Alexa জাহাঙ্গীরনগরে প্রতি আসনে লড়বে ১৯০ শিক্ষার্থী

জাহাঙ্গীরনগরে প্রতি আসনে লড়বে ১৯০ শিক্ষার্থী

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৭:০৯ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতি আসনে লড়বে ১৯০ শিক্ষার্থী। ভর্তির জন্য ১৮৮৯টি আসনের বিপরীতে এখন পর্যন্ত আবেদন ফি পরিশোধ করেছেন ৩ লাখ ৫৯ হাজার ৩২৮ শিক্ষার্থী।

সোমবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের অনলাইন ভর্তি কার্যক্রম পরিচালনার দায়িত্বপ্রাপ্ত ইনস্টিটিউট অব ইনফরমেশন টেকনোলজির ভারপ্রাপ্ত পরিচালক এম মেসবাহউদ্দিন সরকার এই তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, অনলাইনে আবেদনের শেষদিন ৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অনলাইনে প্রাথমিক আবেদন জমা পড়েছে ৩ লাখ ৭৫ হাজার ৪৪৯টি। কিন্ত এখন পর্যন্ত আবেদন ফি পরিশোধ করেছেন ৩ লাখ ৫৯ হাজার ৩২৮ জন। টাকা পরিশোধের সময়সীমা আজ রাত ১১:৫৯ মিনিট পর্যন্ত রয়েছে।

তিনি জানান, ‘এ’ ইউনিটে (গাণিতিক ও পদার্থবিষয়ক অনুষদ) ৬৮ হাজার ৭৯১ জন, ‘বি’ ইউনিটে (সমাজ বিজ্ঞান অনুষদ) ৪৯ হাজার ৭৩৩ জন, ‘সি’ ইউনিটে (কলা ও মানবিকী অনুষদ: নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগ এবং চারুকলা বিভাগ ব্যতিত) ৬০ হাজার ৪৮১ জন, ‘সি ১’ ইউনিটে (কলা ও মানবিকী অনুষদ: নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগ এবং চারুকলা বিভাগ) ৯ হাজার ২৪২ জন, ‘ডি’ ইউনিটে (জীববিজ্ঞান অনুষদ) ৭৬ হাজার ৪৩৭ জন, ‘ই’ ইউনিটে (বিজনেস স্টাডিজ অনুষদ) ২০ হাজার ৮৩০ জন, ‘এফ’ ইউনিটে (আইন অনুষদ) ৩৫ হাজার ১৬ জন, ‘জি’ ইউনিটে (ইনস্টিটিউট অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন, আইবিএ-জেইউ) ৯ হাজার ৫৭৩ জন, ‘এইচ’ ইউনিটে (ইনস্টিটিউট অব ইনফরমেশন টেকনোলজি, আইআইটি) ১৯ হাজার ৬৯২ জন এবং ‘আই’ ইউনিটে (বঙ্গবন্ধু তুলনামূলক সাহিত্য ও সংস্কৃতি ইনস্টিটিউট ৯ হাজার ৫৩৩ জন ভর্তিচ্ছু আবেদন ফি পরিশোধ করেছেন।

তিনি আরো জানান, ‘এ’ ইউনিটে ৭১ হাজার ৩৬৫ জন, ‘বি’ ইউনিটে ৫২ হাজার ৪৬৯ জন, ‘সি’ ইউনিটে ৬৩ হাজার ২২৫ জন, ‘সি১’ ইউনিটে ১০ হাজার ৫৮২ জন, ‘ডি’ ইউনিটে ৭৮ হাজার ২৭১ জন, ‘ই’ ইউনিটে ২১ হাজার ৮৩৪ জন, ‘এফ’ ইউনিটে ৩৬ হাজার ৪৩৯ জন, ‘জি’ ইউনিটে ১০ হাজার ১৬৯ জন, ‘এইচ’ ইউনিটে ২০ হাজার ৭২৭ জন এবং ‘আই’ ইউনিটে ১০ হাজার ৩৬৮ জন ভর্তিচ্ছু অনলাইনে প্রাথমিকভাবে আবেদন করেছিল।

এ বছর ইউনিট ভেদে সবচেয়ে বেশি প্রতিযোগিতা হবে ‘এ’ ইউনিটে (আইন অনুষদ)। এই ইউনিটে প্রতিটি আসনের বিপরীতে লড়বে ৫৮৪ জন ভর্তিচ্ছু। অপরদিকে সবচেয়ে কম প্রতিযোগিতা হবে  ‘ই’ ইউনিটে (বিজনেস স্টাডিজ অনুষদ)। এই ইউনিটে প্রতিটি আসনের বিপরীতে লড়বে ১০৪ শিক্ষার্থী।

এছাড়া ‘এ’ ইউনিটে ১৬৮ জন, ‘বি’ ইউনিটে ১৫৩ জন, ‘সি’ ইউনিটে ১৬১ জন, ‘সি১’ ইউনিটে ১৫১ জন, ‘ডি’ ইউনিটে ২৩৯ জন, ‘জি’ ইউনিটে ১৯১ জন, ‘এইচ’ ইউনিটে ৩৫২ জন এবং ‘আই’ ইউনিটে ৩১৮ জন শিক্ষার্থী প্রতিটি আসনের বিপরীতে লড়বেন।

এদিকে ভর্তি পরীক্ষা পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেপুটি রেজিস্ট্রার (শিক্ষা) আবু হাসান জানান, ‘আগামী ২২ সেপ্টেম্বর থেকে ৩ অক্টোবর পর্যন্ত সময়ে ভর্তি পরীক্ষা হবে। তবে কোনো ইউনিটের পরীক্ষা কবে হবে সেটা আগামী ৩-৫ দিনের মধ্যে জানিয়ে দেয়া হবে।

তিনি আরো জানান, কার, কোথায়, কখন, কোনদিন পরীক্ষা হবে অর্থাৎ সিট প্ল্যান পরীক্ষার আগের দিন রাতে শিক্ষার্থীর ফোনে মেসেজের মাধ্যমে জানানো হবে এবং ওয়েবসাইটেও দিয়ে দেয়া হবে। পরীক্ষার হলে ভর্তি পরীক্ষার অ্যাডমিট কার্ড, এইচএসসি মূল রেজিস্ট্রেশন কার্ড অবশ্যই সঙ্গে নিয়ে আসতে হবে। যাদের মূল রেজিস্ট্রেশন কার্ড অন্য জায়গায় জমা আছে তাদেরকে রেজিস্ট্রেশন কার্ডের সত্যায়িত ফটোকপি নিয়ে আসতে হবে।

প্রসঙ্গত, ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের প্রথম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির ভর্তি পরীক্ষায় ১৮৮৯ টি আসনের বিপরীতে আবেদন ফি পরিশোধ করেছিল ৩ লাখ ৬ হাজার ২৭৪ জন শিক্ষার্থী। সে অনুযায়ী গেল বছর প্রতিটি আসনের বিপরীতে লড়েছিল ১৬২ জন করে ভর্তিচ্ছু।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম