Alexa দ্বিতীয় স্বীকারোক্তি দিলেন জিয়ন

আবরার হত্যা

দ্বিতীয় স্বীকারোক্তি দিলেন জিয়ন

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২০:১০ ১১ অক্টোবর ২০১৯   আপডেট: ২০:১২ ১১ অক্টোবর ২০১৯

আসামি মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন

আসামি মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন

আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন আরেক আসামি মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন। এর আগে প্রথম স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন বুয়েটের বায়ো মেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ইফতি মোশাররফ সকাল।

বু‌য়েট শাখা ছাত্রলী‌গের বহিষ্কৃত উপ-ক্রীড়া সম্পাদক জিয়নকে রিমান্ড শেষে শুক্রবার ঢাকার মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। বিচারিক মো. সারাফুজ্জামান আনসারী তার  জবানব‌ন্দি নথিভুক্ত করেন।

বুয়েটের মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের পঞ্চদশ ব্যাচের ছাত্র জিয়ন হাকিমের কাছে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বলে পুলিশের অপরাধ তথ্য ও প্রসিকিউশন বিভাগের দফতর থেকে জানানো হয়।

গত রোববার রাতে বুয়েটের শেরে বাংলা হলের আবাসিক ছাত্র ও তড়িৎ কৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবরারকে নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করা হয়।

এ ঘটনায় পরদিন ১০ জনকে গ্রেফতার করা হয়, এদের একজন জিয়ন। ওই ১০ জনকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে গত ৮ অক্টোবর থেকে জিজ্ঞাসাবাদ করছিলো পুলিশ।

তাদের মধ্যে বায়ো মেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ইফতি মোশাররফ সকাল বৃহস্পতিবার প্রথম স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

আবরারকে কীভাবে ক্রিকেট স্টাম্প আর স্কিপিং রোপ দিয়ে কয়েক ঘণ্টা ধরে বেধড়ক পেটানো হয়েছিল, সেই ভয়ঙ্কর বিবরণ এসেছে বায়ো মেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র সকালের জবানবন্দিতে।

এখন পর্যন্ত এ মামলায় মোট ১৭ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে, যাদের মধ্যে আবরারের রুমমেট মো. মিজানুর রহমানও রয়েছে।

ওয়াটার রিসোর্সেস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র মিজানকে শুক্রবার আদালতে হাজির করা হলে মহানগর হাকিম মো. সারাফুজ্জামান আনসারী তাকে কারাগারে পাঠানো আদেশ দেন। পুলিশের পক্ষ থেকে তাকে রিমান্ডে নেয়ার কোনো আবেদন করা হয়নি।

আবরারের বাবার করা হত্যা মামলায় ১৯ জনের মধ্যে মিজানের নাম ছিল না। তবে তদন্তে হত্যাকাণ্ডে সংশ্লিষ্টতার তথ্য পাওয়ায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআরকে