ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিলো ছাত্রলীগ, কৃষকের মুখে হাসি

ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিলো ছাত্রলীগ, কৃষকের মুখে হাসি

রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৯:১২ ২৪ এপ্রিল ২০২০   আপডেট: ১৯:১৯ ২৪ এপ্রিল ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতিতে শ্রমিক না পেয়ে বিপাকে পড়া কৃষকদের পাকা ধান কেটে বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দিয়েছেন লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলা ছাত্রলীগের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী।

শুক্রবার সকালে বামানী ইউপির সাইছা গ্রামের মুন্সি বাড়ির কৃষক মাকিন মিয়ার ১৮ শতাংশ ও কাঞ্চপুর গ্রামের নুরুল হুদার ২৮ শতাংশ জমির পাকা ধান কেটে পৌঁছে দেয়া হয়েছে। প্রায় ২৫ নেতাকর্মী এ ধান কাটায় অংশ নেন।

উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি পাপেল মাহমুদ ও সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী কাউছার হোসেনের নেতৃত্বে এ ধানকাটার কর্মসূচি চলছে।

কৃষক মাকিন মিয়ার মিয়া ও নুরুল হুদা জানান, করোনাভাইরাসের কারণে ধান কাটতে কোনো শ্রমিক না পাওয়ায় তারা চিন্তিত ছিলেন, এ মুহূর্তে ছাত্রলীগ তাদের ধান কেটে দেয়ায় অনেক উপকার হয়েছে।

স্থানীয় কৃষকরা জানান, এভাবে একজনের পাশে আরেকজন এগিয়ে আসলে তদের কষ্ট থাকবে না।

উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি পাপেল মাহমুদ বলেন, যেসব কৃষকরা শ্রমিক না পেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন, আমরা ধারাবাহিকভাবে আগে তাদের ধান কেটে বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দিচ্ছি। সকালে ১০ থেকে ১২ জন কর্মী নিয়ে বামনী ইউপির কাঞ্চপুর গ্রামের নুরুল হুদার ২৮ শতাংশ জমির পাকা ধান কেটে ওই কৃষকের বাড়িতে পৌঁছে দিয়েছি। কোনো কৃষকের পাকা ধান শ্রমিকের অভাবে কাটতে না পারলে আমাদের ছাত্রলীগকে খবর দিলে তারা বিনা পারিশ্রমিকেই ধান কেটে ঘরে তুলে দিয়ে আসবে।  

সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী কাউছার বলেন, কৃষকরা ধান কাটার শ্রমিক পাচ্ছিল না। বিষয়টি আমাদের নজরে আসার সঙ্গে সঙ্গে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে এগিয়েছি। এছাড়া প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ও জেলা ছাত্রলীগের নির্দেশনা ছিল কৃষকের পাশে দাঁড়ানোর। আমরা তাৎক্ষণিকভাবে ছাত্রলীগের ১০-১৫ নেতা-কর্মী গিয়ে কৃষকের পাকা ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দেই। এতে কৃষক মানিক মিয়ার মুখে আমরা স্বস্তির হাসি দেখেছি।

 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ