Alexa ধান নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে সংঘর্ষ, আহত ১০

ধান নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে সংঘর্ষ, আহত ১০

লালমনিরহাট প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৭:২৫ ১১ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ২২:৫৫ ১১ নভেম্বর ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় ধান কাটাকে কেন্দ্র করে উভয়পক্ষের সংঘর্ষে আহত হয়েছেন ১০ জন।

আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয় হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও আশঙ্কাজনক অবস্থায় তিনজনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এর আগে গত শুক্রবার দুপুরে উপজেলার বড়খাতা ইউপির পূর্ব সারডুবী গ্রামে ধনীটারী এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। রোববার (১১ নভেম্বর) দুপুরে পাঁচজনকে গ্রেফতারের বিষয়টি ডেইলি বাংলাদেশকে নিশ্চিত করেছেন হাতীবান্ধা থানার ওসি ওমর ফারুক।

গ্রেফতাররা হলেন- সাইদুল ইসলাম, ইউনুছ আলী, আব্দুর রহমান, মাহাবুর রহমান ও নুর ইসলাম।

আহতরা হলেন- মাহামুদ হাসান লাবু, সাইফুল ইসলাম শাকিল, আবু সাঈদ, হাফিজুল ইসলাম, ভ্যানচালক কালাম হোসেন, বাবুল হোসেন। বাকিদের নাম জানা যায়নি। 

ওসি ওমর ফারুক জানান, গত শুক্রবার উপজেলার পূর্ব সারডুবী গ্রামের আফজাল মোক্তারের ছেলে আবু সাঈদ নিজস্ব জমিতে তার ছেলে, ভাইকে নিয়ে ক্ষেতের পাকা ধান কাটার পর তা নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। 

এ সময় পথে ওই এলাকার রহমান খানের ছেলে সহিদুল ইসলাম ওই জমি তার নিজের দাবি করে লোকজন নিয়ে আবু সাঈদ, তার ছেলে, ভাই ও চাচাকে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মারধর ও পাথর নিক্ষেপ করে আহত করেন। বাবা আবু সাঈদকে বাঁচাতে গেলে তার ছেলে সাইফুল ইসলাম শাকিলকে কুপিয়ে জখম করেন। আহত অবস্থায় তাদের হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তিনজনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এ ঘটনায় আবু সাঈদ বাদী হয়ে সাইদুল ইসলামসহ নয়জনের নাম উল্লেখ করে গত রোববার (১১ নভেম্বর) সকালে হাতীবান্ধা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করলে দুপুরে পাঁচজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

সাইদুল ইসলামের ছেলে হাফিজুল ইসলাম ডেইলি বাংলাদেশকে জানান, ধানকাটা নিয়ে সংঘর্ষ হয়েছে। আমাদের জমিতে ধান কাটতে গেলে তারা বিভিন্নভাবে নিয়ে আমাদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। হামলার একপর্যায়ে আমি অচেতন হয়ে পড়ি। পরে জ্ঞান ফিরলে নিজেকে হাসপাতালের বেডে দেখতে পাই। তিনি বর্তমানে অসুস্থ তাই এ ব্যাপারে পরে বিস্তারিত জানাবেন।

গ্রেফতার পাঁচজনকে করে সোমবার বিকেলে আদালতের মাধ্যমে জেল-হাজতে পাঠানো হবে জানিয়েছেন ওসি ওমর ফারুক। 

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম