Alexa নবীনে মুখরিত মতিহারের সবুজ চত্বর

নবীনে মুখরিত মতিহারের সবুজ চত্বর

রাবি প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৭:০৪ ২১ জানুয়ারি ২০২০  

ছবিঃ ডেইলি বাংলাদেশ

ছবিঃ ডেইলি বাংলাদেশ

মাঘের এই শীতে কুয়াশার চাদর ভেদ করে সূর্যের রোদ হেসেছিলো রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) ক্যাম্পাসে। সেই হাসির ছোঁয়া লেগেছিলো বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) নতুন স্বপ্নচারীদের উদ্দীপ্ত প্রাণেও। এদিন নবীন শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠে ৭৫৩ একরের মতিহারের সবুজ চত্বর।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এরইমধ্যে বরণ করে নিয়েছে ৬৬টি ব্যাচকে। তার সঙ্গে যোগ হলো আরো একটি নতুন ব্যাচের। মঙ্গলবার ৬৭ তম ব্যাচকে (২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষ) বরণ করে নেয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সবগুলো বিভাগ। 

কারো হাতে গোলাপ কারো হাতে রজনীগন্ধা, দলবেধে ক্যাম্পাসে ছুটে চলা বা আড্ডায় বন্ধুত্ব সৃষ্টির প্রচেষ্টায়। কেউ কেউ আবার বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের প্রথম দিনটিকে স্মৃতিময় করে রাখতে ছবি তুলতে ব্যস্ত। সারাদিন এমন চিত্রই দেখা দেখা গেছে রাবি ক্যাম্পাস ঘুরে। 

সকাল থেকেই নবীনদের পদ চারণায় মুখরিত হয়ে ওঠে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারিস রোড, জোহা চত্বর, শহীদ মিনার, কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার চত্বর, চারুকলা, টুকিটাকি চত্বর, আমতলা, শেখ রাসেল চত্বর, শহীদ মিনার, কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়া, মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত বদ্ধভূমিসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি একাডেমিক ভবন। ক্যাম্পাসের প্রতিটি আড্ডাস্থলে পুরাতনদের পাশাপাশি আলো ছড়িয়েছে নবীন মুখগুলো।

রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী জাকির হোসেন বলেন, নতুন বন্ধুত্ব, নতুন ক্যাম্পাস ভালোই লাগছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের বড় ভাই, শিক্ষকরা সবাই আন্তরিক। তারা আমাদেরকে বিভিন্ন দিক নির্দেশনামূলক কথা বলেছেন যা আমাদের ভবিষ্যতে কাজে লাগবে। প্রথম দিকে ভাবতাম বিশ্ববিদ্যালয়ে র‌্যাগ দেয়া হয়, কিন্তু এখন সেই ধারণা ভুল বলে প্রমাণিত হয়েছে। এছাড়াও র‌্যাগের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন অনেক সচেতন। সব মিলিয়ে অনেক ভালো লাগছে।

গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের নবীন শিক্ষার্থী ছিদরাতুল মুনতাহা বলেন, দীর্ঘ পরিশ্রমের ফলে লালিত স্বপ্ন ও মনের আশা পূরণ হয়েছে। বিশেষ করে সৌন্দর্যবেষ্টিত রাবি ক্যাম্পাসে ভর্তি হয়ে খুবই ভাল লাগছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম