Alexa পুরুষের ঈদ মানেই পাঞ্জাবি

পুরুষের ঈদ মানেই পাঞ্জাবি

প্রকাশিত: ১৭:১৯ ৬ জুন ২০১৮   আপডেট: ২২:০০ ৬ জুন ২০১৮

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

ঈদ মানে নতুনত্ব। ঈদ মানে বাড়তি আনন্দে, উৎসবে আবীর মাখানো রঙ। ঈদ মানেই নতুন পোশাকে নিজেকে সাজানো। ঈদে ছোট-বড় সবাই নতুন পোশাকে নিজেকে সাজাতে চায়। এখন ঈদে আগের তুলনায় নানা স্টাইল আর ডিজাইনের পাঞ্জাবি পড়ার প্রবণতা বেড়েছে। পাঞ্জাবিতে যেমনি ফুটে ওঠে ব্যক্তিত্ব, তেমনি দেখতেও লাগে সুন্দর। রঙ আর বাহারি ডিজাইনের পাঞ্জাবি এখন তরুণদের প্রথম পছন্দ।

যে কোনো বয়সি বাঙালি তরুণ অথবা পুরুষকে যদি জিজ্ঞেস করা হয়, এবার ঈদে কী কিনছেন? প্রায় সবার উত্তর হবে একই। আর তা হলো- পাঞ্জাবি। ঈদে নতুন পাঞ্জাবি না হলে যেন, একেবারেই চলে না। পাঞ্জাবির পাশাপাশি অনেকে হয়তো শার্ট, পোলো ও টি শার্ট কিনে থাকেন। কিন্তু পুরুষের ঈদ বলতেই পাঞ্জাবি।


আজিজ মার্কেটে আব্রু ব্রান্ডে পাঞ্জাবি কিনতে ব্যস্ত ক্রেতারা

ঈদের সকালে পাঞ্জাবি ছাড়া দিনটাই যেন অসম্পূর্ণ। কেবল নামাজ আদায়ে নয়, উৎসবমুখর পরিবেশে দিনভর প্রিয়জনের সঙ্গে ঘুরে বেড়াতে বেশিরভাগ পুরুষ পাঞ্জাবিকে রাখেন প্রথম পছন্দের তালিকায়।

এবার ঈদ যেহেতু রোদ ও বৃষ্টির সংমিশ্রনে গরমের সময়, তাই হালকা ওজনের সুতি এবং কটন পাঞ্জাবিই হতে পারে সেরা ঈদ ফ্যাশন। আর সে কারণে উজ্জ্বল ও গাড় রঙগুলোকেই বেশি প্রাধান্য দিচ্ছে তরুণরা। পাঞ্জাবিতে অ্যামব্রায়ডরি কিংবা হস্তশিল্পের চাহিদা দিন দিন কমছে। আর সেই জায়গায় পুরুষরা এখন একেবারে সাদাসিদে পাঞ্জাবির দিকেই বেশি ঝুঁকছেন। এছাড়া স্ক্রিন ও ব্লক প্রিন্ট এবং সবসময়ের পছন্দ স্ট্রাইপড পাঞ্জাবি তো আছেই।

গরম ও বৃষ্টি দুটোর কথা মাথায় রেখেই প্রস্তুতি নিয়েছেন ব্যাবসায়ীরাও। প্রস্তুত দেশের সেরা ও জনপ্রিয় বিভিন্ন ব্র্যান্ড। বর্ষার ম্যাড়মেড়ে আবহাওয়াকে দূর করতেই যেন রঙিন সব কাপড় ব্যবহার করা হয়েছে পাঞ্জাবিতে।

রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে বিপণীবিতান থেকে শুরু করে ফুটপাত পর্যন্ত শোভা পাচ্ছে বাহারি পাঞ্জাবী পসরা। যদিও বছর জুড়ে চলে পাঞ্জাবি তৈরির কাজ। তবে ঈদকে সামনে রেখে জমে উঠেছে পুরোনো ঢাকার পাঞ্জাবির পাইকারি বাজার। ঈদ উপলক্ষে সারাদেশে ক্রেতাদের কাছে পোশাকটি পৌঁছে দিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন বিক্রেতারা। আর ক্রেতারাও নিজেদের পছন্দমত পাঞ্জাবিটা কিনতে ভিড় করছেন নগরীর নামিদামি শপিংমল ও অভিজাত মার্কেটগুলোতে।


আজিজ মার্কেটে আব্রু ব্রান্ডের শো-রুমে পাঞ্জাবি পছন্দ করছে ক্রেতারা

এবার হাতের কাজের চেয়ে প্রিন্টের পাঞ্জাবির কদর বেশি বলে জানান বিক্রেতারা। দেশিয় পাঞ্জাবির পাশাপাশি বিক্রি হচ্ছে ভারত ও চীনের পাঞ্জাবিও। পরিবেশ অনুকূলে থাকায় বেঁচাকেনাও বেশ ভাল বলে জানান পাইকারি ও খুচরা ক্রেতা-বিক্রেতারা।

বাঙ্গালীর চিরায়ত ও ঐতিহ্যবাহী পোশাক পাঞ্জাবি। ঈদ উল ফিতরকে ঘিরে আড়ং, লংলা, ABRU, Yellow, Ecstacy, Lubnan, Gentle Park, O2, Hike, O Code, Lavelux, Apara, Le Reve সহ বিভিন্ন ব্র্যান্ড রঙবেঙয়ের পসরা সাজিয়েছে ক্রেতা আকর্ষনে।

তবে, রাজধানীতে পাঞ্জাবির কথা আসলেই সবার আগে যে নামটি আসে তা হলো মালিবাগ-মৌচাক মার্কেট। মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্তরাই এখানে বেশি কেনাকাটা করেন। অল্পদামে ভালো পাঞ্জাবি কেনার জুড়ি নেই এখানকার মার্কেটগুলো। সেখানেই কথা হয়, পরিবার নিয়ে শপিংয়ে আসা সাইফুর রহমানের সঙ্গে। তিনি জানান, ঈদে পাঞ্জাবি তার কাছে কেন অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেন, বোন ও মায়ের জন্যও কেনাকাটা সেরেছি। নিজের এবং ভাই ও বাবার জন্য পাঞ্জাবি কিনেছি। ঈদে মুসলমানরা পাঞ্জাবি পড়ে। যুগ যুগ ধরে দেখে আসছি এটি মুসলিম সংস্কৃতির অংশ। তাই পাঞ্জাবি ছাড়া কী আর ঈদ হয়..? কী বলেন..।

নগরীর আজিজ সুপার মার্কেট, গুলিস্তানের পীর ইয়ামেনী মার্কেট, বসুন্ধরা শপিং কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন জায়গা ঘূরে দেখা যায়, পুরোদমে জমে উঠেছে পাঞ্জাবি বাজার। বিক্রেতারা বলছেন, এবার ঈদে রঙিন পাঞ্জাবির কাটতি বেশি।

এতো গেল বিত্তবানদের পাঞ্জাবি বাজারের গল্প। কিন্ত যারা নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া মানুষ, তাদেরও যে ঈদ হয় না, পাঞ্জাবি ছাড়া। তবে বড় বড় জমকালো শপিংমল নয়, তাদের ভরসা ফুটপাথ। আর তাই পাঞ্জাবির পসরা ফুটপাতেও কমতি নেই। নানা রঙের পাঞ্জাবিতে পসরা সাজিয়েছেন মতিঝিল থেকে গুলিস্তান ও পল্টন এলাকার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। “বাইচ্ছা নেন ২৫০ টাকা দেইখ্যা লন আড়াইশ, দেইখ্যা লন তিনশ’ টাকা; এমন সব হাঁকডাকে ক্রেতাদের দৃষ্টি আকর্ষন করছেন ফুটপাতের ব্যবসায়ীরা। ঈদে একটি ভাল পাঞ্জাবি না হলে কি হয়..? আর তাই নিম্ন আয়ের মানুষরাও উল্টে পাল্টে দেখছেন ফুটপাতের দোকানের এসব পাঞ্জাবি।


আজিজ মার্কেটে আব্রু ব্রান্ডে পাঞ্জাবি কিনতে ব্যস্ত ক্রেতারা

ঈদের বেচাবিক্রি নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ফুটপাতের এসব ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর। কেউ বলছেন বেচাকেনা ভাল, আবার কেউ বলছেন বৃষ্টি আর রাস্তা কাটার কারণে ক্রেতা পাচ্ছেন না তারা।

আব্রু ব্রান্ডের কর্ণধার হাবিবুর রহমান হ্যাবেন বলেন, আমাদের প্রতিষ্ঠান সবসময়ই গুণগত মান নিশ্চিত করে। তাই ক্রেতারা আস্থা পেয়ে শপিং করতে বার বার এখানেই ফিরে আসে।

তবে দামদর যাই হোক, বাহারি ডিজাইন আর মনের মতো পাঞ্জাবি, সব শ্রেণি পেশার মানুষের মাঝে বয়ে আনুক ঈদের অনাবিল আনন্দ। 

ডেইলি বাংলাদেশ/ডিএম/এলকে

Best Electronics
Best Electronics
শিরোনামকুমিল্লার বাগমারায় বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে নারীসহ নিহত ৭ শিরোনামবন্যায় কৃষিখাতে ২শ’ কোটি টাকার বেশি ক্ষতি হবে না: কৃষিমন্ত্রী শিরোনামচামড়ার অস্বাভাবিক দরপতনের তদন্ত চেয়ে করা রিট শুনানিতে হাইকোর্টের দুই বেঞ্চের অপারগতা প্রকাশ শিরোনামচামড়া নিয়ে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সমাধানে বিকেলে সচিবালয়ে বৈঠক শিরোনামডেঙ্গু: গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি ১৭০৬ জন: স্বাস্থ্য অধিদফতর শিরোনামডেঙ্গু নিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদন দুপুরে আদালতে উপস্থাপন শিরোনামডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা কমছে: সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের পরিচালক শিরোনামইন্দোনেশিয়ায় ফেরিতে আগুন, দুই শিশুসহ নিহত ৭ শিরোনামআফগানিস্তানে বিয়ের অনুষ্ঠানে বোমা হামলা, নিহত বেড়ে ৬৩