালের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক অপারেশন থিয়েটারে ঢুকে পড়েন। পরে অস্ত্রোপচারের সময় তিনি ওই প্রসূতির কয়েকটি ছবি তুলে ফেলেন। পরে ওই ছবিগুলো তুহিন তার ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডিতে পোস্ট করে। ওই ছবিগুলোর মধ্যে একটি ছবি আপত্তিকর বলে স্থানীয়রা মন্তব্য করেন। 

কয়েকজন জনপ্রতিনিধি জানান, তুহিনের বিরুদ্ধে এর আগেও অনেক প্রসূতির নারীর অপারেশন থিয়েটারের ছবি ও ভিডিও করার অভিযোগ রয়েছে। পরে এ ছবি দিয়ে নারীদের বিভিন্নভাবে হয়রানী করা হয়। 

প্রসূতির সিজারের ছবি তোলার ঘটনায় প্রশাসনকে দৃষ্টি আকর্ষণ করে আবিদ হাসান নামে একজন তার ফেসবুক আইডিতে লেখেন, কোনো প্রসূতি নারীর অপারেশন চলাকালীন সময় কর্তৃপক্ষ উপস্থিতি থাকতে পারেন না। এটা পেশাদারসুলভ ও নিয়মনীতির পরিপন্থী। ছবি তুলে নিজের ফেসবুক আইডিতে পোস্ট করা নজিরবিহীন ঘটনা। 

মাতৃছায়া হাসপাতালের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুর রহমান তুহিন বলেন, মহামারি করোনার সময় মানুষকে উৎসাহিত করার জন্য এই ছবি তুলে পোস্ট করা হয়েছে। প্রসূতির মুখের ছবিটি কিভাবে চলে আসে তা আমার জানা নেই। তবে কয়েকজন এই ছবি নিয়ে সমালোচনা করে আমার বিরুদ্ধে পোস্ট দিয়েছে বিষয়টি দেখেছি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে