Alexa চীনে ছোটদের ভিডিও গেম খেলার ওপর কারফিউ জারি

চীনে ছোটদের ভিডিও গেম খেলার ওপর কারফিউ জারি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:১৪ ৮ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১৭:২৮ ৮ নভেম্বর ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

চীনে ছোটদের ভিডিও গেমের প্রতি আসক্তি দূর করতে অনলাইনে ভিডিও গেম খেলার ওপর কারফিউ ঘোষণা করেছে দেশটির সরকার। এই নিষেধাজ্ঞার অধীনে আঠারো বছরের কম বয়সী গেমাররা রাত ১০টা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত কোনো গেম খেলতে পারবে না। এছাড়া তাদেরকে সপ্তাহে সর্বোচ্চ ৯০ মিনিট এবং সাপ্তাহিক ছুটি ও সাধারণ ছুটির দিন সর্বোচ্চ ৩ ঘন্টার বেশি গেম খেলার সুযোগ দেয়া হবে না। 

দেশটির শিশু-কিশোরদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ানো এই ভিডিও গেম আসক্তি দূর করতে চীন সরকারের নেয়া সর্বশেষ পদক্ষেপ এটি।

মঙ্গলবার সরকার প্রণীত গেম খেলার এই নতুন নিয়ম-কানুন প্রকাশ করা হয়, যেখানে ছোটদের গেম খেলার জন্য নির্ধারিত সময়েরও উল্লেখ করা আছে। 

অনলাইনে গেম খেলার জন্যে ৮ থেকে ১৬ বছর বয়সী গেমারদের মাসে ২০০ ইউয়ান (২৯ ডলার) এবং ১৬ থেকে ১৮ বছর বয়সী গেমারদের মাসে ৪০০ ইউয়ান (৫৮ ডলার) তাদের গেমিং অ্যাকাউন্টে খরচ করতে হবে।

বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহৎ গেমিং মার্কেট হচ্ছে চীন। যুক্তরাষ্ট্রের পরই তাদের অবস্থান। প্রতিবছর দেশটি এই খাত থেকে বিশাল পরিমাণ অর্থ আয় করে থাকে। 

২০১৮ সালে চীন সরকার গেমিংয়ের ওপর নিয়ন্ত্রণ আরোপের জন্য একটি নিয়ন্ত্রক সংস্থা গঠন করে। শিশুদের মধ্যে দৃষ্টিক্ষীণতার সমস্যা বেড়ে যাওয়ার পর সরকার এই পদক্ষেপ নেয়। বিশ্বের খ্যাতনামা ভিডিও গেম কোম্পানিগুলো চীনের এই পদক্ষেপে ইতিবাচক সাড়া দিয়েছে।

তবে কিছু সমস্যা রয়েই গেছে। যেমন - বয়স যাচাই কীভাবে করা হবে এবং এসব নিয়ম কানুন মানা হচ্ছে কীনা, সেটা কীভাবে নিশ্চিত করা হবে ইত্যাদি। চীন সরকার বলছে, এখন যে নতুন নীতিমালা ঘোষণা করেছে তা শুধু অনলাইন গেমিংয়ের ক্ষেত্রেই কার্যকর হবে।

গত বছর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা গেমিংয়ের আসক্তিকে একটি মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করে। এটিকে ‘গেমিং ডিজঅর্ডার’ বলে বর্ণনা করা হয়। তবে যুক্তরাষ্ট্রের মনো চিকিত্সকদের সংগঠন সাইক্রিয়াট্রি অ্যাসোসিয়েশন এখনো এটিকে কোন স্বাস্থ্য সমস্যা বলে স্বীকৃতি দেয়নি। তাদের মতে, এটি নিয়ে আরো গবেষণা দরকার। 

এদিকে বিশ্বের কয়েকটি দেশের সরকার অতিরিক্ত গেম খেলাকে একটি জনস্বাস্থ্য সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করেছে। অনেক দেশে গেমিংয়ের আসক্তি কমানোর জন্য ক্লিনিকও আছে।

সূত্র: বিবিসি

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী