জাল সার্টিফিকেটে চাকরি ও অর্থ আত্মসাৎ, দুই শিক্ষক বরখাস্ত

জাল সার্টিফিকেটে চাকরি ও অর্থ আত্মসাৎ, দুই শিক্ষক বরখাস্ত

দিনাজপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৯:৩৬ ১২ মার্চ ২০২০   আপডেট: ২০:০৭ ১২ মার্চ ২০২০

দিনাজপুর সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস

দিনাজপুর সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস

দিনাজপুর সদরে দুই শিক্ষককে জাল সার্টিফিকেটে চাকরি নেয়া ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তারা হলেন- ওই উপজেলার মাকিহারী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক খাইরুল ইসলাম ও ধর্মীয় শিক্ষক সাইদুর রহমান।

বুধবার ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এ.কে.এম ফজলুল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, ২০১৯ সালে যাচাই-বাছাইয়ে খাইরুল ইসলামের ডিগ্রি পাস সার্টিফিকেট জাল প্রমাণিত হয়। একইসঙ্গে স্কুল ম্যানেজিং কমিটিকে ভুল বুঝিয়ে নির্ধারিত বেতন স্কেলের অতিরিক্ত ৫৮ মাসের অর্থ আত্মসাতের বিষয়টিও প্রমাণিত হয়।

প্রধান শিক্ষক আরো জানান, ধর্মীয় শিক্ষক সাইদুর রহমানও একইভাবে ২২ মাসের অতিরিক্ত অর্থ আত্মসাৎ করেন। বিষয়টি প্রমাণিত হওয়ায় তাদের অর্থ ফেরত দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়। তারা অর্থ ফেরত না দেয়ায় দুইজনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

অভিযুক্ত সাইদুর রহমান বলেন, অডিট কর্মকর্তারা আমাকে কোনো চিঠি দেননি। তাই আমি কোনো টাকা ফেরত দেইনি। স্কুল ম্যানেজিং কমিটি আমাকে শোকজ করেছে। আমি জবাব দিয়েছি।

আরেক অভিযুক্ত খাইরুল ইসলাম বলেন, স্কুলের বর্তমান সভাপতি আমিনুল ইসলাম ও প্রধান শিক্ষক ফজলুল হক ব্যক্তিগত আক্রাশের কারণে আমাকে বরখাস্ত করিয়েছেন।

মাকিহারী উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আমিনুল ইসলাম বলেন, ওই দুই শিক্ষকের জাল সার্টিফিকেটে চাকরি নেয়া ও অর্থ আত্মসাৎ অডিটে প্রমাণিত হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এখানে আমাদের কোনো আক্রোশ নেই।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর