নৃশংস পন্থা: দাঁড় করিয়ে রাখতে গরুর চোখে দেয়া হচ্ছে মরিচ

নৃশংস পন্থা: দাঁড় করিয়ে রাখতে গরুর চোখে দেয়া হচ্ছে মরিচ

সোশ্যাল মিডিয়া ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ০৯:৩৯ ২২ জুলাই ২০২০   আপডেট: ১১:২৯ ২২ জুলাই ২০২০

ছবি- সংগৃহীত

ছবি- সংগৃহীত

ছবিগুলো পুরনো হলেও সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ফের ভাইরাল হয়েছে। যেগুলোতে দেখা যাচ্ছে, গরুর চোখে কাঁচামরিচ ঢুকিয়ে দেয়া হয়েছে। গরু যাতে ঘুমিয়ে পড়তে না পারে সেজন্য বহুদিন ধরেই এমন নৃশংস পন্থা অবলম্বন করা হচ্ছে।

জানা গেছে, ছবিগুলো গত বছরের। জমির হোসেন নামের একজন ফটোগ্রাফার ছবিগুলো তুলেন। 

কোরবানির ঈদ আসলেই ট্রাকে করে গরু পরিবহন করা হয়। এজন্য কয়েকজন ব্যবসায়ী মিলে একটি বা দুটি ট্রাক ভাড়া করে তাদের গরু পরিবহন করে। খরচ কমাতে অনেক সময় এক ট্রাকেই গাদাগাদি করে অনেক গরু উঠানো হয়। গরু যেন ট্রাকে শুয়ে না পড়ে সে জন্য তাদের জাগিয়ে রাখতে চোখের ভেতর মরিচ ভেঙে গুঁজে দেয়া হয়। চোখে মরিচ গুঁজে দিলে যন্ত্রণায় গরু দাঁড়িয়ে থাকে। চোখে মরিচ দিয়ে মূলত গরুকে দাঁড় করিয়ে রাখা হয় যাতে করে ট্রাকে দুইটা গরু বেশি তোলা যায়!

আসছে কোরবানির ঈদ। আগামী ১ আগস্ট সারাদেশে এ ঈদ উদযাপন করা হবে। এরইমধ্যে রাজধানীতে কোরবানির পশুর হাট বসেছে। ট্রাকে ট্রাকে আসতে শুরু করেছে গরু। তার আগেই এসব পুরনো ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। অবলা প্রাণীর সঙ্গে মানুষের এমন পৈশাচিকতা দেখে তীব্র নিন্দা আর প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। 

ফেসবুকের বেশকিছু গ্রুপের এডমিনদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মানুষের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টির জন্যই এসব পুরনো ছবির পোস্ট এপ্রুভ করা হয়েছে। প্রতিবাদের ভাষা নেই বলে যে পশুর অনুভূতি নেই, তা প্রায়ই ভুলে যাই আমরা। নিষ্ঠুরতার প্রতিশব্দ হিসেবে পশু শব্দটি ব্যবহার করা হলেও, বাস্তবে নিষ্ঠুরতার সঙ্গে মানুষ শব্দটিই যেন বেশি মানায়।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিআরএইচ