103389 পৃথিবীর সবচেয়ে কমবয়সী হ্যাকাররা (পর্ব ১)
Best Electronics

পৃথিবীর সবচেয়ে কমবয়সী হ্যাকাররা (পর্ব ১)

সৌমিক অনয়  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১১:৩০ ৯ মে ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

আধুনিক বিশ্বের প্রায় পুরোটাই কম্পিউটার নির্ভর। প্রযুক্তি নির্ভর পৃথিবীর যেমন উপকারিতা অনেক তেমনি কিছু অপকারিতাও রয়েছে। উপকারিতাগুলোর মধ্যে অন্যতম হল তথ্য ও গুরুত্বপূর্ণ ডাটা চুরি হওয়া। এই তথ্য চুরিকেই হ্যাকিং বলা হয়। আর যারা এই কাজ করে থাকে তারাই হ্যাকার। আমরা সবাই হ্যাকিং এবং হ্যাকার সম্পর্কে কমবেশি জানি। আমরা প্রায়শই টিভি নিউজ পেপারে বড় হ্যাকিং এর সংবাদ পড়ে বা দেখে থাকি। হ্যাকিং এর জন্য কম্পিউটার এবং প্রোগ্রামিং এর অগাধ জ্ঞান থাকা দরকার। কিন্তু কিছু কিছু ক্ষেত্রে ব্যাতিক্রম ও হতে পারে। পৃথিবীতে এমন অনেক হ্যাকার রয়েছে যারা কম্পিটার এবং প্রোগ্রামিং এর জ্ঞান ছাড়াই হ্যাক করেছে বড় বড় সব কম্পানির ওয়েবসাইট। আবার তাদের বয়স শুনলে অবাক না হয়ে পারবেননা। তাহলে জেনে নেয়া যাক পৃথিবীর সবথেকে কমবয়সী কিছু হ্যাকার সম্পর্কে।

ক্রিস্টোফার ভ্যান হোসেল

ক্রিস্টোফার ভ্যান হোসেলকে পৃথিবীর সবথেকে কমবয়সী হ্যাকার হিসেবে গণ্য করা হয়।  মাত্র ৫ বছর বয়সী এই শিশু হ্যাক করে মাইক্রোসফট এর বিখ্যাত গেমিং কনসোল এক্সবক্স এর একাউন্ট হ্যাক করে। হোসেলের পিতা রবার্ট ডেভিস একজন সাইবার সিকিউরিটি স্পেশালিষ্ট। হোসেল এবং তার পিতা ডেভিস দু’জনই গেইম খেলতে পছন্দ করতেন। কিন্তু সহিংস চিত্র থাকায় ডেভিস তার এক্সবক্স কনসোলে প্যারেন্টাল কনট্রোল সেট করে রাখে। যে কারণে হেসেল চাইলেও সব গেম খেলতে পারতনা। তাই একদিন তার পিতা না থাকা অবস্থায় হোসেল বিভিন্ন ভুল পাসওয়ার্ড এর মাধ্যমে তার পিতার একাউন্টে এক্সেস করার চেস্টা করে। অনেক চেস্টার পর হোসেল মাইক্রোসফট একাউন্টে এক্সেস করার একটি গ্লিস খুঁজে পায় এবং সেখানে ভুল পাসওয়ার্ড ও ইউজার নেম এর স্থানে স্পেস ইউজ করে খুব সহজেই তার পিতার একাউন্ট হ্যাক করে ফেলে এবং রেসট্রিকটেড গেম খেলতে শুরু করে। 

কিছুদিন পর তার পিতা ব্যাপারটি লক্ষ্য করলে হোসেল এর কাছে জানতে চায় সে কীভাবে ডেভিসের একাউন্ট হ্যাক করে। হোসেল তার পিতাকে তার সব কাজ দেখায়। ডেভিস ছেলের কাজে অবাক হয় এবং বিষয়টি মাইক্রোসফটকে জানায়। মাইক্রোসফট অতি দ্রুত এই সমস্যা সমাধানে ব্যবস্থা নেয়। ফলে লাখ লাখ এক্সবক্স একাউন্ট ঝুঁকিমুক্ত হয়। মাইক্রোসফট হোসেলের কাজের জন্য হোসেলের নাম মাইক্রোসফট এর সিকিউরিটি রিচার্সারদের নামে এড করে। এছাড়াও পুরষ্কারস্বরুপ হোসেলকে ৫০ ডলার এবং লাইফ টাইমের জন্য  মাইক্রোসফট এক্সবক্স এর গোল্ড কার্ড গিফট করে। এভাবেই মাত্র ৫ বছর বয়সী ক্রিস্টোফার ভ্যান হোসেল হয়ে উঠে পৃথিবীর কনিষ্ঠতম হোয়াইট হ্যাট হ্যাকার।

ব্যাটসি ডেভিস
হ্যাকিং এ মেয়েরাও পিছিয়ে নেই। তবে তাদের মধ্যে সবথেকে অবাক করা ক্ষুদে হ্যাকার হল ব্যাটসি ডেভিস। লন্ডনে বসবাসকারী ৭ বছর বয়সী এই মেয়ে একই সাথে হ্যাক করেছে অনেকগুলো কম্পিউটার ও মোবাইল ফোন। ব্যাটসি লন্ডনের একটি ক্যাফেতে বসে সেই ক্যাফের ওপেন ওয়াইফাই হটস্পট ব্যবহার করে ঐ নেটওয়ার্ক ব্যবহারকারী সকল স্মার্টফোন, কম্পিউটার এবং ল্যাপটপ হ্যাক করেছে। ব্যাটসি শুধুমাত্র এসকল ডিভাইসে এক্সেস করেই শান্ত হয়নি বরং এসকল ডিভাইস ব্যবহারকারীদের ই-মেইল, সোশ্যাল মিডিয়া একাউন্ট এবং অনলাইন  ব্যাংক একাউন্টের মত স্পর্শকাতর জিনিস ও হ্যাক করে তথ্য হাতিয়ে নিয়েছে।

ব্যাটসির এই কাজের পিছনের কারণ জানা যায়নি। তবে ব্যাটসি এই হ্যাকিং কম্পিউটার কিংবা প্রোগ্রামিং এর উপর কোনো ব্যাসিক নলেজ ছাড়াই করেছে। অত্যন্ত ট্যালেন্ডেড এই ক্ষুদে হ্যাকার এত বড় হ্যাক করার পূর্বে শুধুমাত্র হ্যাকিং এর উপর একটি ইউটিউব ভিডিও দেখে এবং তা থেকেই হ্যাক করে ফেলে এত ডিভাইস। তবে অন্যান্য ব্ল্যাক হ্যাট হ্যাকারদের মত ব্যাটসির জেল খাটতে হয়নি। বয়স কম হওয়ার কারণে ব্যাটসিকে লন্ডনের আদালত কোনো শাস্তি দেয়নি বরং একটি ভিপিএন কোম্পানি যারা ওয়েবসাইটের সিকিউরিটি নিয়ে কাজ করে তারা ব্যাটসিকে ওয়েব সিকিউরিটি কনস্যালট্যান্ট হিসেবে চাকরি দেয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস

Best Electronics