জনসমর্থন হারিয়ে দিশেহারা রাজশাহী বিএনপি

জনসমর্থন হারিয়ে দিশেহারা রাজশাহী বিএনপি

রাজশাহী প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:১৪ ১৩ আগস্ট ২০২০  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

সাংগঠনিক দুর্বলতা ও আন্দোলনে ব্যর্থতায় ব্যাপক চাপে রয়েছে রাজশাহী বিএনপি। দেশের চলমান করোনা সংকটের পাশাপাশি বন্যা পরিস্থিতিতেও কার্যত ভূমিকা রাখতে পারেনি দলটির নেতারা। জনগণ থেকে দূরে থাকায় ব্যাপক সমালোচনার মুখে তারা। এসব কারণে জনসমর্থন হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছে রাজশাহী বিএনপি।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, সব বিষয়ে শুধুমাত্র সরকারের ওপর দোষ চাপালেই হবে না। সংকট সমাধানে নিজেদের ভূমিকা কতটুকু সেটাও বিএনপির ভেবে দেখা উচিত।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ভঙ্গুর সাংগঠনিক অবস্থা এবং অদক্ষ নেতৃত্বের কারণেই জনগণের মন থেকে দিন দিন দূরে সরে যাচ্ছে বিএনপি। এখন পর্যন্ত জনগণের ইস্যুতে বা জনগণের কোনো দাবি নিয়েই আন্দোলনে নামতে পারেনি দলটি। তাই নেতাকর্মীরাও আস্থা হারিয়ে ফেলছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলটির একজন কর্মী বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে বিএনপির কার্যক্রম প্রায় ঘরবন্দি। করোনা কিংবা বন্যা পরিস্থিতিতেও জনগণের পাশে দাঁড়াতে পারেনি। এছাড়া কেন্দ্র থেকে কোনো সহায়তা না পাওয়ায় আরো দুর্দশায় রয়েছে দলটি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রাজশাহীর এক সামাজিক সংগঠনের নেতা বলেন, রাজনৈতিক দল হিসেবে বিএনপির কাছে জনগণের প্রত্যাশা আছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত জনগণের কোনো দাবি নিয়ে মাঠে নামেনি তারা। তারা ২০১৫ সালে নির্বাচন বর্জনের দাবি নিয়ে রাজনীতির মাঠ উত্তপ্ত করলেও ক্ষমতা হারানোর ১৫ বছরের মধ্যে জনগণের একটা দাবি নিয়েও কার্যত আন্দোলন করতে পারেনি। তাহলে জনগণ কেন তাদের পাশে থাকবে?

রাজশাহী জেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির সদস্য গোলাম মোস্তফা মামুন বলেন, দল থেকে সহযোগিতা পেলে জনগণের পাশে দাঁড়ানো যেতো। ব্যক্তিগতভাবে সহায়তা করা সম্ভব না।

কেন্দ্র থেকে সহায়তা না পাওয়ার একই অভিযোগে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সাঈদ চাঁদের। তিনি বলেন, রাজশাহী জেলায় যারা করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন তাদের স্থানীয়ভাবে ওষুধ ও খাদ্য সহায়তা দেয়া হচ্ছে। ব্যক্তিগত বা স্থানীয় ফান্ডের মাধ্যমে এ সহায়তা দেয়া হয়েছে।

নেতাদের অবস্থার বিষয়ে জানতে চাইলে আবু সাঈদ চাঁদ বলেন, নেতারা সবাই রাজশাহীতে থাকেন না। কেউ কেউ ঢাকায় থাকেন। নির্বাচন এলে তাদের দেখা যায়। কিন্তু দুঃসময়ে তাদের কোনো পাত্তা নেই।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিআরএইচ