Alexa নজর কাড়তে পারেন যে পাঁচ নারী খেলোয়াড়

অস্ট্রেলিয়ান ওপেন

নজর কাড়তে পারেন যে পাঁচ নারী খেলোয়াড়

স্পোর্টস ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৮:৪৩ ১৬ জানুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১৮:৫৯ ১৬ জানুয়ারি ২০২০

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

বছরের প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম অস্ট্রেলিয়ান ওপেন টেনিস টুর্নামেন্ট মাঠে গড়াবে আগামী সপ্তাহে। সাবেক অস্ট্রেলিয়ান তারকা মার্গারেট কোর্টের সর্বকালের সর্বোচ্চ ২৪টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ের রেকর্ড স্পর্শ করার লক্ষ্যে এবার মেলবোর্ন পার্কে খেলতে নামবেন বিশ্ব নারী টেনিসের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় সেরেনা উইলিয়ামস।

যদিও সেরেনার এই শিরোপা জয়ের মিশনে বেশ কয়েকজন খেলোয়াড় হুমকি হয়ে দেখা দিতে পারে। বিশেষ করে অস্ট্রেলিয়ান নাম্বার ওয়ান অ্যাশলে বার্টিসহ বর্তমান চ্যাম্পিয়ন নাওমি ওসাকার নাম আলোচনায় উঠে এসেছে। তাদের নেতৃত্বে নতুন প্রজন্মের উঠতি তারকারাই সেরেনার জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে আসতে পারেন।

মেলবোর্নে যে পাঁচজন খেলোয়াড়ের ওপর নজর থাকবে :

সেরেনা উইলিয়ামস

ক্যারিয়ারে ২৩টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম শিরোপা জেতার পর প্রায় তিন বছর অতিবাহিত হয়েছে। বিশ্বের সাবেক এই শীর্ষ তারকা কোনো বড় টুর্নামেন্টের শিরোপা জিততে পারেননি। পারফরম্যান্স বিচারে এবারও যে রেকর্ড ২৪তম শিরোপা খুব সহজেই সেরেনার হাতে ধরা দেবে তা বলাটা কঠিন। ২০১৭ সালে বড় বোন ভেনাস উইলিয়ামসকে হারিয়ে সর্বশেষ গ্র্যান্ড স্ল্যাম শিরোপা হিসেবে এই অস্ট্রেলিয়ান ওপেনই জিতেছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের এই টেনিস তারকা। এরপর চারটি স্ল্যাম ফাইনালে তিনি পরাজিত হয়েছেন। আর প্রতিটিতেই একটি সেটও জিততে পারেননি। তারপরেও মেলবোর্নে নারীদের বিভাগে তাকেই সবচেয়ে শক্তিশালী ও ফেবারিট খেলোয়াড় হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

এই নিয়ে ডব্লিউটিএ ট্যুর’র চতুর্থ দশক শুরু করতে যাচ্ছেন ৩৮ বছর বয়সী সেরেনা। গত সপ্তাহে অকল্যান্ডে শিরোপা জয়ের মাধ্যমে মৌসুমটাও দারুণভাবে শুরু করেছেন। ২০১৭ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের পর এটাই তার প্রথম ও ক্যারিয়ারের ৭৩তম শিরোপা।

নাওমি ওসাকা

২২ বছর বয়সী এই জাপানিজ উঠতি তারকা ২০১৯ সালে ক্যারিয়ারের বেশ চড়াই উৎরাই পার করেছেন। গত বছর এই অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের মাধ্যমে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ের কৃতিত্ব দেখিয়েছিলেন ওসাকা। তখন মনে হয়েছিল নারীদের বিভাগে তার রাজত্ব শুরু হতে যাচ্ছে। কিন্তু তারপর থেকে আর কোনো সাফল্য পাননি এই জাপানিজ। উইম্বলডনের প্রথম রাউন্ড থেকে বিদায়ের পর ইউএস ওপেনেও কিছু করতে পারেননি।

বাবা লিওনার্দ ফ্র্যাঙ্কোয়িসকে কোচ হিসেবে পাওয়ার পর জাপান ও চীনে পরপর দুটি শিরোপা জিতে বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে এক নম্বরে উঠে এসেছিলেন। গত ডিসেম্বরে তিনি বেলজিয়ান উইম ফিসেত্তেকে কোচ হিসেবে নিয়োগ দেন। এক বছরের মধ্যে ফিসেত্তে তার চতুর্থ কোচ।

অ্যাশলে বার্টি

মেলবোর্নে স্বাগতিক সমর্থকদের শক্তিশালী সমর্থনের কারণে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে সুষ্পষ্ট ফেবারিট হিসেবেই কোর্টে নামবেন এই মুহূর্তে বিশ্বের এক নম্বর খেরোয়াড় অ্যাশলে বার্টি। ২৩ বছর বয়সী এই অস্ট্রেলিয়ান একবার টেনিস ছেড়ে দিয়ে পেশাদার ক্রিকেটে মনোনিবেশ করেছিলেন। কিন্তু আবারো কোর্টে ফিরে এসে নিজেকে দারুনভাবে প্রমাণ করেন। গত বছর ক্যারিয়ারের প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম ফ্রেঞ্চ ওপেনেরও শিরোপা জয় করেন। জুনে তিনি ডব্লিউটিএ র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে উন্নীত হন এবং তারপর থেকে সেই স্থানই ধরে রেখেছেন। বছরের সর্বশেষ টুর্নামেন্টে ডব্লিউটিএ ফাইনালেও তিনি শিরোপা জিতেছেন। তবে গত বছর যুক্তরাষ্ট্রের বাছাই খেলোয়াড় জেনিফার ব্রাডির কাছে ব্রিসবেনে বছরের প্রথম ম্যাচেই পরাজিত হয়ে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের আগে কিছুটা হলেও আত্মবিশ্বাস হারিয়েছেন।

সিমোনা হালেপ

২৮ বছর বয়সী এই রোমানিয়ান তারকা পিঠের ইনজুরি কাটিয়ে নিজেকে ফিট প্রমাণে কোর্টে নামবেন। সাবেক এই শীর্ষ তারকা ও দুইবারের গ্র্যান্ড স্ল্যাম চ্যাম্পিয়ন গত বছর উইম্বলডনের ফাইনালে সেরেনাকে ৬-২, ৬-২ গেমে পরাজিত করে শিরোপা জিতেছিলেন। কিন্তু পিঠের ইনজুরির কারণে বছরের শেষটা মোটেই ভাল যায়নি হালেপের। এর আগেও এই একই ইনজুরির কারণে তার ক্যারিয়ার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ডিসেম্বরে তিনি টানা তৃতীয়বারের মত ডব্লিউটিএ ফ্যান ফেবারিট হিসেবে নির্বাচিত হন।

কোকো গফ

মাত্র ১৫ বছর বয়সী যুক্তরাষ্ট্রের এই টিনএজ তারকা গত বছর উইম্বলডনের প্রথম রাউন্ডে পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন ভেনাস উইলিয়ামসকে পরাজিত করে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন। তবে এই জয়টা যে মোটেই অপ্রত্যাশিত ছিল না তা গফ পরের টুর্নামেন্টেই প্রমাণ করেছেন। ইউএস ওপেনের তৃতীয় রাউন্ডের পরে তিনি লিনজ টুর্নামেন্টে জয়ের মাধ্যমে ক্যারিয়ারের প্রথম শিরোপা লাভ করেন। ২০১৮ সালের পর তিনি বিশ্বের ৬৮৬তম খেলোয়াড় ছিলেন। কিন্তু এক বছরের মধ্যে র‌্যাঙ্কিং অবস্থান ৬৮’তে উন্নীত করেন। এবারের অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে এই খেলোয়াড়কে নিয়ে অনেকেই বড় কিছুই প্রত্যাশা করছেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এম/আরএস