Alexa দেশে চালু আছে মাত্র ১১০টি হল!

দেশে চালু আছে মাত্র ১১০টি হল!

বিনোদন প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:১৪ ১২ ডিসেম্বর ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

একটা সময় ছিল মানুষের অন্যতম বিনোদনের মাধ্যম ছিল সিনেমা হল। যেকোনো উৎসব কিংবা ছুটির দিনে মানুষের আহগ্র ছিল হলে গিয়ে নতুন সিনেমা দেখার। সামাজিক গল্পের সিনেমা হলে পরিবারের সবাই একসঙ্গে সিনেমা হলে যেত। এমনও হতো হলের টিকেট পাওয়া যেত না। সেসব আজ অতীত, অনেকের কাছে কল্পনার মতো। কল্পনা বা স্বপ্নরে মতো লাগলেও এটাই সত্য যে দুই যুগের ব্যবধানে দেশে বন্ধ গেছে ১২০০-এর ওপরে সিনেমা হল। যে পরিমাণ সিনেমা হল বন্ধ হয়েছে তার সিকি শতাংশও নির্মাণ হয়নি। কিছু আধুনিক সিনেপ্লেক্স তৈরি হলেও সেটা তুলনামূলক অনেককম। 

হল মালিক সমিতি থেকে পাওয়া তথ্য মতে, দেশে নব্বই দশকে  ১ হাজার ৪৩৫টি সিনেমা হল ছিল। সেখান থেকে বর্তমানে হলের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৭০টি। বন্ধ হয়ে গেছে ১২৬৫টি সিনেমা হল। চালু থাকা ১৭০টির ভেতর নিয়মিত সিনেমা প্রদর্শন হয় ১১০টি সিনেমা হল। বাকি ৬০টিতে অনিয়মিতভাবে সিনেমা প্রদর্শিত হয়। 

চলতি বছরে সর্বশেষ রাজধানীর ঢাকার ‘রাজমণি’ সিনেমা হল বন্ধ হয়ে গেছে। এর আগে রাজধানীর মধ্যে থাকা মুন, স্টার, আরমানিটোলার শাবিস্তান, এলিফ্যান্ট রোডের মল্লিকা, বাসাবোর অতিথি, আগমন, ইসলামপুরের লায়ন, চকবাজারের তাজমহল, পোস্তগোলার মেঘনা, যমুনা, ডায়না, কারওয়ান বাজারের পূর্ণিমার মতো হলগুলোও বন্ধ হয়ে গেছে। 

এ ছাড়া ঢাকার বাইরে এমন শহরও আছে যেখানে কোনো সিনেমা হল নেই। রাজশাহী শহরে একটি সিনেমা হলও নেই! গত বছরই বন্ধ হয়ে গেছে ‍ধুঁকে ধুঁকে টিকে থাকা এই শহরের শেষ সিনেমা হলটিও। পর্যটন নগরী কক্সবাজার শহরে বিনোদনের জন্য একটিও সিনেমা হল নেই। আগে কক্সবাজার পৌরসভায় দুটি সিনেমা হল ছিল। পর্যটনের জন্য প্রসিদ্ধ আরেক জেলা রাঙামাটি শহরেও নেই কোনো সিনেমা হল। একই অবস্থা নরসিংদী জেলা শহরেও। সেখানে তিনটি সিনেমা হলের মধ্যে বর্তমানে একটিও চালু নেই। এক সময় ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরে তিনটি সিনেমা হল থাকলেও এখন সব কটিই বন্ধ। এছাড়া কোনো সিনেমা হল নেই ঝালকাঠি, নড়াইল, পঞ্চগড় ও মুন্সিগঞ্জ জেলা শহরেও।

বরিশাল, কীর্তনখোলা নদীর তীরে অবস্থিত দেশের অন্যতম একটি শিক্ষা সাংস্কৃতিক চর্চার শহর হিসেবে পরিচিত। ছোট এই শহরটিতে এক সময় সিনেমা হল ছিল চারটি। যেখানে বর্তমানে টিকে রয়েছে মাত্র একটি হল। যশোরে ২১টি সিনেমা হল থেকে কমতে কমতে এখন মাত্র দুটি চালু আছে। খুলনায় সিনেমা হল ছিল ১১টি। এখন আছে তিনটি। টাংগাইলে একটা সময় ২০টির মতো সিনেমা হল থাকলে বর্তমানে চালু রয়েছে মাত্র দুটি। এমন চিত্র শুধু রাজশাহী, কক্সবাজার, যশোর, খুলনা কিংবা বরিশালের না, রাজধানী কিংবা এর বাইরে সব জায়গাতেই প্রায় একই চিত্র।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনএ