‘চোখের সামনেই সবাই বুড়িগঙ্গায় তলিয়ে গেল’

‘চোখের সামনেই সবাই বুড়িগঙ্গায় তলিয়ে গেল’

নাদিম মাহমুদ, মুন্সিগঞ্জ ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২০:৪৩ ২৯ জুন ২০২০  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

প্রতিদিনের মতোই লঞ্চে ঢাকায় যাচ্ছিলেন জাহাঙ্গীর হোসেন নামে এক যুবক। তার সঙ্গে পার্শ্ববর্তী এলাকার আরো ১০ যাত্রী ছিলেন। গল্পে আর আড্ডায় মেতে ওঠেন তারা। কিন্তু ঘাটে ভেড়ানোর আগে আরেকটি লঞ্চের ধাক্কায় তাদের লঞ্চটি ডুবে যায়। এতে সঙ্গে থাকা সবাই বুড়িগঙ্গায় তলিয়ে গেলেও তিনি সাঁতরে নদীর পাড়ে আসেন।

জাহাঙ্গীর মুন্সিগঞ্জের মিরকামি পৌরসভার এনায়েত নগরের বাসিন্দা। তিনি রাজধানীর বঙ্গবাজারে কাপড়ের দোকানে কাজ করেন।

জীবিত উদ্ধার হওয়া জাহাঙ্গীর জানান, আট বছর ধরে কাঠপট্টি থেকে লঞ্চে ঢাকায় যাওয়া-আসা করেন তিনি। সোমবার সকাল পৌনে ৮টায় মর্নিং বার্ড লঞ্চে ঢাকায় যাচ্ছিলেন। তার সঙ্গে মিরকাদিম এলাকার আরো ১০ জন ছিলেন। ৯টায় রাজধানীর ফরাশগঞ্জ ঘাট এলাকায় লঞ্চটি পৌঁছায়। এ সময় ময়ূর-২ নামের একটি লঞ্চ তাদের লঞ্চকে ধাক্কা দিলে একপাশে কাত হয়ে সবাই ছিটকে বুড়িগঙ্গা নদীতে পড়ে যায়। ১০-১২ জন তার ওপরে পড়েন। এতে প্রায় ডুবে যাচ্ছিলেন তিনি। পরে কোনো রকম সাঁতরে তীরে উঠে আসেন।

তিনি বলেন, যাদের সঙ্গে পাঁচ মিনিট আগেও প্রাণবন্ত আড্ডায় ছিলাম। চোখের সামনে সবাই ডুবে গেলেন। এটা কতটা কষ্টের ভাষায় বোঝানো যাবে না।

এদিকে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সদর দফতরের ডিউটি অফিসার রোজিনা আক্তার জানান, বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবির ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৮ নারী ও ৩ শিশুসহ ৩২ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআর