পশুর হাটে থাকবে ১২০০ মেডিকেল টিম

পশুর হাটে থাকবে ১২০০ মেডিকেল টিম

শাহাদাত হোসেন রাকিব ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২০:৩০ ১৫ জুলাই ২০২০   আপডেট: ২০:৪০ ১৫ জুলাই ২০২০

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে ঢাকাসহ সারাদেশে বসবে পশুর হাট। এসব হাটে কাজ করবে এক হাজার ২০০ মেডিকেল টিম। 

প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের তথ্যানুযায়ী, এ বছর এক কোটি ১৮ লাখ ৯৭ হাজার ৫০০টি গবাদিপশু কোরবানির জন্য মজুত রয়েছে। এগুলোর মধ্যে হৃষ্টপুষ্ট গরু-মহিষের সংখ্যা ৪৫ লাখ ৩৮ হাজার। আর ছাগল-ভেড়ার সংখ্যা ৭৩ লাখ ৫৫ হাজার ও অন্যান্য পশু ৪ হাজার ৫০০টি।

এসব পশু বিক্রি করার জন্য সারাদেশের বিভিন্নস্থানে বসবে পশুরহাট। এরমধ্যে রাজধানী ঢাকায় বসবে মোট ১১টি হাট। 

জানা গেছে, উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকায় মোট ছয়টি পশুর হাট বসবে। এর মধ্যে গাবতলীতে স্থায়ী পশুর হাট ছাড়া বাকি পাঁচটি অস্থায়ী হাট।

উত্তরের পশুর হাটের স্থানগুলো হলো- উত্তরা ১৭ নম্বর সেক্টরে বৃন্দাবন থেকে উত্তর দিকে বিজিএমইএ ভবন পর্যন্ত খালি জায়গা; কাওলা শিয়ালডাঙ্গা সংলগ্ন খালি জায়গা; ৪৩ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্বাচল ব্রিজ সংলগ্ন মস্তুল ডুমনী বাজারমুখী রাস্তার উভয় পাশের খালি জায়গা; ভাটারা (সাইদ নগর) পশুর হাট এবং উত্তরখান মৈনারটেক হাউজিং প্রকল্পের খালি জায়গা।

এদিকে, পাঁচটি অস্থায়ী পশুর হাট বসানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন (ডিএসসিসি)। সংস্থাটি বলছে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে এসব হাট পরিচালনা করা হবে।

উত্তর শাহজাহানপুর খিলগাঁও রেলগেট বাজারের মৈত্রী সংঘের মাঠসংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, হাজারীবাগে ইনস্টিটিউট অব লেদার টেকনোলজির মাঠসংলগ্ন উন্মুক্ত এলাকা, পোস্তগোলা শশ্মানঘাট সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, লিটল ফ্রেন্ডস ক্লাব সংলগ্ন গোপীবাগ বালুর মাঠ ও কমলাপুর স্টেডিয়াম সংলগ্ন বিশ্বরোডের আশপাশের খালি জায়গা এবং আফতাব নগর (ইস্টার্ন হাউজিং) ব্লক-ই, এফ, জি, এইচ ও সেকশন-১ ও ২–এর খালি জায়গায় বসবে হাটগুলো।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন, গবাদিপশুর বাজারগুলোতে মেডিকেল টিম কাজ করবে, যেন রুগ্ন পশু বাজারে আসতে না পারে। একইসঙ্গে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে মনিটরিং টিম গঠন করা হবে।

সম্প্রতি ঈদুল আজহা উপলক্ষে এক সভা করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। সভায় সিদ্ধান্ত হয়, পশুর হাটে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় যে গাইডলাইন তৈরি করছে, তা বাস্তবায়নের জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবস্থা নেবে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সুপারিশের বিষয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় ও সিটি কর্পোরেশন ব্যবস্থা নেবে। 

সভায় আরো সিদ্ধান্ত হয়, কোরবানির হাটের ইজারাদারদের ব্যবস্থায় হাটের প্রবেশপথে হাত ধোয়ার সুবিধা (বেসিনসহ) ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখতে হবে। ক্রেতাদের মাস্ক পরে হাটে প্রবেশ করতে হবে। হাটের কাছে ব্যাংক বুথ থাকবে। রাস্তাঘাটের ওপর পশুর হাট দেয়া যাবে না। পশুর ট্রাক কোন হাটে যাবে সেটা ট্রাকের সামনে একটি ব্যানার লেখা থাকবে। ওই ট্রাক অন্য কোথাও থামানো যাবে না। পশুবাহী কোনো গাড়ি রাস্তার যেকোনো স্থানে থামানো যাবে না। 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় পশুর হাটে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য একটি গাইড লাইন তৈরি করেছে। গাইডলাইন বাস্তবায়নের জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবস্থা নেবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআরকে/এসএএম