Alexa টাকা নেয়া প্রসঙ্গে জবাব দিলেন রিয়াজ-ফেরদৌস

টাকা নেয়া প্রসঙ্গে জবাব দিলেন রিয়াজ-ফেরদৌস

বিনোদন প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:৪৩ ৯ অক্টোবর ২০১৯   আপডেট: ১৭:৩০ ৯ অক্টোবর ২০১৯

ছবি: চিত্রনায়ক রিয়াজ ও ফেরদৌস

ছবি: চিত্রনায়ক রিয়াজ ও ফেরদৌস

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ২০১৭-১৯ মেয়াদের নির্বাচনে মিশা-জায়েদ প্যানেল থেকে প্রার্থী হন চিত্রনায়ক রিয়াজ, ফেরদৌস ও চিত্রনায়িকা পপি।এবারের নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন না তারা। এরই মধ্যে মিশা-জায়েদ নেতৃত্বের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ করেছেন তারা। তাদের অভিযোগের বিষয় নিয়ে মুখ খুলেছেন সমিতির জায়েদ খান।

মঙ্গলবার সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে জায়েদ খান বলেন, রিয়াজ, ফেরদৌস ভাইকে নিয়ে আমাদের অনেক আশা ছিল। দুই বছরে তারা একটি পয়সাও তহবিলে দেননি। তাদের কী অবদান আছে সমিতিতে? কেউ মারা গেলেও তারা আসেননি, কোনো মিলাদেও অংশ নেননি। কিন্তু সমিতির তহবিল নিয়ে বড় বড় কথা বলছেন। উল্টো শিল্পী সমিতির ফান্ড গঠনের অনুষ্ঠান থেকে ৫০ হাজার করে পারিশ্রমিক নিয়েছেন রিয়াজ ও ফেরদৌস। 

টাকা নেয়ার বিষয়টি প্রকাশ্যে আসায় ক্ষোভ নিয়ে রিয়াজ বলেন, খুবই অবাক হচ্ছি এরকম মিথ্যাচার দেখে। আমি, ফেরদৌস বা পপি- কেউ কী ৫০ হাজার টাকা পারিশ্রমিকের শিল্পী? এমন স্বস্তা হলে তো দিনে চারটা করে শো করতে পারতাম। সবাইকে নিজেদের মাপের মনে করে ওরা? আছে কোনো রশিদ সেই টাকা নেয়ার? 

তিনি বলেন, নারয়ণগঞ্জের সেই শোটি ছিলো ৮ লাখ টাকা বাজেটের। তারমধ্যে ৪ লাখ টাকা শিল্পী সমিতির ফান্ডে জমা হয়েছে। আর বাকী চার লাখ টাকা যারা পারফর্ম করেছে তাদের দেয়া হয়েছে। সেটা কিন্তু পারিশ্রমিক হিসেবে নয়। ড্রেস ও অন্যান্য খরচ বাবদ। আর তা নির্ধারণ করা হয়েছে সবাই মিলেই। আমি, ফেরদৌস ও পপি যদি ৫০ হাজার করে দেড় লাখ টাকা নিয়ে থাকি বাকি আড়াই লাখ টাকা কোথায়? 

রিয়াজ বলেন, তারা নির্বাচন করছে করুক। প্রশ্ন তুললে অনেক তোলা যাবে। কিন্তু যে কাঁদা ছোঁড়াছুঁড়ির সেটার ফল তাদের ভোগ করতে হবে।

এদিকে, বিষয়টি নিয়ে চিত্রনায়ক ফেরদৌস কবলেন, কোনো প্রোগামের জন্য আমার পারিশ্রমিক কী ৫০ হাজার টাকা?  আমি মাত্র ৫০ হাজার টাকা নিয়ে শো করবো কেন? এখান থেকেই তো বোঝা যায় এটা ভিত্তিহীন একটি প্রচারণা। তারা কী প্রমাণ দিতে পারবে আমি এই টাকা সম্মানি নিয়েছি?

অনেকটা বিরক্তি নিয়ে ফেরদৌস বলেন, মুখ দিয়ে অনেক কথা বলা যায়। কিন্তু প্রামাণ ছাড়া কথা বলা ঠিক না। সমিতির বিষয়গুলো নিয়ে আর কোনো কথা বলতে চাই না। কথা বাড়িয়ে লাভ নেই কার ভাগ্যে কী আছে সেটা সময়ই বলবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনএ