চীনের পর্বতে অদ্ভুত বিকট গর্জনে কৌতূহল, রহস্য উন্মোচন

চীনের পর্বতে অদ্ভুত বিকট গর্জনে কৌতূহল, রহস্য উন্মোচন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২০:০৭ ৮ জুলাই ২০২০   আপডেট: ২০:১১ ৮ জুলাই ২০২০

অদ্ভুত বিকট গর্জন জিউশুই পর্বত থেকে এসেছিল। ছবি: সংগৃহীত।

অদ্ভুত বিকট গর্জন জিউশুই পর্বত থেকে এসেছিল। ছবি: সংগৃহীত।

চীনের পর্বতে অদ্ভুত বিকট গর্জন, হুলুস্থল কাণ্ডে চারদিকে কৌতূহল-ভয়। ভয়ে পর্বত সংলগ্ন গ্রাম ছেড়ে পালাতে বাধ্য হন অনেকে। কেউবা পর্বতের ছবি তুলতে জড়ো হন। যা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছিল। এ গর্জনকে অনেকে ড্রাগনের শব্দ বলেছিলেন, অনেকে বলেছিলেন বাঘের গর্জন। অবশেষে অদ্ভুত বিকট গর্জনের রহস্য উন্মোচন হয়েছে।

সম্প্রতি চীনের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশ গুইঝৌর জিউশুই পর্বতে এ ঘটনা ঘটেছিল। রহস্যময় গর্জন শুনে হাজার হাজার পর্বতগামী লোক ঠেকাতে হিমশিম খায় পুলিশ।

জিউশুই পর্বতে বেশি লোক না উঠতে স্থানীয় পুলিশ সড়কে অবরোধ করেছিল। তবুও জনস্রোত ঠেকানো যায়নি। পর্বতটিতে বিশেষজ্ঞ দল পাঠানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছে প্রশাসন। যাকে মানুষের কৌতূহল কিছুট হ্রাস পায়। কিন্তু অদ্ভুত শব্দ শুনতে এখনো মানুষের মধ্যে কৌতূহল রয়েছে।

জিউশুইয়ের স্থানীয় কয়েক চাষির দাবি, পর্বত থেকে অদ্ভুত বিকট গর্জন আসতে শুনেছেন তারা। খবরটি চারপাশে ছড়িয়ে পড়লে ভয়ে আশপাশের গ্রাম থেকে পালিয়ে যেতে বাধ্য হন অনেকে। আবার অনেক উৎসুক গ্রামের লোক পর্বতে ঝাঁক বেধে উঠেছেন। অতি উৎসাহীরা মোবাইলের ক্যামেরায় শুট করছেন।

এ দৃশ্য সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার পর অনেকে ড্রাগনের গর্জন হিসেবে ধারণা করছেন। অনেকে বাঘের গর্জন হিসেবে মত দিয়েছিলেন। তবে  বিষয়টি খোঁজ নিতে প্রশাসন সেখানে বিশেষজ্ঞ দল পাঠিয়েছিল।

হলুদ পায়ের এ প্রজাতির কোয়েল পাখির ডাকে ঘুম হারাম হয় স্থানীয়দের। ছবি: সংগৃহীত।

এদিকে দেরিতে হলেও প্রাণীবিদেরা বিকট গর্জনের রহস্য বের করেছেন। একটি ছোট্ট পাখির শব্দই পর্বত থেকে এসেছিল। হলুদ পায়ের কোয়েল শব্দটি করেছিল। হলুদ পায়ের কোয়েল প্রজননের সময় বিকটভাবে শব্দ করে যা ১০০ মিটারের চেয়ে বেশি এলাকায় শোনা যায়।

স্থানীয় স্কুল শিক্ষক লিউ ফুকিওং-এর দাবি, ওই পাখিকে বিকট শব্দ করতে দেখেছেন তিনি। তিনি বলেন, পাখিটি ছয় বা সাত মিনিটের মধ্যে দুই থেকে তিন বার শব্দ করে। তার করা শব্দগুলো গভীর যা আমাকে বিস্মিত করেছে।

সূত্র- এক্সপ্রেস ইউকেফিন্যানশিয়াল প্রেস ইউকে

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ