জামালপুরে পিসিআর ল্যাব ১০ দিন ধরে বন্ধ 

জামালপুরে পিসিআর ল্যাব ১০ দিন ধরে বন্ধ 

জামালপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:৪১ ৫ জুন ২০২০  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

জামালপুর শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দেড় কোটি টাকা ব্যয়ে স্থাপিত পিসিআর মেশিনটি ১০ দিন ধরে বিকল হয়ে পড়ে আছে।

জেলায় যখন পাল্লা দিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণের সংখ্যা, ঠিক তখনই বন্ধ হলো জেলার একমাত্র পিসিআর ল্যাবটি। 

শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজের ল্যাবটি বন্ধ থাকায় সংগৃহীত নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হচ্ছে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। এতে রিপোর্ট পেতে অতিরিক্ত সময় লাগছে। যার ফলে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছে আশঙ্কাজনক হারে। 

প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। তাছাড়া আক্রান্ত ব্যক্তিরা নমুনা দিয়ে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ানোর ফলে সংক্রমণ বাড়ছে দ্রুত গতিতে। প্রশাসনের কড়া নজরদারি থাকালে সাধারণ জনগণ স্বাস্থ্যবিধি মানছে না। ফলে দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস।

জেলা ভিত্তিক নমুনা পরীক্ষা করার লক্ষ্য নিয়ে সরকারের সিদ্ধান্তে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিমেল সায়েন্স বিশ্ববিদ্যালয়ে অব্যবহৃত থাকা পিসিআর মেশিনটি শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করে।

তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডাক্তার মুরাদ হাসান ল্যাবটি উদ্বোধন করেন। গত ১২ মে নমুনা পরীক্ষার মধ্য দিয়ে এই ল্যাবের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়। উদ্বোধনের পর ১৫ দিনে এই ল্যাবে ৮৬১টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্র জানায়, ল্যাবের সফটওয়্যার এবং হার্ডওয়্যার সরবরাহ ও স্থাপনকারী প্রতিষ্ঠানের প্রকৌশলীরা সরেজমিনে চেষ্টা চালিয়েও সচল করতে পারেনি। তাদের মতে সফটওয়্যারে কোনো সমস্যা নেই। সমস্যা হয়েছে হার্ডওয়্যারে। ল্যাবের হার্ডওয়্যার যন্ত্রপাতি মেরামত বা সংযোজন করাতে হবে।

জামালপুর পরিবেশ আন্দোলেন সভাপতি জাহাঙ্গীর সেলিম জানান, যখন সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে ঠিক তখনই ল্যাবটি বন্ধ হয়ে গেলো। এখান থেকে প্রতিদিন নমুনার রিপোর্ট পাওয়া যেতো। এখন ফল পেতে বিলম্ব হওয়ায় নমুনা দেয়া ব্যক্তি কোনো প্রকার স্বাস্থ্য বিধি না মেনে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এতে ঝুঁকিতে পড়ছে পরিবার ও প্রতিবেশীরা।

ল্যাব ইনচার্জ অধ্যাপক এ.কে.এম. মুছা জানান, চালুর মাত্র ১৫ দিনের মাথায় হঠাৎ পিসিআর মেশিনে কারিগরি ত্রুটি দেখা দেয়।  গত ২৭ মে ঢাকা থেকে আসা প্রকৌশলীরা কয়েক দিন চেষ্টা করেও ল্যাবটি সচল করতে পারেননি।

জামালপুর শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডাক্তার মোশায়েব উল ইসলাম জানান, জার্মানিদের পরামর্শ নিয়ে ঢাকা থেকে আসা প্রকৌশলীরা সফটওয়্যার, অপটিক্যাল ফাইভারসহ বিভিন্ন ত্রুটি ঠিক করলেও মেশনটি চালু করতে পারেননি।

সিভিল সার্জন ডা. প্রণয় কান্তি দাস বলেন, মেশিনটি যদি সচল থাকতো তাহলে নমুনা আরো বেশি পরীক্ষাসহ দ্রুত সময়ের রিপোর্ট দেয়া যেতো। তারপর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি ময়মনসিংহ থেকে যত তাড়াতাড়ি রিপোর্টগুলো আনা যায়। এছাড়া ল্যাবটি সচলের পাশাপাশি নতুন একটি পিসিআর মেশিনের জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে চাহিদাপত্র পাঠানো হয়েছে।

জেলার ২৬ লাখ জনসাধারণের কথা চিন্তা করে এ ল্যাবটি স্থাপন করা হয়। বৃহস্পতিবার এ জেলায় নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন ১৮ জন। এ নিয়ে জামালপুরে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩২২ ছাড়ালো।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ