দিল্লিতে সেনাবাহিনী মোতায়েনের আহ্বান কেজরিওয়ালের

দিল্লিতে সেনাবাহিনী মোতায়েনের আহ্বান কেজরিওয়ালের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:২৯ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১৫:০০ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০

অরবিন্দ কেজরিওয়াল

অরবিন্দ কেজরিওয়াল

দিল্লিতে সহিংসতা রোধে সেনাবাহিনী মোতায়েনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন রাজ্যের মূখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। সেখানে সহিংসতায় এরইমধ্যে একজন পুলিশ কর্মকর্তাসহ ২০জন নিহত হয়েছেন।

বুধবার এক টুইটার বার্তায় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি এ আহ্বান জানিয়ে কেজরিওয়াল বলেন, আমি শহরের সব জায়গার খোঁজ রাখছি। পরিস্থিতি বেশ উদ্বেগজনক। সব ধরণের চেষ্টা চালিয়েও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হয়েছে পুলিশ। আমি মনে করি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে তাৎক্ষণিক সেনাবাহিনী মোতায়েন করা উচিত। এই বিষয়ে আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে লিখছি।

কেজরিওয়ালের টুইটটি

তবে দেশটির গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে ইঙ্গিত দেয়া হচ্ছে যে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সেনাবাহিনী মোতায়েনের পক্ষে নাও থাকতে পারে ভারতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

গত সোমবার থেকে দিল্লির উত্তর- পূর্বাঞ্চলীয় অঞ্চলগুলোতে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের সমর্থনকারী ও বিরোধীদের মধ্যে সহিংসতা চলছে। এ ঘটনায় ২০ জন আহত ছাড়াও আহত হয়েছে প্রায় দেড় শতাধিক। আহতদের মধ্যে এক শিশুও রয়েছে বলে জানা গেছে।

গত দু’দিন ধরে চলমান সহিংসতায় দোকান, ঘরবাড়িসহ ধর্মীয় স্থানগুলোতেও ভাংচুর করা হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত অঞ্চলগুলোর মধ্যে রয়েছে জাফরাবাদ, মৌজপুর, চাদবাগ, কারাওয়াল নগর, গোকুলপুরি, শাহদারা ও ভজনপুর।   

দিল্লির এসব অঞ্চলে কারফিউ জারি করা হয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়া সহিংসতা দেখা মাত্রই গুলির নির্দেশও দেয়া হয়েছে পুলিশ বাহিনীকে। বুধবার দিবাগত রাতের এক শুনানিতে আহতদের চিকিৎসার জন্য নিরাপদ পথ নিশ্চিত করার জন্য পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছে আদালত। এছাড়া আহতদের অবস্থা সম্পর্কে তথ্য ও তাদের চিকিৎসা সহায়তার বিবরণসহ একটি প্রতিবেদন জমা দেয়ার জন্য কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন আদালত। পরিস্থিতি পর্যালোচনা করতে বুধবার স্থানীয় সময় দুপুর সোয়া দুইটায় আদালত আবারো বৈঠক করবেন বলে জানা গেছে।   

মঙ্গলবার গভীর রাতে দিল্লিতে সহিংসতায় ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলো পরিদর্শন করেছেন দেশটির জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল। এরপর তিনি শীর্ষ পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গেও দেখা করেন। এছাড়া রাজধানীর হিংসাত্মক পরিস্থিতি পর্যালোচনার জন্য বৈঠক করেছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার সদস্যরা।

এদিকে, ওইদিন রাতে মূখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের বাসভবনে জড়ো হয় বিক্ষোভকারীরা। তাদের ছত্রভঙ্গ করতে জলকামান ব্যবহার করে পুলিশ।  

সূত্র- হিন্দুস্তান টাইমস, কারৎজ ইন্ডিয়া

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএমএফ/মাহাদী