পানির চাপে নষ্ট হচ্ছে ট্রাম্পের চুলের স্টাইল!

পানির চাপে নষ্ট হচ্ছে ট্রাম্পের চুলের স্টাইল!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১১:১৮ ১৪ আগস্ট ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

শাওয়ারের পানির তোড় যথেষ্ট নয়, আর সেজন্য নষ্ট হচ্ছে চুলের সৌন্দর্য। এমন অভিযোগই আনলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। গত মাসে হোয়াইট হাউসে প্রেসিডেন্টের এ অভিযোগের পর শাওয়ারের মুখ দিয়ে পানির প্রবাহ বৃদ্ধির জন্য গত বুধবার পানির তোড় বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে সরকারের জ্বালানি মন্ত্রণালয়।

সংবাদ মাধ্যম বিবিসির খবরে জানা যায়, ১৯৯২ সালের মার্কিন আইন অনুযায়ী শাওয়ারের মুখ দিয়ে প্রতি মিনিটে আড়াই গ্যালনের (সাড়ে নয় লিটার) বেশি পানি ছাড়ার নিয়ম নেই। ট্রাম্প প্রশাসন এখন এই সীমা সামগ্রিকভাবে না রেখে প্রতি নজোলে এই পরিমাণ পানি বের হওয়ার বিধান করতে চাইছে। তবে এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়েছে বিভিন্ন ভোক্তা সংগঠন ও পরিবেশ সংরক্ষণকারী সংস্থা। তারা বলছে, এই নতুন আইন হলে পানির অপচয় বেড়ে যাবে।

ট্রাম্প ওইদিন বলেন, আপনি গোসলে করছেন কিন্তু যথেষ্ট পানি আসছে না। আপনি হাত ধোবেন, কিন্তু পানি আসছে না। আপনি কী করবেন? আপনি কি দীর্ঘক্ষণ শাওয়ারের নিচে দাঁড়িয়ে থেকে গোসল করবেন? দেখুন আমার চুল আমি আপনাদের কথা জানি না, কিন্তু আমার চুলের স্টাইল নিখুঁত হতে হবে।

জানা গেছে, বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের জ্বালানি বিভাগ নতুন আইনের প্রস্তাব করেছে। সংরক্ষণবাদী সংগঠন অ্যাপ্লায়েন্স স্ট্যান্ডার্ডস অ্যাওয়ারনেস প্রজেক্টের নির্বাহী পরিচালক অ্যান্ড্রু ডিলাসকি বলছেন, এমন প্রস্তাব কোনো কাজের হবে না। বরং আড়াই গ্যালনের জায়গায় ১০ থেকে ১৫ গ্যালন পানির অপচয় হতে পারে।

কনজিউমার রিপোর্টস নামে ভোক্তা সংগঠনের ভাইস প্রেসিডেন্ট ডেভিড ফ্রিডম্যান বলছেন, তাদের তথ্য অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্রে শাওয়ারের সরঞ্জাম, শাওয়ারের ঝাঁঝরি মুখ নিয়ে মানুষ খুবই সন্তুষ্ট। তারা যে পরিমাণ পানি পান তাতেও তারা খুশি এবং পানির এই সীমা বেঁধে দেয়ার কারণে পানির বিলে সাশ্রয় নিয়েও তারা সন্তুষ্ট।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে এই প্রস্তাবিত আইন কার্যকর করতে গিয়ে ট্রাম্প প্রশাসনকে আদালত পর্যন্ত যেতে হতে পারে। বলা হচ্ছে, আদালত এই প্রস্তাবিত আইন আটকে দিতে পারেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএএইচ