Alexa নগ্ন হয়ে হাঁটায় রয়েছে বৈধতা!

নগ্ন হয়ে হাঁটায় রয়েছে বৈধতা!

খালিদ মাহমুদ খান ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১১:২৪ ৩ জুলাই ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

রাজনীতি থেকে সরকার আর এই সরকারই হলো যেকোনো দেশের প্রধান নীতিনির্ধারক। সরকার দ্বারা নির্ধারিত আইন এবং আইনের অনুশাসন দিয়েই একটি দেশ চলে। রীতিনীতি, প্রথা এসব সামাজিক অনুষঙ্গও মাঝে মাঝে আইন হয়ে যায়। যেগুলো মান্য করা নির্দিষ্ট কোনো দেশের নাগরিকের জন্য কিছুক্ষেত্রে অসুবিধার হলেও তা মানতেই হয়। তাহলে চলুন জেনে আসি এমন পাঁচটি অদ্ভুত আইন সম্পর্কে-

৫. সুইজারল্যান্ডে নগ্ন হয়ে হাঁটা
শিল্প,সংস্কৃতি এবং ঐতিহ্যের দেশ সুইজারল্যান্ডে নগ্ন হয়ে হাঁটা আইনত বৈধ। তবে যদি কেউ সমুদ্র বা পাহাড়ে হাইকিং এ বের হয় তাহলে সেখানে নগ্ন হয়েই যে কেউ হাঁটতে পারবে। এদেশে এসব জায়গায় নগ্ন হওয়ার বিরুদ্ধে কোনো আইন নেই। যেকোনো মানুষ যদি তার পরিবার নিয়ে পাহাড়ে ঘুরতে যায় আর হঠাৎ করে দেখে নগ্ন মানুষ চারপাশ দিয়ে ঘোরাঘুরি করছে তাহলে সেই পরিবারটি কি পরিমাণ লজ্জায় পড়বে! সাধারণত নগ্ন হাইকারদের উদ্ভট ধরনের চলাফেরায় লজ্জা পায় সাধারণ মানুষেরাই। আপত্তিকর এই আইনটি শুধুমাত্র সুইজারল্যান্ডের অ্যাপেনজেল নামক শহরেই বর্তমানে বন্ধ রয়েছে। বাকি সব শহরগুলো এই রীতির মধ্যেই রয়েছে। 

৪. জাপানে মোটা হওয়া নিষিদ্ধ
জাপানের মানুষ ভৌগলিক এবং ঐতিহ্যগতভাবেই প্রচুর কর্মঠ এবং ধৈর্য্যশীল হয়। কোনো মানুষ যেন অলস হয়ে যেতে না পারে তাই জাপানে মোটা হওয়া নিষিদ্ধ করে দেয়া হয়েছে। জাপানে বসবসকারী মানুষরা কোনোভাবে মোটা হয়ে গেলে সামাজিক এবং প্রশাসনিকভাবে বেশ ঝামেলা পোহাতে হয়। জাপানে একজন মহিলার কোমরের সর্বোচ্চ মাপ ৩৫ ইঞ্চি এবং অবাক করা ব্যাপার এটি যে জাপানে পুরুষের সর্বোচ্চ কোমরের মাপ মহিলাদের চেয়েও কম যা কিনা ৩৩ ইঞ্চি। সত্যিই অদ্ভুত।  

৩. সিঙ্গাপুরে চুইংগাম খাওয়া নিষিদ্ধ
সিঙ্গাপুরে চুইংগাম খুঁজে পাওয়া আর মরুভূমির মাঝে পানি খুঁজে পাওয়া একই রকম। সিঙ্গাপুরের কোথাও একটি মাত্রও চুইংগাম পাওয়া যায় না। বস্তুত সিঙ্গাপুরে চুইংগাম খাওয়া আইনত নিষিদ্ধ। তবুও কেউ যদি চুইংগাম কিংবা মিন্টগাম কোথাও থেকে নিয়ে এসে সিঙ্গাপুরে চিবান আর যদি হাতেনাতে ধরা পড়েন তাহলে পুলিশি হেনস্তা থেকে রেহাই নেই। ১৯৯২ সালে সিঙ্গাপুরে আইন করে নিষিদ্ধ করা হয়। চুইংগাম চিবানো তবে কোনো পর্যটক যদি সিঙ্গাপুরে আসে আর সাথে করে চুইংগাম আনতে চায় তাহলে তারও রয়েছে নির্দিষ্ট নিয়ম। 

আর সে নিয়ম না মানলে সেই বিদেশীকে ‘চুইংগাম স্মাগলিং’ আইনে ফেঁসে যেতে হবে। একসময় চুইংগাম এর চিবানো অংশ দিয়েই সিঙ্গাপুরের রাস্তাঘাট অপরিচ্ছন্ন হয়ে যেতো আর সেগুলো পরিষ্কার করাতে স্থানীয় সরকার কিংবা কেন্দ্রীয় সরকারকে কম দূর্ভোগ পোহাতে হয় নি। অতঃপর এই দূর্ভোগ থেকে বাঁচতে সিঙ্গাপুরের সরকার চুইংগামই নিষিদ্ধ করে দেয় এবং কেউ যদি অবাধ্য হয়েও চুইংগাম চিবায় তবে তাকে গুনতে হবে মোটা অঙ্কের জরিমানা। 

২. থাইল্যান্ডে টাকার উপর পা দেয়া নিষিদ্ধ
শ্বেত হাতির দেশ হিসেবে পরিচিত থাইল্যান্ডে টাকার উপর দিয়ে হাঁটা কিংবা টাকার উপরে পা রাখা তাদের আইনের পরিপন্থী একটি কাজ। এইরকম অদ্ভুত আইন প্রণয়নের পেছনে রয়েছে অনেকগুলো কারণ। তারা মনে করে টাকার উপর পা মাড়ানো তাদের প্রেসিডেন্টের সন্মানের সাথে সাংঘর্ষিক, কারণ টাকার উপরেই যে প্রেসিডেন্টের ছবি থাকে। আর যদি কোনো থাই নাগরিক কাউকে এমনটা করতে দেখে তাহলে তার সামাজিকভাবে হেনস্তা করা হবেই। এমনকি পুলিশের কাছে সোপর্দও করা হতে পারে আর স্বয়ং পুলিশ দেখলে তো কারাবরণ এক প্রকার নিশ্চিত।  

১. স্ত্রীর জন্মদিন ভুলে যাওয়া অপরাধ
স্ত্রীর জন্মদিন প্রত্যেক স্বামীর কাছেই এক আনন্দঘন দিন তাই বলেই তো কত ঘটা করে কত বিচিত্র সব পদ্ধতিতে স্বামীরা স্ত্রীর জন্মদিন বিশ্বব্যাপী পালন করে থাকে। তবে এটি যে বাধ্যতামূলক একটি কাজ তাও নয়। অনেক সমাজ কিংবা পরিবারে এসব রেওয়াজ নেই। কিন্তু সত্যিই জেনে অদ্ভুত মনে হয় ‘সামোয়া’ নামক দেশে স্ত্রীর জন্মদিন যদি স্বামী ভুলে যায় তাহলে স্ত্রী গ্রামের হর্তাকর্তাদের বলে দেয় এবং স্বামীকেও যেতে হয় সালিশের মধ্য দিয়ে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস