Alexa তিন মাসের শিশু পুকুরে ডুবে মারা গেল কীভাবে!

তিন মাসের শিশু পুকুরে ডুবে মারা গেল কীভাবে!

নাটোর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১০:৪১ ২৬ জানুয়ারি ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার জামনগর ইউপির বজরাপুর গ্রামে পুকুর থেকে তানজিলা খাতুন টিয়া নামের তিন মাসের এক শিশুকন্যার মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

শনিবার (২৫ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় বজরাপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। শিশুটির মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এরমধ্যে শিশুটির মৃত্যু নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। শিশুটির মৃত্যুর জন্য তার মা তানজিলা খাতুন তারিনকে দায়ী করছেন পরিবার ও এলাকাবাসী। 

তারিন রাজশাহী জেলার পুঠিয়া উপজেলার বানেশ্বর ইউপির জামিরা গ্রামের আইয়ুব ইসলাম টুকুর মেয়ে, তার স্বামীর নাম তুষার হোসেন। 

স্থানীয়রা জানায়, তিন মাস আগে সিজারের মাধ্যমে শিশুটির জন্ম দেন তারিন। সন্তান হওয়ার পর থেকে তারিন বেগম পালিত বাবার বাড়ি বাগাতিপাড়া উপজেলার বজরাপুর গ্রামেই থাকতেন। শনিবার বিকেলে শিশু তানজিলার নিখোঁজ হওয়ার খবর জানতে পারেন প্রতিবেশী ও পরিবারের লোকজন। একপর্যায়ে তাজুল ইসলামের বাড়ির পাশের পুকুরের পানিতে শিশুটির মরদেহ দেখতে পান। পরে সেখান থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়। খবর পেয়ে বাগাতিপাড়া থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে নাটোর হাসপাতাল মর্গে পাঠায় এবং শিশুটির মা তারিনকে থানায় নেয়া হয়।

ঘটনাস্থল প্রাথমিকভাবে তদন্তকারী বাগাতিপাড়া থানার এসআই তারেকুল ইসলাম জানান, পুকুরের পানি থেকে তিনমাস বয়সী শিশুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এতো ছোট শিশু কীভাবে পুকুরের পানিতে গেল তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। 

তারিনের চাচা সুরুজ আলী বলেন, ঘটনাটি তিনি তার স্ত্রী রুবিনা বেগমের কাছ থেকে শুনেছেন। বিকেলে তারিন শিশুকন্যাকে নিয়ে বাড়ির পাশে পুকুর পাড়ে যায়। তবে কিছুক্ষণ পর একাই ফিরে আসে। তখন বাড়ির লোকজন টিয়ার খোঁজ করলে তারিন জানায় পাশের বাড়ির এক চাচির কাছে টিয়াকে রেখেছেন তিনি। কিছুক্ষণ পর বাড়ির পাশের পুকুরে টিয়ার ভাসমান মরদেহ দেখতে পাওয়া যায়।

তারিনের স্বামী তুষার হোসেন জানান, এ ঘটনায় তিনি কাউকে সন্দেহ করতে পারছেন না। মেয়ের মৃত্যুর খবর জানার আধঘণ্টা আগেও তিনি স্ত্রী তারিনের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন। তখন তারিন বেশ স্বাভাবিক ছিলেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য হাফিজুর রহমান জানান, তারিন মানসিকভাবে সুস্থ হলেও অতিরিক্ত রাগের কারণে অনেক সময় অস্বাভাবিক আচরণ করেন। শিশুটির একা একা পানিতে পড়ে যাওয়ার কোনো কারণ নেই।

বাগাতিপাড়া থানার ওসি আব্দুল মতিন বলেন, শিশুটিকে পানিতে ফেলে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় শিশুটির মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। তারিনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়েছে। এছাড়া পরিবারের সদস্যদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। 

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম