103501 দৈত্যাকৃতির মুক্তা ‘গিগা পার্ল’! 
Best Electronics

দৈত্যাকৃতির মুক্তা ‘গিগা পার্ল’! 

জান্নাতুল মাওয়া সুইটি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:৫০ ৯ মে ২০১৯   আপডেট: ১২:৩৬ ১০ মে ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

একটি মুক্তার ওজন কতটুকুই বা হতে পারে! তবে আপনার ধারনা যতটুকুই হোক না কেন তার চেয়েও দ্বিগুণ ওজনের মুক্তার সন্ধান মিলেছে। ধারনা করা হচ্ছে, এটিই সম্ভবত পৃথিবীর সবচেয়ে বড় প্রাকৃতিক মুক্তা। এর নাম দেয়া হয়েছে গিগা পার্ল। আব্রাহাম রেয়েস নামক এক কানাডিয়ান ব্যক্তি এই মুক্তার খোঁজ পেয়েছেন। মুক্তাটি ২৬ দশমিক ৬৫ কিলোগ্রাম, যা লাউ-তেজু পার্লের ওজনের চেয়ে চারগুণ ওজনের। 

ক্রিম-রঙের দৈতাকৃতির এই মুক্তাটি আনুমানিক এক হাজার বছর বয়সী বলে ধারনা করা হয়েছে। এটি একটি দৈত্যকৃতির ২২ ক্যারেটের সোনার অক্টোপাসের মধ্যে লুকানো ছিল যেটি রেয়াসের পিতামহ ১৯৫২ সালে তার খালার জন্য উপহার হিসেবে একটি ফিলিপিন্স জেলের কাছ থেকৈ মুক্তাটি কিনেছিলেন। তবে এতো দিনেও রেয়াসের পরিবার এর মহাত্ম্য বুঝতে পারেনি। ‘কেউই এটার দিকে তাকায়নি। কারণ এটি কোনো দিক দিয়েই একটি মুক্তার ন্যয় দেখায় নি।’ রেইস সিবিসিকে বলেন।

২০১৬ সালে যখন তার খালা বাড়ি থেকে বিভিন্ন মালামাল বের করেন তখনই মুক্তাটি রেয়েসের দৃষ্টিগোচর হয় এবং তিনি তা সংগ্রহ করে গুড নিউজ নেটওয়ার্ক রিপোর্ট করেন। ৩৪ বছর বয়সী রেয়েস সম্প্রতি ভূতাত্ত্বিক বিশেষজ্ঞদের দ্বারা এর পরীক্ষা করেছেন। যার আনুমানিক মূল্য ৬০ থেকে ৯০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

গিগা পার্ল এখন ২২ ক্যারেট সোনার অক্টোপাসের মধ্যে বিশ্রাম নিয়েছে যা মিঃ রেয়েস বিশেষভাবে এটি ধারণ করার জন্য কমিশন করেছিলেন। মুক্তার বিক্রি করার পরিবর্তে, তিনি বিভিন্ন জাদুঘর এবং গ্যালারিগুলোতে প্রদর্শনের মাধ্যমে তার সৌন্দর্যকে বিশ্বের সবার সঙ্গে ভাগ করতে চান। তার মতে, ‘বিশ্বের মানুষের জানা উচিত এই প্রকান্ড মুক্তার বিষয়ে। সবাই এটিকে আগ্রহ সহকারে দেখতে উৎসুক হোক এটি আমার কাম্য।’ 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস

Best Electronics