Alexa প্রশাসনের দেয়া ঘরে ঠাঁই পেল মাওয়া

প্রশাসনের দেয়া ঘরে ঠাঁই পেল মাওয়া

তবিবর রহমান, যশোর ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১২:১৫ ১৮ নভেম্বর ২০১৯  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

বাবার সঙ্গে অটোরিকশায় চড়ে দিন কাটতো ছয় বছরের জান্নাতুল মাওয়ার। নিজেদের বসতঘর না থাকায় দিনে অটোতে ঘুরে আর রাতে চার্জ দেয়ার গোডাউনে ওই অটোতে ঘুমিয়েই দিন পার করতো এই বাবা-মেয়ে।

সম্প্রতি তাদের দুর্বিষহ জীবনের চিত্র বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হলে সেটি ফেসবুকে ভাইরাল হয়। আর বিষয়টি যশোরের সাবেক ডিসি আব্দুল আওয়ালের নজরে আসলে বাবা মেয়েকে ডেকে নেন তিনি। 

আর তখন সাবেক ডিসির কাছে মুন্না জানান, তার স্ত্রী তাদের ছেড়ে চলে গেছে। মেয়েটি বড় হচ্ছে, তাকে স্কুলে ভর্তি করতে হবে। এ জন্য তার একটি মাথা গোঁজার ঠাঁই দরকার। এসব শোনার পর ডিসি মুন্নাকে এই ব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়ার আশ্বাস দেন। মেয়েটি যাতে তার স্বাভাবিক শৈশব ফিরে পায় সেটি নিশ্চিত করার ব্যাপারেও আশ্বস্ত করেন। বদলি হয়ে যশোর ছেড়ে যাওয়ার আগে জমি বন্দোবস্ত ও আশ্রয়ণ প্রকল্প থেকে বসতঘর পাওয়ার সব ব্যবস্থা করে রেখে যান সাবেক ডিসি।

জানা যায়, যশোরের আরবপুর ইউপির মণ্ডলগাতী গ্রামে জান্নাতুল মাওয়ার বাবা মুরাদুর রহমান মুন্নার নামে বরাদ্দ পাঁচ শতক জমির উপর ওই ঘর নির্মিত হয়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের অর্থায়নে এক লাখ টাকা ব্যয়ে টিনশেডের ওই ঘরটি নির্মাণ করা হয়েছে। এখন থেকে বাবার সঙ্গে নিজ বাড়িতেই থাকার বন্দোবস্ত হয়েছে মাওয়ার। 

রোববার যশোরের ডিসি মোহাম্মদ শফিউল আরিফ মাওয়ার বাবা মুরাদুর রহমান মুন্নার হাতে ওই বসতঘরের চাবি তুলে দেন। এছাড়াও জান্নাতুল মাওয়ার প্রতি সুদৃষ্টি দিতে স্থানীয়দের অনুরোধও করেন তিনি। পাশাপাশি তার খোঁজখবর রাখতে সবার প্রতি আহবান জানান। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, ইউএনও মুহাম্মদ ইব্রাহীম, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ফিরোজ আহমেদসহ প্রমুখ।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএস