Alexa নদীতে কিছু ভাসলেই স্বামীর লাশ ভেবে চমকে উঠে অপেক্ষায় থাকা স্ত্রী

নদীতে কিছু ভাসলেই স্বামীর লাশ ভেবে চমকে উঠে অপেক্ষায় থাকা স্ত্রী

ভোলা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:৪২ ২০ জানুয়ারি ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

তেঁতুলিয়া নদীতে বালুবাহী জাহাজ ডুবে তিন দিন ধরে নিখোঁজ আছেন সুকানি বেল্লাল হোসেন। স্বামীর খোঁজে রাত-দিন নদীর পাড়ে অবস্থান করছেন তার স্ত্রী রিতু। নদীতেই স্বামীর লাশ পাওয়া যাবে, এমন আশায় তীরে বসে আছেন তিনি। স্বামীর লাশ নিয়েই বাড়ি ফিরবেন তিনি।

সোমবার সকালে ভোলার চরফ্যাশনের তেঁতুলিয়া নদীর পাড়ে দেখা মিলে সুকানির স্ত্রী রিতুর। নদীটির দিকে এক পলকে তাকিয়ে আছেন তিনি। নদীর দূরবর্তী স্থান দিয়ে কোনো কিছু পানিতে ভেসে যেতে দেখলেই স্বামীর লাশ ভেবে চমকে উঠেন, তা ভালো করে দেখেন রিতুসহ তার স্বজনরা। যখন নিশ্চিত হন লাশ নয়, এটি অন্য কিছু তখন আবার নতুন করে আশা নিয়ে তাকিয়ে থাকেন নদীটির দিকে। 

সুকানির স্ত্রী রিতুর অভিযোগ, চার-পাঁচ দিন আগে তার স্বামী বেল্লালের সঙ্গে জাহাজের স্টাফ আক্তার হোসেনের ঝগড়া হয়। আমার স্বামী জাহাজ থেকে পড়ে যায়নি, তাকে মেরে জাহাজ থেকে নদীতে ফেলে দেয়া হয়েছে।

এ ঘটনার পর জাহাজ থেকে কেউ তাকে ফোন করেননি। বিকেল ৩টায় তিনি স্বামীর খোঁজ নিতে তার মোবাইলে ফোন করলে আক্তার হোসেন ফোন রিসিভ করে বেল্লাল নদীতে পড়ে গেছে এবং তাকে পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানান।

রিতু জানান, পাঁচ বছর আগে রঙ নম্বরে ফোনকলের সূত্রে বেল্লালের সঙ্গে তার পরিচয় ও বিয়ে হয়। তার স্বামীর মোবাইলে তাদের দুজনের কিছু অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি থাকায় ওই মোবাইলটি সে কারো হাতে দিত না। সে যদি নদীতে পড়ে যেত, তবে মোবাইলটিও নদীতে পড়ে যেত। মোবাইলটি আক্তারের হাতে এলো কী করে?

রিতুর মা পারুল বেগম জানান, শনিবার বিকালে এ ঘটনা শোনার পর থেকে সবার নাওয়া-খাওয়া বন্ধ। তেঁতুলিয়া নদীতে তার স্বামীর লাশ মিলবে এবং লাশ নিয়েই বাড়ি ফিরবেন– এ আশায় নদীটির তীরে স্বজনদের নিয়ে লাশের অপেক্ষায় আছেন বেল্লালের স্ত্রী রিতু।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএস