‘প্রতারক’ সাবরিনা-আরিফুল-সাহেদের ব্যাংক হিসাব জব্দ

‘প্রতারক’ সাবরিনা-আরিফুল-সাহেদের ব্যাংক হিসাব জব্দ

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১১:২৮ ১৩ জুলাই ২০২০   আপডেট: ১১:৩১ ১৩ জুলাই ২০২০

সাবরিনা, আরিফুল ও সাহেদ। ফাইল ছবি

সাবরিনা, আরিফুল ও সাহেদ। ফাইল ছবি

করোনাভাইরাস পরীক্ষা নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে রিজেন্ট হাসপাতালের স্বত্বাধিকারী মো. সাহেদ এবং জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা চৌধুরীর ব্যাংক হিসাব জব্দ করেছে এনবিআর।

এছাড়া ডা. সাবরিনার স্বামী ও জেকেজি হেলথকেয়ারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুল হক চৌধুরী এবং রিজেন্ট হাসপাতালের পরিচালক ইব্রাহিম খলিলের ব্যাংক হিসাবও জব্দ করা হয়েছে।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সিআইসি ব্যাংক হিসাব জব্দ করে তাদের নামে থাকা হিসাবের যাবতীয় তথ্য ৭ দিনের মধ্যে জানানোর জন্য সব তফসিলি ব্যাংককে চিঠি দেয়া হয়েছে। রোববার বিকেলে এনবিআরের সিআইসি থেকে এ চিঠি দেয়া হয়েছে।

করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা না করেই ভুয়া রিপোর্ট দেয়ার অভিযোগে জেকেজি (জোবেদা খাতুন হেলথ কেয়ার)-এর নির্বাহী কর্মকর্তা ও চেয়ারম্যানকে আটক করেছে পুলিশ। আর করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট দেয়া, করোনা চিকিৎসার নামে রোগীদের সঙ্গে প্রতারণার দায়ে অভিযুক্ত রিজেন্ট হাসপাতাল সিলগালা করে দেয়া হয়েছে। এ প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান সাহেদকে খুঁজছে পুলিশ।

জেকেজির বিরুদ্ধে অভিযোগ, সরকারের কাছ থেকে বিনামূল্যে নমুনা সংগ্রহের অনুমতি নিয়ে বুকিং বিডি ও হেলথকেয়ার নামে দুটি সাইটের মাধ্যমে টাকা নিচ্ছিল এবং নমুনা পরীক্ষা ছাড়াই ভুয়া সনদ দিতো প্রতিষ্ঠানটি।

এ বিষয়ে রাজধানীর কল্যাণপুরের একটি বাড়ির কেয়ারটেকারের অভিযোগের সত্যতা পেয়ে ২২ জুন জেকেজি হেলথ কেয়ারের সাবেক গ্রাফিক্স ডিজাইনার হুমায়ুন কবীর হিরু ও তার স্ত্রী তানজীন পাটোয়ারীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তাদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে পরে প্রতিষ্ঠানটির সিইও আরিফ চৌধুরীকে গ্রেফতার করা হয়। এই ঘটনার পর ২৪ জুন জেকেজি হেলথ কেয়ারের নমুনা সংগ্রহের যে অনুমোদন ছিল তা বাতিল করে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

জেকেজির মাঠকর্মীরা ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, নরসিংদীসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে করোনা উপসর্গ দেখা দেয়া মানুষের নমুনা সংগ্রহ করতেন। প্রতি রিপোর্টে ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা নেয়া হতো। আর বিদেশিদের কাছ থেকে নেন ১০০ ডলার। সেই হিসাবে করোনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্টে প্রায় ৮ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে জেকেজি।

২৪ জুন জেকেজির গুলশান কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে প্রতারক আরিফসহ ছয়জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তাদের দুদিনের রিমান্ডে নেয়া হয়। দুজন আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। জেকেজির কার্যালয় থেকে ল্যাপটপসহ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ নথি জব্দ করে পুলিশ। এ ঘটনায় তেজগাঁও থানায় চারটি মামলা হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডআর