Alexa নতুন তেলের খনির সন্ধান পেল ইরান

নতুন তেলের খনির সন্ধান পেল ইরান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:১০ ১১ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১৫:৪৭ ১১ নভেম্বর ২০১৯

প্রেসিডেন্ট রুহানি। ছবি : সংগৃহীত

প্রেসিডেন্ট রুহানি। ছবি : সংগৃহীত

ইরানের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের খুজেস্তান প্রদেশে আরো ৫৩ বিলিয়ন (৫,৩০০ কোটি) ব্যারেল তেলসমৃদ্ধ একটি খনি আবিষ্কার হয়েছে।

বোরবার দেশটির মধ্যাঞ্চলীয় ইয়াজদ শহরে বিশাল এক সমাবেশে বক্তৃতা দেয়ার সময় প্রেসিডেন্ট রুহানি এ খবর জানান।

তিনি বলেন, মার্কিন শত্রুতার সত্ত্বেও আমরা এই আবিষ্কার করতে সক্ষম হয়েছি। নতুন এই তেলক্ষেত্রে রয়েছে ৫ হাজার ৩০০ কোটি ব্যারেল অপরিশোধিত তেলের মজুদ।

ইরানি নেতার মতে দক্ষিণ-পশ্চিম ইরানের তেল ক্ষেত্রটি খুজেস্তান প্রদেশের ২,৪০০ বর্গ কিলোমিটার স্থান জুড়ে রয়েছে। খনিটির গভীরতা প্রায় ৮০ মিটার পর্যন্ত বিস্তৃত।

ইরানের প্রেসিডেন্ট বলেন, আজ আমরা যুক্তরাষ্ট্রকে লক্ষ্য করে ঘোষণা করছি যে, আপনাদের শত্রুতা ও বর্বর নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও আমরা একটি ধনী দেশ। ইরানের তেল শিল্পের কর্মী ও ইঞ্জিনিয়াররা নতুন এ বিশাল খনি আবিষ্কার করতে সক্ষম হয়েছেন। এ খনিটি দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম তেলক্ষেত্র হবে বলে জানান তিনি।

প্রেসিডেন্ট রুহানি আরো বলেন, বিদেশি প্রচণ্ড চাপ থাকা সত্ত্বেও আমরা তা মোকাবিলা করতে সক্ষম হয়েছি। যদিও আমাদের জনগণকে কঠিন সময় পার করতে হয়েছে।

এজেন্সি ফ্রান্স-প্রেসেস (এএফপি) এর মতে, "এটি ইরানের জনগণের কাছে সরকারের দেয়া একটি ছোট উপহার।"

তেলবাহী জাহাজ

জ্বালানী জায়ান্ট বিপি অনুসারে, ইরান পেট্রোলিয়াম রফতানিকারক দেশসমূহের সংস্থা (ওপেক) এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। বর্তমানে দেশটিতে ১৫৫.৬ বিলিয়ন ব্যারেলের অপরিশোধিত তেলের মজুদ অনুমান করা হয়েছে। যা মোট সংরক্ষণাগারে প্রায় ৩৪% যোগান দিবে।

ইউএস এনার্জি ইনফরমেশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (ইআইএ) ইরানকে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম তেল সংরক্ষণের ধারক এবং গ্যাস মজুতের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধারক হিসেবে স্থান দিয়েছে।

ইরানের প্রেসিডেন্ট বলেন, ইরানের তেল উত্তোলন যদি মাত্র ১ শতাংশ বৃদ্ধি পায় তাহলে তেলের রাজস্ব বেড়ে দাঁড়াবে ৩২ বিলিয়ন ডলার। শাস্তিমূলক নিষেধাজ্ঞার পরেও ইরান ধীরে ধীরে সফল হচ্ছে।

 যুক্তরাষ্ট্রের শাস্তিমূলক নিষেধাজ্ঞার পর বিদেশে তেল বিক্রিতে বাধার মুখে পড়েছে ইরান। ২০১৫ সালে ইরানের সঙ্গে ছয় পরাশক্তির স্বাক্ষরিত পারমাণবিক চুক্তি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্র এই নিষেধাজ্ঞা জারি করে।

মধ্যাঞ্চলীয় শহর ইয়াজাদে দেয়া ভাষণে রুহানি যুক্তরাষ্ট্রের সমালোচনা করে বলেন, হোয়াইট হাউসকে আমি বলছি, আপনার যখন ইরানের তেল, ইরানের শ্রমিক ওপ্রকৌশলীদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছেন আমরা তখনো ৫ হাজার ৩শ কোটি ব্যারেলের তেলক্ষেত্র আবিষ্কার করতে সক্ষম হয়েছি।

যুক্তরাষ্ট্রের বার্তা সংস্থা এপি’র খবরে বলা হয়েছে, বিশ্বের অন্যতম তেল উৎপাদনকারী দেশ ইরান। দেশটিতে প্রতি বছর বিলিয়ন ডলার আয় হয় তেল রফতানি করে। বর্তমানে নতুন আবিষ্কৃত আহবাজ তেলক্ষেত্রে ৬৫ বিলিয়ন ব্যারেল তেল রয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএএইচ