Alexa দেশ গড়ার কাজে তরুণদের নেতৃত্ব দিতে হবে: রাষ্ট্রপতি

দেশ গড়ার কাজে তরুণদের নেতৃত্ব দিতে হবে: রাষ্ট্রপতি

প্রকাশিত: ১৪:৩৭ ৬ অক্টোবর ২০১৮   আপডেট: ১৭:২৫ ৬ অক্টোবর ২০১৮

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ৫১তম সমাবর্তনে যোগ দিয়ে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বলেছেন, দেশ গড়ার কাজে তরুণদের নেতৃত্ব দিতে হবে।

শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫১তম সমাবর্তনে সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। 

রাষ্ট্রপতি আরো বলেন,  ডিপ্লোমা ও সান্ধ্যকালীন কোর্সের নামে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রি প্রদান লেখাপড়ার পরিবেশ বিঘ্নিত করছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে আহ্বান জানান।

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে এই সমাবর্তন অনুষ্ঠান শুরু হয়। এতে অংশ নেন প্রায় ২১ হাজার ১১১ জন স্নাতক সম্পন্নকারী শিক্ষার্থী। সমাবর্তন বক্তা হিসেবে রয়েছেন- জাতীয় অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান।

রাষ্ট্রপতি বলেন, দেশ গড়ার কাজে নবীন গ্রাজুয়েটদের নেতৃত্ব দিতে হবে। অতীতেও এই বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে দেশের সব আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। স্বাধীনতার পর দেশ গড়ার দায়িত্ব অনেকাংশে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওপর ছিলো। এই বিশ্ববিদ্যালয় সব সময় কাণ্ডারীর ভূমিকা পালন করেছে।

আবদুল হামিদ বলেন, বিশ্বমানের মানব সম্পদ তৈরির নতুন চিন্তা, গবেষণা ও উদ্ভাবনী এবং আত্মনিয়োগ করার ফলপ্রসু অশংগ্রহণ করা এখন বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য চ্যালেঞ্জ। নানা প্রতিকূলতায়ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনেক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সফল হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, গ্রাজুয়েটরা আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও নানা ভূমিকা রেখে যাচ্ছে। তাই দেশের উন্নয়নে তাদের কাছে জনগণের প্রত্যাশা বেশি। এ সময় অপ্রয়োজনীয় বা কম গুরুত্বপূর্ণ বিভাগগুলোকে ঢেলে সাজানোর কথাও বলেন রাষ্ট্রপতি।

রাষ্ট্রপতি আরো বলেন, এই সংযোজন, বিয়োজন বা সম্প্রসারণ কোনটাই যেন নির্দিষ্ট ব্যক্তি বা কতিপয় লোকের স্বার্থে না হয়।

সভাপতির বক্তব্যে রাষ্ট্রপতি বলেন, রাজনীতি এখন গরিবের ভাউজ। গ্রামের ভাষায় ভাউজ হচ্ছে ভাবি। গরিবের বউ হচ্ছে সবার ভাবি। এখন রাজনীতিও তেমন। যে কেউ চাইলেই রাজনীতিতে আসতে পারছে। কিন্তু অন্য পেশায় কেউ চাইলেই যেতে পারে না।

তিনি বলেন, অনেক ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, অবসরপ্রাপ্ত সেনাকর্মকতা, পুলিশ কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী দীর্ঘদিন পেশার সঙ্গে যুক্ত থেকে পরে এসে রাজনীতিতে যুক্ত হন। দেশের রাজনীতিতে নানা সংকটের এটা একটা বড় কারণ। এ ধরনের রাজনীতি অনেকটা উড়ে এসে জুড়ে বসার মতো। 

এ সময় রাজনীতিতে আসার আগ্রহ থাকলে বিভিন্ন পেশায় না ঢুকে ছাত্রাবস্থাতেই রাজনীতিতে আসার পরামর্শ দেন রাষ্ট্রপতি। তিনি ছাত্র সংসদ নির্বাচনেরও গুরুত্বারোপ করেন।

অধিভুক্ত সাত কলেজের রেজিস্ট্রেশনকৃত গ্র্যাজুয়েটরা ডিজিটাল প্রযুক্তির মাধ্যমে ঢাকা কলেজ ও ইডেন মহিলা কলেজ ভেন্যু থেকে সরাসরি সমাবর্তন অনুষ্ঠানে অংশ নেন। সমাবর্তনে কৃর্তী শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের ৯৬টি স্বর্ণপদক, ৮১ জনকে পিএইচডি এবং ২৭ জনকে এমফিল ডিগ্রি প্রদান করা হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআরকে/এলকে/আরআই