দুর্নীতির অভিযোগে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা দাবি

দুর্নীতির অভিযোগে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা দাবি

জামালপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৮:৪৯ ১২ আগস্ট ২০২০  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার মাহমুদপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে অনাস্থা দাবি জানিয়েছেন নয়জন সদস্য। 

বুধবার দুপুরে জিন্নাহর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে ডিসি মোহাম্মদ এনামুল হকের কাছে লিখিত আবেদন জানিয়েছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ ২০১৬ সালে নির্বাচিত হবার পর নিজস্ব গুন্ডা বাহিনী তৈরি করে এলাকায় রাম রাজত্ব কায়েম করেছেন। অবৈধ অর্থ উপার্জন করে কালো টাকার পাহাড় গড়েছেন। আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে মানুষজনকে বিভিন্ন ভয়ভীতিসহ নির্যাতন করছেন। 

এসব কার্যকলাপে অতিষ্ঠ হয়ে ওই চেয়াম্যানের প্রতি অনাস্থা জানিয়েছেন ওই ইউপির ১, ২ ও ৩ নম্বর ওয়ার্ডের নারী সদস্য মোছা. নুর বাহার, ২ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. রেজাউল করিম, ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. মনোয়ার হোসেন, ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. জসিম উদ্দিন, ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. হানিফ উদ্দিন, ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. মিজানুর রহমান মাজেদ, ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. রেজাউল করিম, ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. আব্দুল হামিদ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. ফজলুল হক।

নয় সদস্যের স্বাক্ষরিত অনাস্থা প্রস্তাবে উল্লেখ করা হয়, মাহমুদপুর বাজারের পুরনো ইউপি ভবনের জায়গায় নির্মিত দোকানপাটের জামানত ও ভাড়া আত্মসাৎ করেছেন ইউপি চেয়ারম্যান। 

এ ছাড়াও তিনি ওই ইউপির ৯টি ওয়ার্ডের হাটবাজারের ট্যাক্স, এলজিএসপি ফান্ডের টাকা, নির্বাচিত ইউপি সদস্যদের সম্মানী ভাতা, শ্রমিকদের একশ দিনের কর্মসূচির টাকা, টিআর কাবিখার টাকাসহ বিভিন্ন প্রজেক্টের নামে টাকা আত্মসাৎ করেছেন।

ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ জানান, তার ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার জন্য এটি একটি চক্রান্ত। তার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ আনা হয়েছে তা সত্য নয়।

ডিসি মোহাম্মদ এনামুল হক জানিয়েছেন, বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে