চীনের মিং সাম্রাজ্যের গল্প একুশে টিভির পর্দায়

চীনের মিং সাম্রাজ্যের গল্প একুশে টিভির পর্দায়

বিনোদন প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৩:৪৮ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১৮:৫৪ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

চীনের মিং সাম্রাজ্যের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ, ষড়যন্ত্র, ঘৃনা ও ভালোবাসার ঘটনা প্রবাহ তুলে ধরা হয়েছে ড্রামা সিরিয়াল ‘মূ’তে।

চীনের এই ধারাবাহিকটির পর্ব সংখ্যা ১০০টি। এবার এটি বাংলায় ডাবিং করে প্রচার শুরু হয়েছে দেশের টেলিভিশন চ্যানেলে। এটি একুশে টেলিভিশনের পর্দায় প্রতিদিন সন্ধ্যা ৬টা ৩০ ও রাত ১০টা ৩০ মিনিটে প্রচার হচ্ছে। 

২০১২ সালে এই সিরিজিটি প্রথম চীনের সরকারি টিভি স্টেশন সিসিটিভিতে ‘টার্বুলেন্স অব দ্যা মু ক্লেন’ নামে প্রচারিত হয়। ‘মূ’ ড্রামা সিরিজটি মূলত চীনা সাম্রাজ্যের রাজপরিবারের দ্বন্দ ও ঘটনা প্রবাহ নিয়ে নির্মিত। 

সিরিজের কাহিনী চিত্রে দেখা যায়, রাজ পরিবারের সদস্যরা ক্ষমতার লোভে নিজেদের মধ্যে সর্বদা যুদ্ধ-বিগ্রহে লিপ্ত থাকতো। সাধারন পরিবার থেকে আসা আলেকু পাঁচ বছর বয়সে হৃদয়ে প্রতিশোধের আগুন নিয়ে ‘মূ’ পরিবারকে ধ্বংস করার লক্ষ্যে রাজ-পরিচারিকা হিসেবে প্রাসাদে প্রবেশ করে। দীর্ঘ বিশ বছর ‘মূ’ পরিবারের সঙ্গে অতিবাহিত করেও তার প্রতিশোধের আগুন নেভেনি।

কিন্তু এই দীর্ঘ পরিক্রমায় আলেকু রাজপরিবারের অন্যতম সদস্য মূ-জেং এর সঙ্গে গভীর প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে, যা রাজপরিবার কোনো ভাবেই মেনে নিতে পারে না। 

রাজপরিবারের দুর্বিষহ প্রতিবন্ধকতার মুখে একসময়ে আলেকু ও মূ-জেং একসঙ্গে আত্মহননের পথ বেছে নেয় এবং পরে সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে নানা ঘাত-প্রতিঘাতের পর আলেকু’র দূরদর্শিতা ও বুদ্ধিমত্তায় তারা বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়। অত:পর ধীরে ধীরে রাজপরিবারের সকল অর্ন্তদ্বন্দ দূর করে আলেকু হয়ে ওঠে ‘মূ’ রাজপরিবারের অন্যতম ক্ষমতাধর ও গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র।

চীনের ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটে তৈরি করা এই ড্রামা সিরিজটি পরিচালনা করেছেন রিংগো ইয়ু। ওয়াং জুয়ানের চিত্রনাট্যের এই সিরিজ ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করে। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এনএ