Alexa নন্দীগ্রামে দুর্যোগ সহনীয় ঘর পেল ১৪ পরিবার 

নন্দীগ্রামে দুর্যোগ সহনীয় ঘর পেল ১৪ পরিবার 

বগুড়া প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:২৮ ১৯ অক্টোবর ২০১৯   আপডেট: ১৫:৩০ ১৯ অক্টোবর ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

বগুড়ার নন্দীগ্রামের ১৪টি পরিবার দুর্যোগ সহনীয় ঘর পেয়েছে। এতে বাসস্থান পেয়ে সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছে ঘরহারা এসব পরিবারের সদস্যরা। 

উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ের তথ্যানুযায়ী, ২০১৮-১৯ অর্থবছরের কাবিটা ও টিআর কর্মসূচির বিশেষ খাতের অর্থ দ্বারা গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন ও দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাসে দুর্যোগ সহনীয় ঘর নির্মাণ প্রকল্প নেয়া হয়। সেই প্রকল্পের আওতায় নন্দীগ্রামের ১৪টি পরিবারের জন্য ঘর নির্মাণ করা হয়। প্রতিটি ঘর নির্মাণে দুই লাখ ৫৮ হাজার ৫৩১ টাকা ব্যয় হয়েছে। ইউএনও শারমিন আখতারের তত্ত্বাবধানে ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আবু তাহেরের তদারকিতে ঘরগুলো নির্মিত হয়। 

উপকারভোগীরা হলেন- নন্দীগ্রাম উপজেলার বুড়ইল ইউপির সিংজানী গ্রামের কাজেম উদ্দিনের ছেলে আতাউর রহমান, দাসগ্রামের হযরত আলীর ছেলে আনোয়ার হোসেন, বুড়ইল গ্রামের ওমর আলীর ছেলে শামসুর রহমান, নন্দীগ্রাম ইউপির তেঘরী গ্রামের হারুন সরকারের ছেলে ইসমাইল হোসেন, হাটলাল গ্রামের মোফাজ্জল হোসেনের ছেলে মিন্টু মিয়া, ভাটরা ইউপির বৃকঞ্চি গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে খোকন আলী, কুমিড়া গ্রামের নায়েব আলীর ছেলে দুলাল হোসেন, চৌদীঘি গ্রামের বাচ্চু মিয়ার স্ত্রী জিনাত রেহেনা, থালতা মাঝগ্রাম ইউপির পারশন গ্রামের বিলাত আলীর ছেলে চাঁন মিয়া, গোপালপুর গ্রামের আনছার আলীর ছেলে লিটন মিয়া, নন্দীগ্রাম পৌরসভার ঢাকইর গ্রামের মোজাহার আলীর মেয়ে জোসনা খাতুন, বুড়ইল ইউপির সিংজানি গ্রামের খয়বর আলীর ছেলে মো. উমর ফারুক, দাস গ্রামের হযরত আলীর ছেলে আনোয়ার হোসেন, ভাটগ্রাম ইউপির বর্ষন চেচুয়া গ্রামের আলী হায়দারের স্ত্রী মরিয়ম বিবি ও পুনাইল গ্রামের আসাদুলের স্ত্রী মোছা. মঞ্জিলা খাতুন।

উপকারভোগী আতাউর রহমান জানান, এক ছেলে এক মেয়ে নিয়ে আমার পরিবার। ছেলে হাফেজিয়া মাদরাসায় আর বড় মেয়ে এইচএসসিতে পড়াশোনা করে। এতদিন থাকার ঘর ছিল না, অন্যর বাড়িতে থাকতাম। মেয়ে বড় হয়েছে, নিজের বলতে কোনো বাড়ি ছিলো না। উপযুক্ত মেয়েকে নিয়ে সবসময় ভয়ে থাকতাম, কখন কি হয়। এখন আর সে ভয় নেই। এখন নিজের বাড়িতে নিরাপদে আছি। 

অন্যান্য উপকারভোগীরা জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্যই ঘর পেলাম। অন্য কোনো সরকার এভাবে কাউকে ঘর দেয়নি। আমরা পরিবার নিয়ে এখন সুখ-শান্তিতে রয়েছি।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আবু তাহের বলেন, ১৪টি ঘর নির্মাণ সম্পন্ন করে উপকারভোগীদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বাড়ি পেয়ে সেই সব পরিবাদের সদস্যরা অনেক খুশি। ডিসি ফয়েজ আহাম্মদ ঘর নির্মাণ পরিদর্শন করে সন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ