ঝালকাঠিতে সিরিজ বোমা হামলায় দুই জেএমবির যাবজ্জীবন

ঝালকাঠিতে সিরিজ বোমা হামলায় দুই জেএমবির যাবজ্জীবন

ঝালকাঠি প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ০২:১১ ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ঝালকাঠিতে ২০০৫ সালে জেএমবির সিরিজ বোমা হামলার ঘটনায় করা মামলায় দুইজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

বুধবার ঝালকাঠির বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক শেখ মো. তোফায়েল হাসান এ রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘোষণার সময় দুই আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত দুইজন হলেন, ঝালকাঠির বিকনা গ্রামের মো. জিয়াউর রহমান ওরফে জিয়া এবং বৈদারাপুর গ্রামের ফরিদ হাওলাদার। 

সিরিজ বোমা হামলার দুই মামলার একটিতে আসামিদের বিস্ফোরক আইনের পৃথক ধারার যাবজ্জীবন ও ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। অপর মামলায় অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাদের খালাস দেয়া হয়।

মামলার নথি ও আদালত সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ঝালকাঠি শহর ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট বেলা সাড়ে ১১টায় পর পর পাঁচটি বোমার বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে। একই সময় বোমার বিস্ফোরণ ঘটে ঝালকাঠি জেলা জজ আদালত চত্বর, ডিসি অফিস, জেলা আইনজীবী সমিতি, সদর উপজেলা পরিষদ চত্বর ও বিকনা টেম্পুস্ট্যান্ডে।

এ ঘটনায় ঝালকাঠি থানার তৎকালীন ওসি মো. সোহরাব আলী বাদী হয়ে বিস্ফোরক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দুটি মামলা করেন। মামলায় আহত অবস্থায় আটক ফরিদ হাওলাদারকে গ্রেফতার দেখানো হয়। ২০০৬ সালের ২২ অক্টোবর গোয়েন্দা পুলিশ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। জেএমবির সদস্য জিয়াউর এবং আহত অবস্থায় আটক রিকশাচালক ফরিদকে অভিযোগপত্রে আসামি করা হয়।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অতিরিক্ত সরকারি কৌঁসুলি আ স ম মোস্তাফিজুর রহমান এবং আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী নাসির উদ্দিন ও মোমিন উদ্দিন খলিফা।

২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট সারাদেশে একযোগে সিরিজ বোমা হামলা চালায় জেএমবি। ওইদিন বেলা সাড়ে ১১টায় দেশের ৬৩ জেলার গুরুত্বপূর্ণ ৪৫০টি স্থানে প্রায় ৫শ’ বোমার বিস্ফোরণ ঘটান জঙ্গিরা। এই হামলায় নিহত হন দুইজন এবং আহত হন দুই শতাধিক ব্যক্তি। এ ঘটনায় দেশের বিভিন্ন থানায় ১৬১টি মামলা হয়। ওই বছরের ১৪ নভেম্বর ঝালকাঠিতে বিচারক বহনকারী গাড়ি লক্ষ্য করে বোমা হামলা চালান জঙ্গিরা। এতে নিহত হন ঝালকাঠি জেলা জজ আদালতের বিচারক জগন্নাথ পাড়ে ও সোহেল আহম্মদ।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম