Alexa ‘দুর্নীতি-জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়িত হচ্ছে’

‘দুর্নীতি-জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়িত হচ্ছে’

নওগাঁ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৭:২৭ ২১ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১৭:৩১ ২১ নভেম্বর ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেছেন, দুর্নীতি ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়িত হচ্ছে। তিনি বলেন, মাদক মারাত্মকভাবে সমাজকে ধ্বংস করছে। কাজেই মাদকের কড়াল গ্রাস থেকে দেশকে রক্ষা করতে এসব প্রতিরোধের ওপর বিশেষ গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নওগাঁ ব্যাটালিয়ন ১৬ বিজিবি’র প্যারেড গ্রাউন্ডে ১ বিজিবি ও ১৬ বিজিবি কর্তৃক বিভিন্ন সময়ে আটককৃত মাদকদ্রব্য ধ্বংস অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, আজকের যুবকরা আগামী দিনের দেশ নায়ক। তারাই আগামীতে বিভিন্নভাবে দেশের নেতৃত্ব দেবেন। কাজেই বাংলাদেশকে মাদকের কড়াল গ্রাস থেকে মুক্ত করে এই যুব শক্তিকে নির্মল এবং মেধাবী হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। 

তিনি বলেন, দেশের অধিকাংশ ছাত্রছাত্রী, কিশোর এবং যুবকরা মোবাইল ব্যবহরা করে। ফেসবুক, ম্যাসেঞ্জার ইত্যাদি মাধ্যমে প্রত্যেকে যদি প্রতিদিন মাদকের বিরুদ্ধে ঘৃণা প্রকাশ করে স্ট্যাটাস দিলে আপনাতেই মাদকের বিরুদ্ধে একটি সামাজিক আন্দোলন গড়ে উঠবে। কারণ মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন ছাড়া এই ভয়াল ব্যাধি থেকে আমাদের নিস্তার নাই।

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, শুধু দায়িত্ব ও কর্তব্য পালন না, মাদকের বিরুদ্ধে কাজ করার ইচ্ছা শক্তিও থাকতে হবে। নওগাঁর সীমান্তে ভারতের ৫টি চৌকি আছে। আর আমাদের বিজিবি সদস্যরা অন্ধকারে জঙ্গল ও পানির ভিতর দিয়ে যাতায়াত করতে হয়। সীমান্তে বিজিবিদের যাতায়াতদের সুবিধা ও আলোকিত করতে সোলার সিস্টেমের ব্যবস্থার জন্য প্রজেক্ট পাঠানো হয়েছে। যাতে সীমান্তে মাদক ও চোরাচালান কমে যায়।

অনুষ্ঠান শেষে আটককৃত মাদকদ্রব্য ধ্বংস শুরু করেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার - ডেইলি বাংলাদেশ

অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের উদ্যেশে তিনি বলেন, যারা মাদক ব্যবসায়ী তারা মাদক ছেড়ে দেন। নিজের বাড়িটা সামালান। সন্তানরা মাদকের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে কিনা তা খেয়াল রাখুন। শিক্ষার্থীরা দেশের ভবিষ্যত। একদিন তোমাদেরকে দায়িত্ব নিতে হবে। তাই এখন থেকে মাদককে ‘না’।

বিজিবি রাজশাহী’র সেক্টর কমান্ডার কর্ণেল তুহিন মোহাম্মদ মাসুদ বিপিএমজি’র সভাপতিত্বে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে নওগাঁ ব্যাটালিয়ন ১৬ বিজিবি’র অধিনায়ক লেঃ কর্নেল আরিফুল ইসলাম, নওগাঁ ব্যাটালিয়ন ১৪ বিজিবি পত্নীতলার অধিনায়ক লেঃ কর্নেল জাহিদ হাসান এবং নওগাঁ’র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফারজানা হোসেন বক্তব্য রাখেন।

কর্ণেল তুহিন মোহাম্মদ মাসুদ বলেন, যারা আমার দেশ ও মানুষের ক্ষতি করতে চাই, তারা আমাদের শত্রু। যারা মাদক দিয়ে সহযোগীতা করছে তারা শত্রুর একটি অংশ। তাদেরকে ঘায়েল করা আমাদের দায়িত্ব। তাদেরকে কোন ছাড় না।

অনুষ্ঠানে ধ্বংসকৃত মাদকদ্রব্যের মধ্যে রয়েছে- ভারতীয় ফেনসিডিল, ভারতীয় মদ, চোলাই মদ, ভারতীয় গাঁজা, ইয়াবা, হেরোইন, ট্যাপেট্টা ট্যাবলেট এবং নেশার ইনজেকশন। এসব মালামালের মূল্য ৭৭ লাখ ৪৬ হাজার ৮৫৫ টাকা।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিআরএইচ