Alexa পাবনায় দ্বিতীয় যমুনা-পদ্মা সেতুর দাবিতে প্রস্তুতি সভা

পাবনায় দ্বিতীয় যমুনা-পদ্মা সেতুর দাবিতে প্রস্তুতি সভা

পাবনা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৭:১৫ ২৫ জানুয়ারি ২০২০  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

আরিচা কাজিরহাটকে সংযুক্ত করে দ্বিতীয় যমুনা-পদ্মা সেতু বাস্তবায়নের দাবিতে মানববন্ধন করবে পাবনাবাসী। পাবনা জেলা উন্নয়ন ফোরামের আয়োজনে ২৭ জানুয়ারি এশিয়া মহাদেশের সবচেয়ে বড় মানববন্ধন হবে বলে আয়োজকরা জানিয়েছেন।  

এ বিষয়ে শনিবার দুুপুরে পাবনা জেলা উন্নয়ন ফোরাম জেলার বিভিন্ন জায়াগায় প্রস্তুতি সভার আয়োজন করে। পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার আতাইকুলা ইউপি পরিষদের চেয়ারম্যান মিরাজুল ইসলাম বিশ্বাসের উদ্যোগে পরিষদ প্রাঙ্গণে প্রস্তুতি সভার আয়োজন করা হয়। 

সাঁথিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল মাহমুদ দেলোয়ার এর সভাপতিত্বে প্রস্তুতি সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন পাবনা জেলা উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা এসকে হাবিবুল্লাহ। 

বক্তব্য রাখেন উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের যুগ্ম পরিচালক মনসুর আলম, সাঁথিয়া প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আব্দুদ দাইন, ভুলবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান ইউনুছ আলী, অধ্যক্ষ শাহচজাহান আলী, সাংবাদিক আমিনুল ইসলাম জুয়েল, আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল মালেক বাবলু, প্রধান শিক্ষক আফসার আলী, ব্যবসায়ী নেতা জিয়াউর রহমান, শিক্ষক বেলাল হোসেন, আব্দুস সোবহান, আব্দুল মান্নান প্রমুখ। 

সভায় সাংবাদিক, শিক্ষক, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক দলের নেতা- কর্মী, ব্যবসায়ীসহ সুশীল সমাজ ও বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

পাবনা জেলা উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা এসকে হাবিবুল্লাহ জানান, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন ছিল নগরবাড়ী- আরিচাকে সংযুক্ত করা। এখন তারা শুধু নগরবাড়ী ( কাজীরহাট), আরিচা ও দৌলতদিয়া সংযোগকারী ওয়াই টাইপ সেতু করার দাবি জানাচ্ছেন। 

এ দাবিতে ২৫ জানুয়ারি বেলা ১১ টা থেকে ১২ টা পর্যন্ত মানববন্ধন করা হবে। কাজীরহাট, বাঁধেরহাট, আমিনপুর, কাশীনাথপুর, বিরামপুর, দুলাই, চিনাখড়া, বনগ্রাম, মাধপুর, আতাইকুলা, গংগারামপুর, পুষ্পপাড়া, ক্যাডেট কলেজ, প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বাস টার্মিনাল, মুজাহিদ ক্লাব, ডিসি অফিস, প্রেস ক্লাব, এডওয়ার্ড কলেজ, মালিগাছা, টেবুনিয়া, দাশুরিয়া, ঈশ্বরদী রেল স্টেশন পর্যন্ত এবং টেবুনিয়া থেকে ডেমরা পর্যন্ত ১৪০ কিলোমিটার দীর্ঘ এলাকাজুড়ে পাবনাবাসী তাদের প্রাণের দাবিতে হাতে হাত রেখে এ মানববন্ধন করবে।

সাঁথিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল মাহমুদ দেলোয়ার জানান, পাবনাবাসীর দীর্ঘ দিনের এ দাবি  বাস্তবায়ন হলে রাজধানীর সঙ্গে যাতায়াতে ১০০ কিলোমিটার দূরত্ব কমে যাবে। পাবনায় নতুন নতুন শিল্প কলকারখানা গড়ে উঠবে। উত্তরবঙ্গের সঙ্গে দক্ষিণবঙ্গের যোগাযোগে নতুন দিগন্তের সূচনা হবে। ১৯৬৪ সালে নগরবাড়ী- আরিচা রুটে ফেরি চলাচল শুরু হওয়ার পর থেকেই বাণিজ্যিক ভাবে এ অঞ্চল গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। দেশের উত্তরাঞ্চলের প্রবেশদ্বার হয়ে ওঠে পাবনা। 

পরবর্তীতে ১৯৯৭ সালে বঙ্গবন্ধু সেতু হওয়ার পর নগরবাড়ি টু পাটুয়িরা ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। অর্থনৈতিকভাবে ঐতিহ্য হারিয়ে ভেঙে পড়ে এ জেলা। 

ফোরামের নেতারা জানান, উত্তরবঙ্গ ও দক্ষিণবঙ্গের সঙ্গে রাজধানীর স্বল্প সময়ে যাতায়াত নিশ্চিত করতে ও সড়ক দুর্ঘটনা রোধে পাবনাকে সংযুক্ত করে দ্বিতীয় পদ্মা-যমুনা সেতু নির্মাণ এখন সময়ের দাবিতে পরিণত হয়েছে। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে