Alexa নিঃসঙ্গতা কাটাতে পাঁচ বান্ধবীর ব্যতিক্রমী উদ্যোগ

নিঃসঙ্গতা কাটাতে পাঁচ বান্ধবীর ব্যতিক্রমী উদ্যোগ

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৭:২১ ২১ আগস্ট ২০১৯   আপডেট: ১৭:২৮ ২১ আগস্ট ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

‘মৈত্রী’ মানে বন্ধুত্ব। বাস্তবজীবনে বন্ধুত্ব সার্থক করে তুলতে পাঁচ বান্ধবী মিলে নিয়েছেন এক ব্যতিক্রমী উদ্যোগ। তারা সেতুবন্ধন করছেন দুই ‘বঞ্চিত’দের মাঝে।

এক দিকে অনাথাশ্রমের শিশুরা। অন্য দিকে বৃদ্ধাশ্রমের নিঃসঙ্গরা। দু’দিকের শূন্যতাকে মুছিয়ে দিতে মেলবন্ধন করছে মৈত্রী।

উদ্যোগের কারিগর নয়ডা অ্যামিটি ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের পঞ্চকন্যা। অনন্যা গ্রোভার, অনুষ্কা শর্মা, আরিফা, বনিষ্কা যাদব এবং বসুধা সুধীন্দ্র। তাদের স্বপ্ন, প্রিয় জনদের থেকে বিচ্ছিন্ন মুখগুলোর নিঃসঙ্গতা দূর করা।

গত বছর দাদা-দাদিকে অল্প দিনের ব্যবধানে হারিয়েছে অনন্যা গ্রোভার। দাদির মৃত্যুতে দাদার একাকিত্বে অনন্যা কষ্ট পেত স্কুলে বন্ধুদের সঙ্গে কথায় উঠে এসেছিল অনন্যার উদ্বেগ। সেখান থেকেই জন্ম ‘মৈত্রী’ অ্যাপের।

এই অ্যাপের মাধ্যমে অনাথাশ্রমের কচিকাঁচারা এবং বৃদ্ধাশ্রমের বৃদ্ধ-বৃদ্ধারা এক সঙ্গে কিছুটা হলেও সময় কাটাতে পারবে।

দু’পক্ষের সঙ্গযাপনে একদিকে শিশুরা পাবে বয়স্কদের স্নেহ। পাশাপাশি প্রবীণরাও উপভোগ করবেন বাৎসল্য।

অ্যাপ নির্মাতা পঞ্চকন্যারা নিজেদের বলে, টিম মৈত্রী। তাদের কাজ শুরু হয়েছে চলতি বছরের মার্চ মাস থেকে। অ্যাপটি সক্রিয় হয়েছে জুলাই থেকে। এরইমধ্যে ডাউনলোড হয়েছে এক হাজারের বেশি বার।

যারা স্বেচ্ছাসেবী হতে ইচ্ছুক বা দান করতে চান, তারা ডাউনলোড করেন। অনাথাশ্রম এবং বৃদ্ধাশ্রম কর্তৃপক্ষরাও ডাউনলোড করছেন। আজ অবধি এই অ্যাপের আওতায় আছে নথিভুক্ত সাতটি অনাথাশ্রম এবং তেরোটি বৃদ্ধাশ্রম।

পাঁচ কিশোরীর উদ্যোগ বলে হেলাফেলার নয়। টিম মৈত্রী-তেও আছে সিইও, সিএফও, সিএমও-র মতো পদ। এই উদ্যোগ তাদের ভবিষ্যতের জন্য প্রস্তুত করে তুলছে। বিশ্বাস পাঁচ বান্ধবীর।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে