Alexa নেই খেলার সরঞ্জাম, আছে ক্যাসিনো!  

নেই খেলার সরঞ্জাম, আছে ক্যাসিনো!  

আসাদুজ্জামান লিটন ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২১:০১ ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১৪:৪২ ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

যে কোনো খেলার আতুর ঘর বলা হয় ক্লাবকে। খেলোয়াড় তৈরি, প্রশিক্ষণ থেকে শুরু করে সেই খেলোয়াড়কে বড় মঞ্চে তুলে আনা সবকিছুর শুরু হয় একটি ক্লাব থেকে।

অথচ বাংলাদেশের ক্লাবগুলো মান সম্পন্ন খেলোয়াড় তুলে আনা তো দূরের কথা, ঠিকমতো খেলা চালাতেই হিমশিম খায়। অবকাঠামোগত উন্নয়নের বদলে জীর্ণ ও ভগ্নদশায় চলছে ক্লাবগুলো, নেই কোনো জৌলুস। 

সম্প্রতি পরিচালিত অভিযানে যেনো এর পেছনের কারণটিই বেরিয়ে এসেছে। প্রায় সব ক্ষেত্রেই দেখা যাচ্ছে, ক্লাবগুলোতে খেলার সরঞ্জামের পরিবর্তে আছে ক্যাসিনোর বোর্ড! যেখানে থাকার কথা ক্রিকেটের ব্যাট-বল, ফুটবল, হকির মতো অবকাঠামো। সেখানে গড়ে উঠেছে মাদক আর জুয়ার উৎসাহব্যাঞ্জক ক্যাসিনো। এর থেকে আসা টাকা দিয়ে পেট ভরছে বড় কর্তাদের। কিন্তু ক্লাবের কোনো লাভে আসেছে এই টাকা। উল্টো বিভিন্ন ধরনের অনিয়ম আর দুর্নীতির আখরায় পরিণত হয়েছে এক একটি ক্লাব।

একসময় দেশের প্রতিটা ইভেন্টে ক্লাবগুলোর প্রতিযোগিতায় মুখরিত ছিল ক্রীড়াঙ্গন। ক্রিকেটের আগে ফুটবল, হকি সহ নানা খেলার প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ আবহ ছিল ক্রীড়াপ্রেমীদের অন্যতম আলোচ্য বিষয়। সকাল বিকাল ক্লাবগুলোতে চলতো অনুশীলন। 

কিন্তু সে দিন পাল্টে গিয়েছে আগেই। এখন মাঠের বদলে মাঠের বাইরের চাল নিয়েই বেশি ব্যস্ত ক্লাব কর্তারা। প্রভাব প্রতিপত্তি বাড়ানোর জন্য অন্যপথে পা বাড়াতে আগ্রহী সবাই। আর তারই ফলস্বরূপ ক্লাবগুলোর ভেতর ঢুকে পড়েছে ক্যাসিনো নামের অভিশাপ।  

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্লাবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযানের পরেই মূলত বেরিয়ে আসে পেছনের এ কালো জগতের কথা। কলাবাগান ক্লাবের পর ঐতিহ্যবাহী মোহামেডান ক্লাব থেকেও পাওয়া যায় ক্যাসিনোর আলামত। অথচ ক্যাসিনোর বদলে সেখানে ক্রীড়া সরঞ্জামাদি দিয়ে ভরপুর থাকার কথা ছিল। এ থেকেই দেশের ক্রীড়াক্ষেত্রে ক্লাবগুলোর দৈন্যতার কারণ বোঝা যায়। 

ক্যাসিনোতে নিয়মিত বসে জুয়ার আড্ডা। চলে টাকার খেলা। এসবে ব্যস্ত সময় পার করেন ক্লাব কর্তারা। ফলে কোথায় কি করলে ক্লাবের উন্নতি হবে, কিভাবে আরো ভালো খেলোয়াড় তৈরি করা যাবে এসব চিন্তার বদলে ঠাঁই পায় জুয়ার বোর্ড থেকে কিভাবে আয় বাড়ানো যায়। 

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক আমিনুল হক বলেন, ক্লাবে এ ধরণের ঘটনার উদাহরণ অন্য কোন দেশে নেই। 

বাফুফের সহ সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ মহি গণমাধ্যমকে বলেন, বাফুফের কোন দায় এখানে নেই। প্রতিটি ক্লাবের পরিচালনা পর্ষদ আছে, কেউ কোন অন্যায় করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আছে।

ক্লাবগুলোতে ক্যাসিনোর বদলে কিভাবে খেলার সরঞ্জাম বাড়ানো যায়, দক্ষ খেলোয়াড় তৈরি সহ কি করে খেলার প্রতিদ্বন্দ্বিতা বাড়ানো যায় সে দিকে নজর দিতে হবে। 

তবে ফুটবল সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন এ ব্যাপারে ফেডারেশনকে হতে হবে আরো কঠোর। ক্যাসিনো ব্যবসার প্রমাণ পাওয়া গেলে ক্লাবগুলোকে নিষিদ্ধ করতে হবে ঘরোয়া ফুটবল থেকে। এতে যদি এই অভিশাপ থেকে মুক্তি পায় দেশের ক্রীড়াঙ্গন।

খেলার মান কিভাবে বাড়ানো যায় এজন্য চিন্তা করার এখনই উপযুক্ত সময়। দেশের ক্রীড়াঙ্গনকে ক্যাসিনো নামক কালো থাবার হাত থেকে মুক্ত করে ঢেলে সাজানো সময়ের দাবি। 

কিন্তু বিড়ালের গলায় ঘণ্টা বাধবে কে?

ডেইলি বাংলাদেশ/সালি